আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

স্বপ্নে যখন কোয়ার্টার ফাইনাল!

প্রকাশিত : ১৪ জানুয়ারী ২০১৫
  • রোকসানা বেগম

তিন বছর আগের কথা, দিনটি ছিল ১৯ জানুয়ারি; সাল ২০১১। প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে হওয়া বিশ্বকাপের চূড়ান্ত দল ঘোষণা হল। সেই দলে ঠাঁই হলো না মাশরাফি বিন মর্তুজার! নিজের প্রতি অগাধ বিশ্বাস থাকার পরও এ পেসার দেশের মাটিতে হওয়া বিশ্বকাপে খেলতে পারবেন না। সে কী কষ্ট! সেই কষ্ট শেষপর্যন্ত ধরে রাখতে না পেরে কেঁদেই ফেললেন ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’। দেশের মাটিতে বিশ্বকাপ খেলার স্বপ্নভঙ্গ হয়ে গেল। এবার কী হলো? অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডে অনুষ্ঠেয় বিশ্বকাপের দল ঘোষণা হলো ৪ জানুয়ারি। সেই দলে মাশরাফি আছেন। তাও আবার থাকার মতোই। অধিনায়কত্বের দায়ভার তাঁর কাঁধেই পড়ল।

স্বাভাবিকভাবেই খুশি হওয়ার কথা। গত বিশ্বকাপের দুঃখের স্মৃতি ভুলে মাশরাফি খুশিও হলেন। জানালেন, ‘মানুষের জীবনে অনেক কিছুই ঘটে থাকে। গত বিশ্বকাপ নিয়ে ভেবে লাভ নেই। এখন নতুন বিশ্বকাপ এসেছে। সবাই মিলে চেষ্টা করব ভাল করার জন্য। অবশ্যই খুব ভাল লাগছে। বিশ্বকাপের মতো টুর্নামেন্টে অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করা বড় একটি ব্যাপার। আমার ওপর আস্থা রাখার জন্য বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানাই। সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন। আমাদের দলের জন্য দোয়া করবেন। যেন দল হিসেবে বিশ্বকাপে আমরা ভাল করতে পারি।’

সেই ভাল করা কতদূর? মাশরাফি জানালেন, ‘লক্ষ্য নিয়ে এখনই বলা ঠিক হবে না। অবশ্যই আমাদের একটি লক্ষ্য আছে। কিন্তু আমি এখনই তা বলতে পারছি না। অনুশীলন শুরু হবে, কোচ থাকবে, পরিকল্পনা হবে। তারপর লক্ষ্যের বিষয়টি বলতে পারব।’

মাশরাফি লক্ষ্যের কথা না জানালেও দলের কোচ চন্দ্রিকা হাতুরাসিংহে কিন্তু ঠিকই স্বপ্নের কথা জানিয়ে দিয়েছেন। বলেছেন, ‘দ্বিতীয় রাউন্ডে (কোয়ার্টার ফাইনালে) খেলতে চাই।’ সেই কোয়ার্টার ফাইনালের স্বপ্ন সবার ভেতরই আছে। কিন্তু সেই স্বপ্ন কী সত্যি হবে?

স্পিনার আরাফাত সানি সত্যি হওয়ার সম্ভাবনাই দেখছেন, ‘আমরা যেহেতু অস্ট্রেলিয়ায় ২ সপ্তাহ আগে যাব, এটা নিয়ে আমরা কাজ করার একটা সুযোগ পাব। আমরা ৩ বিভাগে ভাল করতে পারলে যে কোন দলকে হারানোর ক্ষমতা আমাদের আছে।’

সেই ক্ষমতা বাংলাদেশ এর আগেও দেখিয়েছে। ১৯৯৯ সাল থেকে বিশ্বকাপ খেলে বাংলাদেশ। এ পর্যন্ত চারটি বিশ্বকাপ টুর্নামেন্ট খেলা হয়ে গেছে। কিন্তু একবার মাত্র বাংলাদেশ দ্বিতীয় রাউন্ডে খেলার যোগ্যতা দেখিয়েছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজে হওয়া সেই বিশ্বকাপে ভারতকে প্রথম ম্যাচেই হারিয়ে দিয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে খেলে। প্রথমবারের মতো দ্বিতীয় রাউন্ডে খেলার স্বপ্ন সফল হয়। ১৯৯৯ সালে প্রথমবার বিশ্বকাপ খেলে। ২০০৩ সালে যাচ্ছে তাই অবস্থা হয়। একটি ম্যাচেও জিততে পারেনি। আর ২০০৭ সালে দ্বিতীয় রাউন্ডে ওঠার পর ২০১১ সালে নিজ দেশের মাটিতে খেলে দ্বিতীয় রাউন্ডে ওঠার স্বপ্নের কাছাকাছি গিয়েও তা পূরণ হয়নি।

এবারও বাংলাদেশ দ্বিতীয় রাউন্ডে অর্থাৎ কোয়ার্টার ফাইনালে খেলার স্বপ্নই দেখছে। তা কি পূরণ হবে? এবার বিশ্বকাপের নিয়ম অনুযায়ী দু’গ্রুপে সাতটি করে দল খেলবে। একে অপরের বিপক্ষে গ্রুপ পর্বে একবার করে লড়াই করবে। প্রতিটি গ্রুপের পয়েন্ট তালিকায় সেরা চারটি দল কোয়ার্টার ফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জন করবে।

বাংলাদেশ রয়েছে ‘এ’ গ্রুপে। যে গ্রুপে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ছয়টি দল হচ্ছেÑ আফগানিস্তান, অস্ট্রেলিয়া, শ্রীলঙ্কা, স্কটল্যান্ড, ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড। বিশ্বকাপে বাংলাদেশের মূল মিশন শুরু হবে ১৮ ফেব্রুয়ারি। প্রথম ম্যাচেই বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ থাকবে আফগানিস্তান। এরপর এক এক করে ২১ ফেব্রুয়ারি স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়া, ২৬ ফেব্রুয়ারি শ্রীলঙ্কা, ৫ মার্চ স্কটল্যান্ড, ৯ মার্চ ইংল্যান্ড ও ১৩ মার্চ বিশ্বকাপের যৌথ আয়োজক নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে লড়াই করবে বাংলাদেশ।

কোয়ার্টার ফাইনালে উঠতে হলে বাংলাদেশকে কম করে হলেও তিনটি ম্যাচ জিততে হবে। তিন ম্যাচ জিতলেও শঙ্কা থেকে যাবে। চার ম্যাচ জিততে নিশ্চিতভাবে মাশরাফিবাহিনী শেষ আটে জায়গা করে নেবে। কঠিন পথ। দুটি দল দুর্বল; আফগানিস্তান ও স্কটল্যান্ড। বাকি চারটি দলই বাংলাদেশের চেয়ে শক্তিশালী; অস্ট্রেলিয়া, শ্রীলঙ্কা, ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড। এরমধ্যে দুটি দল আবার স্বাগতিক; অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড।

ধরাই হচ্ছে কোন অঘটন না ঘটলে আফগানিস্তান ও স্কটল্যান্ডকে হারাবে বাংলাদেশ। কোয়ার্টার ফাইনালের স্বপ্নপূরণ করার পথে এগিয়ে যেতে হলে আরেকটি দলকে হারাতেই হবে। সেই দলটি কোনটি? দৃষ্টিতে আছে শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশ দলের বর্তমান কোচ হাতুরাসিংহের জন্ম শ্রীলঙ্কায়। শ্রীলঙ্কা দলের সহকারী কোচও ছিলেন হাতুরাসিংহে। শ্রীলঙ্কা দলের দুর্বলতা তাই ভাল করেই জানা আছে বাংলাদেশ কোচের। তাছাড়া খেলা হবে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডের মাটিতে। শ্রীলঙ্কা এখনই নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে হাবুডুবু খাচ্ছে। লঙ্কানদের দুর্বলতা হারে হারে টের পাওয়া যাচ্ছে। লঙ্কানরা এবার বিশ্বকাপে কতদূর যেতে পারবে তা বোঝাই যাচ্ছে। এই দলটিকেই তাই টার্গেট করা হচ্ছে।

যদি বাংলাদেশের টার্গেট পূরণ হয় তাহলে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে খেলার সম্ভাবনাও উজ্জ্বলই হয়ে থাকবে। চারটি দল কোয়ার্টার ফাইনালে যাবে। আফগানিস্তান, স্কটল্যান্ডের সঙ্গে যদি শ্রীলঙ্কাকেও পেছনে ফেলা যায় তাহলে চতুর্থ দল হিসেবে কোয়ার্টার ফাইনালে খেলার সম্ভাবনা থাকবে বাংলাদেশেরই। বাংলাদেশ এখন টার্গেট পূরণ করে স্বপ্ন সফল করতে পারে কিনা সেটিই দেখার বিষয়।

প্রকাশিত : ১৪ জানুয়ারী ২০১৫

১৪/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: