কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

গ্রিড বিপর্যয় নাশকতা কিনা খতিয়ে দেখার নির্দেশ

প্রকাশিত : ৪ নভেম্বর ২০১৪

কামারুজ্জামানের ফাঁসি বহাল থাকায় মন্ত্রিসভায় সন্তোষ

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ মীর কাশেম আলীর মৃত্যুদ- প্রদানের পর কামারুজ্জামানের ফাঁসির রায় বহাল রাখায় সন্তোষ প্রকাশ করেছে মন্ত্রিসভা। শনিবার বিদ্যুতের জাতীয় গ্রিড বিপর্যয়ের বিষয়েও মন্ত্রিসভায় আলোচনা করা হয়। এটি নাশকতা কিনা তা তদন্ত করা হচ্ছে। এছাড়া মন্ত্রিপরিষদ ২০১৫ সালের মোট ২৩ দিন সরকারী ছুটি অনুমোদন করেছে। সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীকে ফুরফুরে মেজাজে দেখা গেছে। বৈঠকে তিনি তাঁর স্বভাবসুলভ রসিকতা করতে ছাড়েননি। মন্ত্রিসভার এ বৈঠকে নাশকতার সঙ্গে যোগ হয় মিষ্টি। মিষ্টি আনেন ৬৭ বছর বয়সে বিয়ে করে নতুন জীবনে পদার্পণ করা রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক। তাঁর এ বিয়ে নিয়ে ইতোপূর্বে রসিকতা কম করেননি প্রধানমন্ত্রী। এমনকি বিয়ের আগে বিভিন্ন মন্ত্রিসভা বৈঠকে বসেও রসিকতা করেছেন নানাভাবে। সোমবারের এ বৈঠকে মিষ্টি আনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, এ মিষ্টি তো ঢাকার মিষ্টি। এ মিষ্টি খাব না। কুমিল্লার মিষ্টি কই? পরে অবশ্য তিনি একটু মিষ্টি মুখে দিয়ে তা সকলকে খাওয়ার অনুরোধ করেন।

রবি ও সোমবার জামায়াত নেতা মীর কাশেম আলী ও কামারুজ্জামানের আদেশ দেয় আদালত। মীর কাশেমকে ফাঁসির আদেশ দিলেও আপীল করা কামারুজ্জামানের ফাঁসির আদেশ বহাল রেখেছে আদালত। এতে সোমবার মন্ত্রিসভা সন্তোষ প্রকাশ করেছে। এ প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় কামারুজ্জামান ছিল ভয়ঙ্কর। সে সোহাগপুর (শেরপুরের সোহাগপুর) গ্রামকে বিধবা গ্রাম হিসেবে পরিণত করেছিল।

সূত্র জানায়, বৈঠকে শনিবার বিদ্যুতের জাতীয় গ্রিড বিপর্যয় নিয়ে আলোচনা হয়। আলোচনাকালে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এটি নাশকতা কি না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। যুদ্ধাপরাধীর বিচার বানচালের কোন ষড়যন্ত্র কি না তাও খতিয়ে দেখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তদন্ত রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। তবে নাশকতা বা ষড়যন্ত্রের প্রমাণ পাওয়া গেলে সংশ্লিষ্ট যেই হোক না কেন তার বিরুদ্ধে দৃষ্ঠান্তমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

২০১৫ সালের সরকারী ছুটি

মন্ত্রিসভার বৈঠকে ২০১৫ সালের জন্য ২৩ দিন সরকারী ছুটির অনুমোদন দেয়া হয়েছে। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব এম মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া এক ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের বলেন, সরকারী ছুটির মধ্যে জাতীয় দিবস ও বিভিন্ন সম্প্রদায়ের ধর্মীয় অনুষ্ঠান উপলক্ষে ১৫ দিন সাধারণ সরকারী ছুটি এবং অবশিষ্ট ৮ দিন নির্বাহী আদেশে মোট ২৩ দিন সরকারি ছুটি পালিত হবে। অবশ্য ১৫ দিন সরকারী ছুটির মধ্যে ৯ দিন সাপ্তাহিক ছুটি (শুক্র ও শনিবার) এবং নির্বাহী আদেশে ৮ দিন ছুটির মধ্যে ৩ দিন সাপ্তাহিক ছুটি অন্তর্ভুক্ত থাকবে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, হিজরী ক্যালেন্ডারের সঙ্গে সমন্বয় করে ২০১৫ সালে ঈদে মিলাদুন্নবীর ছুটি হবে দুইদিন, যথাক্রমে ৪ জানুয়ারি ও ২৪ ডিসেম্বর। বৈঠকে বিভিন্ন প্রকল্পে বিদেশী মঞ্জুরির প্রতিশ্রুতি ও অবমুক্তির বিষয় অবহিত করা হয়। এতে বলা হয়, এখন ১৯.৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের প্রতিশ্রুতি পাইপলাইনে রয়েছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ স্বাধীনতার পর থেকে এ পর্যন্ত দাতাদের কাছ থেকে ৮৬.৮৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের প্রতিশ্রুতি পেয়েছে। এর মধ্যে বিভিন্ন প্রকল্পে ৬৭.৫৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ব্যবহৃত হয়েছে।

প্রকাশিত : ৪ নভেম্বর ২০১৪

০৪/১১/২০১৪ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: