মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

বাংলাদেশকে টার্গেট কোহলির!

প্রকাশিত : ১০ জুন ২০১৫
  • শাকিল আহমেদ মিরাজ

কোহলির যা স্বভাব, তাতে ধীরস্থির পরিকল্পনার স্থান কোথায়? মাঠ ও মাঠের বাইরে এতদিন ভারতীয় ক্রিকেটের বড় তারকার এমন চরিত্রটাই সবাই দেখে এসেছেন। বাংলাদেশ সফর দিয়ে বদলাচ্ছে সেটি! তিনি যে এখন ‘মোড়ল’ দেশের টেস্ট অধিনায়ক। কঠিন দায়িত্ব। স্বল্পদৈর্ঘে সফল্য এলেও টেস্টে, বিশেষ করে বিদেশের মাটিতে দলটির অবস্থা খুবই করুণ। এবার পরিস্থিতিটা বদলে দিতে চান সাদা পোশাকের নতুন সেনাপতি। সেটা করতে চান আজ থেকে শুরু হওয়া ফতুল্লা টেস্ট দিয়েই। ২৬ বছর বয়সী ক্রেজী কোহলির কণ্ঠে দৃপ্ত প্রত্যয়।

‘এমন নয় যে আমাদের সারাজীবনই শিখতে হবে। অনেক শিখেছি, সময় হয়েছে ঘুরে দাঁড়ানোর। অনেক খেলেছি টেস্ট জয়ের এটাই সময়। সময় হয়েছে দীর্ঘ পরিসরেও দক্ষতা মেলে ধরার। টেস্টে ফল পেতে চাই, সেটা বাংলাদেশ সফর দিয়েই।’ বলেন ভারতের নতুন টেস্ট অধিনায়ক। ২০১১ বিশ্বকাপ জয়ের পর ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়ায় টানা দুই সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হয় মহেন্দ্র সিং ধোনির ভারত। ব্যর্থতার ধারা অব্যাহত চলতি মৌসুমেও। গত বছর জুলাইয়ে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্ট জিতেছিল ক্রিকেটের মোড়লরা। লর্ডসের সেই ম্যাচের পর খেলা সাত ম্যাচে জয়হীন ভারত।

এবারের বিশ্বকাপে ঠিক আগে সিরিজ হারে অস্ট্রেলিয়ার কাছে। লম্বা সময় ধরে টেস্টের ব্যর্থতা ঘোচাতে মরিয়া কোহলি। ইচ্ছা থাকলে টেলিভিশনে খেলা দেখেও শেখা যায় বলে উল্লেখ করেন তিনি। ‘যেটা অর্জন করতে চাই, তার জন্য আমাদের পরিকল্পনা আছে, আছে উচ্চাশা। ধাপে ধাপে তা বাস্তবায়নের দিকে এগোতে হবে। প্রথম ধাপটা হবে বাংলাদেশ সফর। ফতুল্লা টেস্ট জিতে সাফল্যের সিড়িতে পা রাখতে চাই। এরপর দেশের মটিতে লম্বা মৌসুম, অনেক খেলা...।’

টেস্টে ঘুরে দাঁড়াতে বাংলাদেশকে টার্গেট করলেও কাজটা যে সহজ হবে না, সেটিও মানেন কোহলি। ভারত অধিনায়ক বলেন, ‘গত কয়েক বছরে বাংলাদেশের ক্রিকেট অনেক এগিয়েছে। বিশ্বকাপ সাফল্যের পর তারা পাকিস্তানকে ওয়ানডেতে হোয়াইটওয়াশ করেছে। স্বাগতিক স্কোয়াডে রয়েছেন শাকিব আল হাসানের মতো বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহীমের মতো দারুণ ব্যাটসম্যান। কয়েকজন নতুন ক্রিকেটারও পার্থক্য গড়ে দেয়ার সামর্থ্য রাখে। সুতরাং সাফল্যের সিড়িতে পা রাখতে আমাদের সেরাটাই দিতে হবে।’

ফতুল্লা টেস্ট জয়ের সামর্থ্য ভারতের রয়েছে উল্লেখ করে কোহলি আরও যোগ করেন, ‘টেস্টে আমরা সমৃদ্ধ দল। ব্যাট হাতে মুরলি বিজয়, রোহিত শর্মা, অজিঙ্কা রাহানে পার্থক্য গড়ে দিতে সক্ষম। বোলিংয়ে অভিজ্ঞ হরভজন সিং ফিরেছে। রবিচন্দ্রন আশ্বিনের সঙ্গে আমাদের স্পিন আক্রমণও এখন বিশ্বসেরা। হয়ত ধোনির অভাব অনুভূত হবে। তবে আশা করছি নতুনরা তা পুষিয়ে দেবে।’ ব্যাট হাতে অধিনায়ক নিজেই ভারতের বড় ভরসা। দল সুবিধা করতে না পারলেও সর্বশেষ অস্ট্রেলিয়া সফরে ব্যাট হাতে ঝলসে ওঠেন ভারতীদের ‘আগামীর শচীন’। ৪ ম্যাচের ৮ ইনিংসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৬৯২ রান সংগ্রহ করেন কোহলি। ৮৭ গড়ে ছিল ৪ সেঞ্চুরি ও ১ হাফ সেঞ্চুরি!

বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালের ঘৃণ্য আম্পারিংয়ের সেই বিতর্ক সামনে রেখেই এই সফরে টাইগার ভক্তদের মাঝে উন্মদনার জোয়ার। একটাই সেøাগান, দাঁত ভাঙা জবাব চাই। চাই প্রতিশোধ। কোহলি অবশ্য সেটি মনে রাখেননি। ‘আগে অনেক কিছুই ঘটেছে। তবে আমাদের দৃষ্টি সামনে। বিশ্বকাপেই সেটা আমরা শেষ করেছি। এরপর আরও ক্রিকেট খেলেছি। কাজেই মনে করি না, বিষয়টা আমাদের খুব মনে থাকবে। আমাদের লক্ষ্য ভাল ক্রিকেট খেলা। ফতুল্লায় জয় দিয়ে শুরু করতে চাই। আপাতত এতেই মনোযোগ। এমন নয় যে প্রতিপক্ষের ব্যাপারে আমাদের কোন ঈর্ষা, আক্রোশ বা ঘৃণা আছে। আমরা পুরোপুরি পেশাদারি মনোভাব নিয়ে মাঠে নামব।’ অস্ট্রেলিয়া সফরে ধোনি হুট করে অবসর নিলে টেস্টে অধিনায়কের দায়িত্ব পান কোহলি। তবে বাংলাদেশের বিপক্ষে টেস্ট দিয়ে ভারতীয় ক্রিকেটে শুরু- কোহলি যুগ। তাঁদের মেজাজ-মর্জি, চিন্তা-চেতনা ভিন্ন হবে এটাই স্বাভাবিক। কে কেমন? এই প্রশ্নটা আরও বেশি করে সামনে আসছে, কারণ গত অস্ট্রেলিয়া সফরে হুট করে টেস্ট থেকে অবসর নিয়েছেন মাহি। সাদা পোশাকে মোড়ল ভারতের সেনাপতি এখন কোহলি। বাংলাদেশ সফর দিয়েই আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হচ্ছে কোহলি-অধ্যায়। কেমন করবেন কোহলি? এ নিয়ে ভারত তো বটেই, বিশ্বজুড়ে ক্রিকেটপ্রেমীদের মধ্যেও গবেষণার কমতি নেই। উত্তর মিলবে সময়ে। স্বকীয়তা ধরে রাখার পাশাপাশি ধোনির প্রশংসাও করেছেন কোহলি।

‘ধোনি আর আমি দু’জন আলাদা মানুষ। আমাদের চরিত্রও ভিন্ন। তাহলে কেন ধোনির সঙ্গে আমাকে তুলনা করা হবে? আমি কাউকে অনুকরণ করব না, কারও জন্য নিজেকে বদলাবও না। আমাকে আমার মতো আগ্রাসী মেজাজেই পাওয়া যাবে। কারণ এটাই আমার পরিচয়। চাইব, যাতে আমার চিন্তাটা আমার মুখে ফুটে না ওঠে। আবেগ নিয়ন্ত্রণে রেখে ভারতকে নেতৃত্ব দিতে চাই। টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে আমার ব্যক্তি-দর্শন এমনই।’ স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমকে বলেন কোহলি। ধোনি যে কোন পরিস্থিতিতে মাথা ঠা-া রেখে সেরাটা বের করে আনতে পারেন। তার নেতৃত্বে ভারত ওয়ানডে-টি২০সহ সব ক’টি বৈষয়িক শিরোপা জেতে।

মেজাজী হলেও টেস্টের সাবেক সতীর্থের প্রশংসা করতে ভোলেননি বিরাট। ‘ধোনি দীর্ঘ পরিসরের টেস্টেও আলাদা ছাপ রেখে গেছে। পরিসংখ্যানেও ভারতের সফলতম অধিনায়ক ও। ওর জন্য অনেক ক্রিকেটার প্রচুর সুযোগ পেয়েছে। তরুণদের প্রতি বরাবরই ওর সমর্থন ও আস্থাটা ছিল দেখার মতো। এটা সবচেয়ে বড় ব্যাপার। একটা বিষয় দেখেছি, ধোনি সহজে দলে ব্যাপক পরিবর্তন আনতে চাইত না। ওর সাফল্যের এটাও বড় কারণ। প্রত্যেক সদস্যের সঙ্গে সখ্য গড়ে তুলত। ব্যক্তিগতভাবে আমার ক্যারিয়ারের এই পর্যায়ে ধোনির অবদান স্বীকার করি। সবচেয়ে বেশি ভাল লাগত, ক্ষমতা থাকার পরও ও নবীনদের ওপর খবরদারি ফলায় না। এটা এক কথায় অসাধারণ।’

বাংলাদেশ সফরে ভারতের প্রধান কোচ করা হয়েছে রবি শাস্ত্রীকে। পাশিপাশি এখন থেকে ক্ষমতাধর ক্রিকেট পরাশক্তি দেশটির পরামর্শক হয়ে কাজ করবেন তিন সাবেক গ্রেট শচীন টেন্ডুলকর, সৌরভ গাঙ্গুলী ও ভিভিএস লক্ষণ। এ সবকে নিজেদের ক্রিকেটের ভবিষ্যতের জন্য ইতিবাচকভাবেই দেখছেন সেনসেশনাল কোহলি। বিশেষ করে শাস্ত্রীতে মুগ্ধতার শেষ নেই তার। ‘শাস্ত্রী হচ্ছেন সেই মানুষ, যিনি কখনোই দায়িত্ব নিতে পিছপা হন না। যে কোন পরিস্থিতিতে সামনে তাকাতে পছন্দ করেন। তিনি কখনো দুই রকমের চিন্তা করেন না। তিনি একজন অসাধারণ মানুষ সবাই তাঁকে সম্মান করেন। তাঁর মতো একজনকে স্থায়ীভাবে পেলেও মন্দ হবে না!’

প্রকাশিত : ১০ জুন ২০১৫

১০/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: