মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

৫ জানুয়ারি পরবর্তী অনিশ্চয়তা দূর হয়েছে ॥ মুহিত

প্রকাশিত : ২৪ মে ২০১৫

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে বিনিয়োগ আকর্ষণ ও রফতানি খাতকে সহযোগিতা দেয়া হবে বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। এজন্য আসন্ন বাজেটে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, স্থিতিশীলতা আনতে সরকার সক্ষম হয়েছে। গত ৫ জানুয়ারির পর দেশে যে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছিল তা দূর হয়েছে। এই অনিশ্চয়তা কিভাবে দূর করা যায় সে ব্যাপারেও বর্তমান সরকারের অভিজ্ঞতা রয়েছে। আর তাই কর্মসংস্থান তৈরিতে এখন দেশী-বিদেশী বিনিয়োগ উৎসাহিত হচ্ছে। এছাড়া বাজেট ঘোষণার পর নিত্যপণ্যের বাজারে দ্রব্যমূল্য বাড়বে না বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন অর্থমন্ত্রী। শনিবার সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেসক্লাবে ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরাম (ইআরএফ) আয়োজিত ‘চাকুরী সৃষ্টি : বাজেটের বড় চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এসব কথা বলেন। ইআরএফ প্রেসিডেন্ট সুলতান মাহমুদ বাদলের সভাপতিত্বে ওই অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান, পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মুনসুর, সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগের (সিপিডি) নির্বাহী পরিচালক ড. মুস্তাফিজুর রহমান, আমেরিকা-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এ্যামচ্যাম) সভাপতি আফতাবুল ইসলাম, বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা পরিষদের গবেষক ড. বিনায়ক সেন, বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস এ্যাসোসিয়েশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট মোঃ ফজলুল হক, বারভিডা’র সভাপতি আবদুল হামিদ শরীফ, ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রফেসর স্বপন কুমার বালা প্রমুখ।

এছাড়া উপস্থিত ছিলেন অর্থসচিব মাহবুব আহমেদ, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান ড. নজিবুর রহমান, এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি একে আজাদ, মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এমসিসিআই) সভাপতি সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর প্রমুখ।

অর্থমন্ত্রী বলেন, দেশের রফতানিমুখী তৈরি পোশাক শিল্প এখন শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে। এই শিল্পের কাছ থেকে রাজস্ব কি আসল সেটা সরকার বিবেচনায় নেয় না। বরং কর্মসংস্থান তৈরিতে এই খাতটি বড় ভূমিকা রাখছে। তাই পোশাক শিল্পের উদ্যোক্তারা যখনই সরকারের কাছে কিছু চায় তা দেয়ার চেষ্টা করা হয়। এভাবে কর্মসংস্থান তৈরির বিভিন্ন খাতকে সরকারকে সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, গত ৫ জানুয়ারির পর দেশে এক ধরনের অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছিল ঠিকই কিন্তু সরকার তা মোকাবেলা করতে সমর্থ্য হয়েছে। এখন দেশে অভ্যন্তরীণ ও বিদেশী বিনিয়োগ বাড়ছে। বিনিয়োগ বাড়লেই নতুন নতুন কর্মসংস্থান তৈরি হবে।

ড. আহসান এইচ মুনসুর বলেন, নতুন কর্মসংস্থান একটি বড় চ্যালেঞ্জ। তারপরও বিনিয়োগ বাড়িয়ে নতুন কর্মসংস্থান তৈরি করতে হবে। তিনি বলেন, দক্ষ মানব সম্পদ গড়ে তুলতে হবে। কারিগরি এবং প্রযুক্তিগত শিক্ষার দিকে নজর দেয়া প্রয়োজন। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, দেশে বিপুল সংখ্যক গ্রাজুয়েশনধারী বেকার রয়েছে কিন্তু তারপরও আমাদের পোশাক খাতে ভারত, পাকিস্তান এবং শ্রীলঙ্কা থেকে দক্ষ মানব সম্পদ আনতে হচ্ছে। আগামী বাজেটে দক্ষ মানব সম্পদ উন্নয়নে সবচেয়ে বেশি নজর দেয়া প্রয়োজন।

প্রকাশিত : ২৪ মে ২০১৫

২৪/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: