আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

যৌথ সহযোগিতা ও ব্যবস্থাপনা মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করবে’

প্রকাশিত : ২৩ মে ২০১৫, ১২:৫১ পি. এম.

অনলাইন ডেস্ক ॥ নয়াদিল্লীতে ফ্রেন্ডস অব বাংলাদেশ আয়োজিত ‘ইন্ডিয়া বাংলাদেশ সম্পর্ক : দ্বিপাক্ষিকতা ও তার সম্প্রসারণ’ শীর্ষক এক আলোচনায় অংশ নিয়ে শুক্রবার বক্তারা বলেছেন, বাংলাদেশ এবং ভারতের যৌথ সহযোগিতা ও যৌথ ব্যবস্থাপনা এই অঞ্চলের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করে দিতে পারে। তারা বিদ্যুৎ, জ্বালানি, পানি বন্টনসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহযোগিতার কথা উল্লেখ করেন।

বাংলাদেশ হাইকমিশনের সহযোগিতায় দুই দেশের সম্পর্কের ওপর আলোচনার ৬ষ্ঠ রাউন্ডে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ভারতের রেলমন্ত্রী সুরেশ প্রভূ, বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, ভারতের সংলখ্যালঘু মন্ত্রী নাজমা হেপায়েতুল্লাহ, বাংলাদেশের হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী, ইন্ডিয়া ফাউন্ডেশনের প্রবন বানচাল এবং ইন্ডিয়া-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশীপের বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের শামসুল আরিফিন।

ভারতের রেলমন্ত্রী সুরেশ প্রভূ বলেন, আমরা উভয় দেশে জনগণের মধ্যে সম্পর্ক বৃদ্ধি করে এই অঞ্চলের উন্নয়ন নিশ্চিত করতে চাই। ভারতের সাথে স্থলসীমান্ত চুক্তি অনুমোদনের পর বাংলাদেশ এবং ভারতের সম্পর্কের ক্ষেত্রে এখন ঐতিহাসিক মুহূর্ত।

তিনি বলেন, এই দুই দেশের মধ্যে এখনো অনেক সহযোগিতার ক্ষেত্র অনুদ্ঘাটিত রয়েছে। এগুলো চিহ্নিত করে আমরা এগিয়ে যেতে পারি।

তিনি বাংলাদেশের মানবিক খাতের উন্নয়নের কথা উল্লেখ করে বলেন, বাংলাদেশ এ ক্ষেত্রে এ অঞ্চলের সকল দেশকে ছাড়িয়ে গেছে।

তিনি শিল্প, কৃষি, পরিবেশ এবং জলবায়ুসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে যৌথ সহযোগিতা এবং যৌথ ব্যবস্থাপনার তাগিদ দিয়ে বলেন, তাহলে আমরা অনেক দূর এগিয়ে যেতে পারবো।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেছেন, পরিবর্তিত রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এ অঞ্চলের মানুষের মধ্যে নতুন স্বপ্ন জাগিয়েছে। তিনি এই স্বপ্ন বাস্তবায়নে যৌথভাবে কাজ করার আহবান জানান।

তিনি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আসন্ন বাংলাদেশ সফরকালে তিস্তা চুক্তি স্বাক্ষরের ব্যাপারে আশা প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন, দু’দেশের মধ্যে প্রবাহিত ৫৪টি নদী নিয়ে যৌথ ব্যবস্থাপনা গড়ে তোলা যেতে পারে।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার বর্ডার ব্যবস্থাপনা যোগাযোগ, পানি ব্যবস্থাপনা, নিরাপত্তা, বিদ্যুৎ জ্বালানি উপ-আঞ্চলিক উন্নয়ন, শিক্ষা ইত্যাদি বিষয় নিয়ে বাংলাদেশ-ভারত যৌথভাবে কাজ করতে পারে।

স্থলসীমা চুক্তি অনুমোদনের জন্য ভারত সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, এই অঞ্চলের সম্পর্কে ভারতের প্রধানমন্ত্রী দৃষ্টিভঙ্গি আমাদের মধ্যে আশার সঞ্চার করেছে।

বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী বলেন, নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফর দু’দেশের মধ্যে সম্পর্কে আরো নিবিড় করবে এবং তিনি আশা করেন এই সফরের মধ্য দিয়ে অমীমাংসিত বিষয়গুলোর সমাধানের পথ প্রশস্ত হবে। সূত্র- বাসস।

প্রকাশিত : ২৩ মে ২০১৫, ১২:৫১ পি. এম.

২৩/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: