মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

পর্যটন শিল্পের বিকাশে সরকার সর্বাত্মক সহযোগিতা করছে: মেনন

প্রকাশিত : ২১ মে ২০১৫, ০৫:৪৭ পি. এম.
পর্যটন শিল্পের বিকাশে সরকার সর্বাত্মক সহযোগিতা করছে: মেনন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ পঞ্চম আন্তর্জাতিক পর্যটন মেলা উদ্ভোধনকালে বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেন, দেশের পর্যটন শিল্পের বিকাশে ট্যুর অপারেটরদের ভুমিকাই মূখ্য। পর্যটন শিল্পের বিকাশে সরকার সর্বাত্মক সহযোগিতা করে যাচ্ছে। ২০১৬ সালকে ইতোমধ্যে পর্যটনের বছর ঘোষণা করা হয়েছে। টুরিজমের ওই বছরে ১০ লাখ বিদেশী পর্যটক বাংলাদেশ ভ্রমণ করবে বলে আমরা আশা করছি।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে শুরু হওয়া তিন দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক পর্যটন মেলার উদ্ভোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

পর্যটন মন্ত্রী বলেন, পার্শ্ববর্তী দেশে আগত পর্যটকেরা একবারের জন্যেও বাংলাদেশ ভ্রমণে এলে তা হবে দেশের জন্যে ইতিবাচক। সে লক্ষ্য সামনে রেখে পর্যটন শিল্পের সাথে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোকে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি। এসময় দেশী-বিদেশী পর্যটকদের বাংলাদেশ ভ্রমণের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, বাংলাদেশে আসুন, অন্য পর্যটক আসার আগে আপনারা বাংলাদেশকে দেখুন।

তিনি আরও বলেন, পর্যটন খাতের উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অত্যন্ত আন্তরিক। তিনি নিজ উদ্যোগে এ খাতের বিকাশে অনেক কিছু করেছেন। সরকার পর্যটনের গুরুত্ব বোঝে। এটি বাংলাদেশের জন্যে অত্যন্ত সম্ভাবনাময় একটি খাত। পর্যটনের মূল কথা পর্যটকদের এখানে আসতে উদ্বুদ্ধ করা ও নিয়ে আসা। শুধু বিদেশিরা নয়, তারা আসার আগে দেশের মানুষদেরও দেশের ট্যুরিজম স্পট ও প্রোডাক্ট গুলো দেখায় উদ্বুদ্ধ করতে হবে।

বাংলাদেশ ছাড়াও ভুটান, কম্বোডিয়াসহ ১৫টি দেশের ৫৫টি এয়ারলাইন্স, হোটেল, মোটেল, রিসোর্ট, ট্যুর অপারেটর ও পর্যটনবিষয়ক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ১৩৫টি স্টল অংশ নিয়েছে। মেলা উপলক্ষে প্রতিটি প্রতিষ্ঠান হোটেল ও প্যাকেজ বুকিংয়ে নানা ছাড় দিচ্ছে। মেলা প্রতিদিন সকাল ১০ টা থেকে শুরু হয়ে রাত ৮ টা পর্যন্ত চলবে। যথারীতি চলবে ২৩ মে পর্যন্ত ।

মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিএফটির চেয়ারম্যান হাকিম আলী। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের পর্যটন মন্ত্রী রতন ভৌমিক, বাংলাদেশ বেসরকারী বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব খোরশেদ আলম চৌধুরী, ভুটানের প্রতিনিথি সুনম দর্জি, নেপাল এসোসিয়েশন অব ট্যুর এন্ড ট্রাভেলস চেয়ারম্যান ডি বি লিম্বো প্রমুখ।

সাম্প্রতিক সমেয় হিমালয় কন্যা নেপালে ঘটে যাওয়া ইতিহাসের ভয়াবহ ভূমিকম্পের ঘটনায় বিভিন্ন দেশের আগত প্রতিনিধিরা সহমর্মিতা প্রকাশ করেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে বাংলাদেশ নেপালকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করছে এসময় বিষয়টি উল্লেখ করেন পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব খোরশেদ আলম চৌধুরী।

প্রকাশিত : ২১ মে ২০১৫, ০৫:৪৭ পি. এম.

২১/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: