আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

আস্থার প্রতীক মুশফিক

প্রকাশিত : ২২ এপ্রিল ২০১৫
  • মাহমুদা সুবর্ণা

ছাব্বিশ বছর বয়স। উচ্চতায় ৫ ফুট ৩ ইঞ্চি। কিন্তু অসাধারণ সব পারফর্মেন্স উপহার দিয়ে নিজেকে নিয়ে গেছেন অনন্য উচ্চতায়। তিনি বাংলাদেশ টেস্ট দলের অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম। ২০০৫ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অভিষেক ঘটে তার। সেই শুরু; এরপর আর কখনই পেছনের দিকে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। দীর্ঘ এক দশক ধরেই সাফল্যের সঙ্গে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেছেন তিনি। প্রতিপক্ষের বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে, উইকেটের পেছনে কিংবা অধিনায়কত্বের ভার কাঁধে নিয়ে। সর্বত্রই নিজেকে মেলে ধরছেন দারুণভাবে।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে জিম্বাবুইয়ের বিপক্ষে সিরিজের জন্য টেস্ট ও ওয়ানডে ক্রিকেটের জন্য আলাদা অধিনায়ক ঘোষণা করে বিসিবি। টেস্ট দলের নেতৃত্বে মুশফিকুর রহীম বহাল থাকলেও ওয়ানডের অধিনায়ক করা হয় মাশরাফি মুর্তজাকে। কিন্তু তারপরও দুর্দান্ত খেলে যান মুশফিকুর রহীম। বিশ্বকাপের ফর্ম ধরে রেখে বাংলাদেশ ক্রিকেট লীগেও (বিসিএল) মিডলঅর্ডারের নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান ছিলেন মুশফিকুর রহীম। তিনি চার ম্যাচে ১২৯ রান (১৬, ৪, ৭৮ এবং ৩১) করেছিলেন। আর সেই ফর্মকে আরও দৃষ্টিনন্দন করতে পাকিস্তানের বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচেই খেলেছেন অসাধারণ দুটি ইনিংস। সফরকারীদের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে ৭৭ বল মোকাবেলায় পাক বোলারদের তুলোধুনো করে ১৩টি চার আর দুটি ছয়ে মুশফিক করেন ১০৬ রান। ৭৯ রানের জয়ের ম্যাচে টাইগারদের নায়ক হিসেবে ম্যাচ সেরার পুরস্কারটাও উঠে মাত্র ৬৯ বলে শতক করা মুশফিকের হাতে।

দ্বিতীয় ওয়ানডেতে মাঠে নামার আগে টাইগার দলপতি মাশরাফি বিন মুর্তজা এক সংবাদ সম্মেলনে মুশফিকুর রহীমকে বাংলাদেশের মিডলঅর্ডারের ব্যাটিং স্তম্ভ বলে আখ্যা দিয়েছিলেন। অধিনায়কের বলা কথার প্রতিদান দিয়ে মুশফিক দ্বিতীয় ওয়ানডেতে করেন ৬৫ রান। ৭০ বলে তার ইনিংসটি সাজানো ছিল ৮টি চার আর একটি ছয়ের সাহায্যে। বিসিএলের আসর বাদে টাইগারদের রান-মেশিনের সর্বশেষ ১৪টি ইনিংসে এসেছে ৭৫৪ রান। যা গড়ে ৫৩.৮৬। এর মধ্যে রয়েছে সাতটি অর্ধশতক আর একটি শতক। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে ২২টি অর্ধশতক হাঁকানো মুশফিকের সর্বশেষ ১৪টি ইনিংসে ৭০ রানের বেশি ইনিংস রয়েছে তিনবার, যেখানে একবার খেলেছেন ৮৯ রানের ইনিংস। ওয়ানডেতে ১৪৮ ম্যাচ খেলা মুশফিক ১৩৭ ইনিংস থেকে করেছেন ৩,৬২২ রান। ২০ বার অপরাজিত থাকা টাইগার এ ব্যাটসম্যানের ওয়ানডে গড় ৩০.৯৫। তিনবার তিন অঙ্কের ম্যাজিক ফিগারে পৌঁছানো মুশফিকের ইনিংস সর্বোচ্চ রান ১১৭।

তবে মুশফিকুর রহীমের সাফল্যের পেছনের গল্পটাও বেশ রোমাঞ্চকর। অফিসিয়ালি কোন অনুশীলন নেই। তবু ব্যাট-প্যাড পরে মাঠে হাজির নেট প্র্যাকটিসের জন্য। আবার দলের অনুশীলন থাকলেও নির্দিষ্ট সময়ের অনেক আগেই হাজির হয়েছেন সবসময়। ওয়ানডে দলকে নেতৃত্ব দেয়ার সময় এমন কঠোর পরিশ্রম, নিষ্ঠা দেখিয়ে সবার জন্য অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। ফলও পেয়েছেন। ধারাবাহিকভাবে তিনি রান পেয়ে যাচ্ছেন। সাফল্যের চাবিকাঠি পরিশ্রম। তাই করে দেখিয়েছেন মুশফিক। চলমান পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজটাই তার বড় প্রমাণ। প্রথম একদিনের ম্যাচে সেঞ্চুরির পর দ্বিতীয়টিতে অর্ধশতক। ক্রমেই যেন রানের মেশিন হয়ে উঠেছেন মুশফিক এতে কোন সন্দেহ নেই। এ কারণে ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফিও প্রশংসায় পঞ্চমুখ তার। মুশফিক সম্পর্কে মাশরাফির অভিমত, দলের সবচেয়ে পরিশ্রমী, মনোযোগী ও নিষ্ঠাবান ক্রিকেটার হিসেবে তিনি ‘রান-মেশিন’ হয়ে উঠেছেন। মুশফিক প্রসঙ্গে মাশরাফি বিন মুর্তজা বলেন, ‘সব কিছুর আগে বলব, মুশফিক এখন বাংলাদেশের রান-মেশিন। গত দু-তিন বছর ও যেভাবে রান করেছে, তা অনন্য অসাধারণ। বিশ্বের সেরা ব্যাটসম্যানরাই এভাবে খেলে। তবে তেমন আলোচিত হয় না। এটা ওর জন্য ভাল। ও যেভাবে নেটে ব্যাটিং করে, যখন কারও অনুশীলন না থাকে ও তখন একা একা নেটে অনুশীলন করে। ১০/১২ জন নেট বোলার এনে সে অনুশীলন করে। আসলে ওর ভাল খেলার তীব্র ইচ্ছাশক্তিই ওকে এখানে নিয়ে এসেছে।’ প্রকৃতপক্ষে এসব কারণেই মুশফিক এখন বাংলাদেশ দলের মিডলঅর্ডারে হয়ে উঠেছেন ‘মিস্টার ডিপেন্ডেবল’; তাঁর ওপর প্রত্যাশা করে বিফল হয় না টাইগার শিবির।

একদশক আগে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হলেও ২০১৩ সালে দুর্দান্তভাবে পাদপ্রদীপের আলোয় আসেন তিনি। এরপর ২৮ ওয়ানডে ইনিংসে নিয়মিত মুশফিকের ব্যাট থেকে রান এসেছে প্লাবনের মতো। এর মধ্যে বেশ কয়েকবার শতরানের কাছাকাছি গিয়েও সেটা ছুঁতে পারেননি। দীর্ঘ দেড় বছর ধরে যার ব্যাটে এত রান তিনি সেই তিন অঙ্কের ম্যাজিক ফিগারে পৌঁছতে পারছিলেন না। অবশেষে সেই খরাটা কাটালেন মুশফিক। শুক্রবার সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে দুর্ধর্ষ হয়ে উঠেন তিনি। বিশ্বকাপটা দারুণ কেটেছে তার। তবে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডের পরিবেশ বিবেচনায় সেভাবে অনুশীলন করেছেন ব্যাটিং নিয়ে। আর পাকিস্তানের বিপক্ষে ঘরের মাঠে রান পেতে হলে বাড়তি কিছু করতে হবে সে তাগিদ ছিল। তাই বিশ্বকাপ শেষ হওয়ার পরই পাক বোলারদের মোকাবেলা করতে বিশেষ কিছু শট নিয়ে কাজ করেছেন তিনি। দীর্ঘদিন প্রচেষ্টার পর সেগুলো কার্যকরও করতে পেরেছেন তিনি।

পাকিস্তানের বিপক্ষে দীর্ঘ ১৬ বছর পর প্রথম জয়ের স্বাদ পায় বাংলাদেশ। শুধু তাই নয়; দ্বিতীয় একদিনের ম্যাচ জিতে সিরিজটাকেও নিজের করে নেয় টাইগাররা। আজ মিরপুর শেরেবাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে তৃতীয় ও শেষ একদিনের ম্যাচ খেলতে মাঠে নামছে বাংলাদেশ। এই ম্যাচ জিততে পারলেই হোয়াইটওয়াশ করার অবিস্মরণীয় কীর্তি গড়বে বাংলাদেশ। পুরো বাংলাদেশও এখন সেই বাংলাওয়াশ উৎযাপনের অপেক্ষায়। এরপর শুক্রবার একমাত্র টি২০ ম্যাচে মুখোমুখি হবে দুই দল। এরপরই টেস্ট সিরিজ। আর টেস্টে আবারও অধিনায়কত্বেও ভার কাঁধে নিয়ে মাঠে নামবেন মুশফিকুর রহীম। পারফর্মেন্সের এই ধারাবাহিকতা টেস্টেও ধরে রাখতে আশাবাদী ২৬ বছর বয়সী মুশফিক। আশাবাদী টেস্টেও দেশকে দারুণ জয় উপহার দিতে।

প্রকাশিত : ২২ এপ্রিল ২০১৫

২২/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: