কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

রাজশাহীতে জামায়াত শিবিরের ফের তাণ্ডব ॥ অবরোধ প্রত্যাখ্যান

প্রকাশিত : ৭ জানুয়ারী ২০১৫
রাজশাহীতে জামায়াত শিবিরের ফের তাণ্ডব ॥ অবরোধ প্রত্যাখ্যান
  • রাজশাহীর জামায়াত-শিবির ক্যাডাররা রাইফেল কেড়ে হামলা করে ৪ পুলিশকে গুরুতর জখম করল। বিক্ষিপ্ত কিছু সংঘর্ষ, ককটেল বিস্ফোরণ, গাড়ি ভাংচুর
  • সারাদেশে যান চলাচল স্বাভাবিক
  • রাজধানীতে মাঠে নেই বিএনপি নেতারা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিক্ষিপ্ত কিছু সংঘর্ষ, ককটেল বিস্ফোরণ, গাড়ি ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ছাড়া বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের টানা কর্মসূচীর প্রথম দিনের অবরোধ প্রত্যাখ্যাত হয়েছে। এ কর্মসূচী চলাকালে বিএনপির কোন কেন্দ্রীয় নেতাকে মাঠে নামতে দেখা যায়নি। তবে বিচ্ছিন্নভাবে কোন কোন জায়গায় স্বল্প সময়ের জন্য পিকেটাররা ঝটিকা মিছিল করার চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের ধাওয়া করে তাড়িয়ে দেয়। তবে কোথাও কোথাও তারা পুলিশকে পাল্টা ধাওয়া করে। এর মধ্যে রাজশাহীতে অস্ত্র কেড়ে হামলা চালিয়ে চার পুলিশকে জখম করেছে জামায়াত-শিবির। রাজধানীসহ প্রায় সারাদেশেই যানবাহন চলাচলসহ সব কিছুই ছিল স্বাভাবিক। তবে দূরপাল্লার বাস ও পণ্যবাহী যানবাহন চলাচল কিছুটা বিঘিœত হয়েছে। নাশকতামূলক কর্মকা-ে জড়িত থাকার অভিযোগে সারাদেশে বিএনপি জোটের শতাধিক নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রাজধানী থেকে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ অন্তত ২৫ জনকে আটক করা হয়েছে। এর প্রতিবাদে ফখরুলের নিজ জেলা ঠাকুরগাঁওসহ বিভিন্ন জেলায় আজ হরতালের ডাক দেয়া হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাজধানীসহ সারাদেশে বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া ৫ জানুয়ারি বর্তমান সরকারের বিদায় ঘণ্টা বাজানোর আগাম ঘোষণা দেন। তাঁর ঘোষণার জেরধরে সারাদেশে গত রবিবার পবিত্র ঈদ-ই-মিলাদুন্নবীর দিন এবং পরদিন সোমবার দেশব্যাপী ব্যাপক তা-ব চালায় বিএনপি-জামায়াত নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীরা। তারা সারাদেশে বোমাবাজি, যানবাহন ও আওয়ামী লীগ অফিস ভাংচুর এবং অগ্নিসংযোগ ও পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। বিক্ষিপ্ত সংঘষে ৪ জনর মৃত্যু হয়। আহত হয় দেড়শতাধিক। আটক হয় ৫ শতাধিক। এমন ঘটনার পর সোমবার বিকেলে গুলশান কার্যালয় থেকে দেশব্যাপী লাগাতার অবরোধ কর্মসূচী ঘোষণা করেন বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া।

রাজশাহী থেকে স্টাফ রিপোর্টার জানান, দীর্ঘদিন প্রায় গোপনে থাকা জামায়াত-শিবির ক্যাডাররা রাজশাহীতে ফের তা-ব শুরু করেছে। সোমবার রাজশাহীতে তাদের অবস্থান অদৃশ্য থাকলেও মঙ্গলবার প্রকাশ্যে মাঠে নেমে পুলিশের রাইফেল কেড়ে পুলিশের ওপর হামলা চালিয়েছে। এতে পুলিশের ৪ সদস্য গুরুতর জখম হয়েছে। একজনের মাথা ফেটে গেছে। তাদের রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এরা হলেন, এসআই জাহাঙ্গীর, কনস্টেবল শফিকুল ইসলাম, জামাল উদ্দিন ও আমজাদ হোসেন।

এছাড়া রাজশাহী নগরী ও জেলার বিভিন্ন স্থানে আবারও বিএনপির সঙ্গে যুক্ত হয়ে শিবির ক্যাডাররা নাশকতায় লিপ্ত হয়েছে। গোয়েন্দা সংস্থার তথ্যমতে, হরতাল অবরোধের সুযোগে রাজশাহী অঞ্চলে বড় ধরনের নাশকতার ছক করেছে। প্রেক্ষিতে রাজশাহীতে শক্ত অবস্থানে রয়েছে পুলিশ র‌্যাব ও বিজিবি। নগরীতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কঠোর তৎপরতা বৃদ্ধি করা হয়েছে।

মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী কমিশনার (এসি) ইফতে খায়ের আলম বলেন, মঙ্গলবার বেলা ১০টার দিকে নগরীর সপুরা ওয়াসা ভবনের সামনে অতর্কিত ঝটিকা মিছিল বের করে ওই দিক দিয়ে যাওয়া টহলরত পুলিশ পিকাপে হামলা চালায় হরতাল সমর্থকরা। এ সময় তারা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে গাড়ি ভাংচুর করে। ইটের আঘাতে এসআই জাহাঙ্গীর, কনস্টেবল শফিকুল ইসলাম, জামাল উদ্দিন ও আমজাদ হোসেন আহত হন। এক পর্যায়ে পুলিশের রাইফেল কেড়ে হামলা চালিয়ে অস্ত্র নিয়ে পালানোর চেষ্টা করে। তবে তাৎক্ষণিক বিজিবি চলে আসায় তারা অস্ত্র ফেলে পালিয়ে যায়। আহতদের সবাইকে রাজশাহী মেডিক্যল কলেজ হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এসি বলেন, এর আগে সাড়ে ৯টার দিকে হরতাল সমর্থকরা নগরীর সোনাদিঘী মনিচত্বরে রাস্তায় পেট্রোল ঢেলে আগুন জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ করে। এ সময় সেখানে পুলিশ পৌঁছালে হরতাল সমর্থকরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে পালিয়ে যায় বলে জানান তিনি। পরে ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে ছয়জনকে আটক করে পুলিশ।

এদিকে, রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার বানেশ্বর, বেলপুকুর ও শিবপুর এলাকায় অনির্দিষ্টকালের জন্য ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রশাসন। সোমবার রাত ১২টা থেকে পরবর্তি নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত ১৪৪ ধারা জারি করেন পুঠিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) খোন্দকার ফরহাদ আহম্মেদ। বানেশ্বরে পুলিশ-আওয়ামী লীগ সঙ্গে বিএনপি কর্মীদের সংঘর্ষের পর একজন নিহত হওয়ার ঘটনায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে বলে জানান রাজশাহীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাসেদুল হক।

চাঁদপুরে পিকেটারদের ধাওয়া খেয়ে আহত অলোক চক্রবর্তীর মৃত্যু ॥ নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, চাঁদপুর সদর উপজেলার ঘোষেরহাট এলাকায় সোমবার রাতে পিকেটারদের ধাওয়া খেয়ে গুরুতর আহত সিএনজি অটোরিক্সা যাত্রী অলোক চক্রবর্তী (৩৫) মঙ্গলবার ঢাকায় নেয়ার পথে মারা গেছেন। সোমবার রাত ৮টার দিকে ঘোষেরহাট এলাকায় চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক সড়কে হামলার শিকার হন অলোক চক্রবর্তী। তার গ্রামের বাড়ি শাহরাস্তি উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের বড়ুলিয়া এলাকায়। তিনি এলাকায় পূজা-অর্চনায় পুরোহিতের কাজ করতেন। পাশাপাশি ওষুধও বিক্রি করতেন।

শাহরাস্তি থানার ওসি মোঃ মোজাম্মেল হক জানান, গুরুতর আহত অলোক চাঁদপুর সদর হাসপাতালে নেয়ার পর তার অবস্থার অবনতি হয়। রাতেই ঢাকায় নেয়ার পথে মতলব ফেরিঘাটে তাঁর মৃত্যু হয়। চাঁদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ কামরুল ইসলাম জানান, অলোক রাতে অটোরিক্সায় করে শাহরাস্তি থেকে বাবুরহাট এলাকায় যাচ্ছিলেন। পথে পিকেটাররা তার অটোরিক্সার দিকে ইট ছোড়ে। এতে চালক নিয়ন্ত্রণ হারালে বাহনটি উল্টে যায় এবং অলোক গুরুতর আহত হন। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, তাঁর স্ত্রী ও এক কন্যা সন্তান রয়েছে। মাত্র দেড় বছর আগে অলোক চাঁদপুর শহরের বাবুরহাট এলাকায় বিয়ে করেন। তার স্ত্রী চাঁদপুর সরকারী কলেজে বিএ পড়ছেন।

ফখরুলকে আটকের প্রতিবাদে ঠাকুরগাঁওয়ে ২৫ ঘণ্টা হরতাল ॥ নিজস্ব সংবাদদাতা ঠাকুরগাঁও থেকে জানান, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে আটকের প্রতিবাদে তাঁর নিজ জেলা ঠাকুরগাঁওয়ে মঙ্গলবার বিকাল ৫টা থেকে আজ বুধবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ২৫ ঘণ্টার হরতার ডেকেছে জেলা বিএনপি। মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪টায় জেলা বিএনপিরসহ সভাপতি মির্জা ফয়সল আমীন এ ঘোষণা দেন। এ ঘোষণার পর শহরের দোকানপাট এবং সড়কে যানচলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

এর আগে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে আটকের খবর জানাজানি হওয়ার পর তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশ পাহারায় জেলা বিএনপি শহরে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে।

রাজধানীতে অবরোধ চিত্র ॥ মঙ্গলবার রাজধানীতে বেশ ক’টি যানবাহনে অগ্নিসংযোগ করেছে অবরোধকারীরা। এতে এক আনসার সদস্যসহ অন্তত ৫ জন আহত হন। আর গত সোমবার উচ্চ আদালত প্রাঙ্গণে এক বিচারপতির গাড়িতে হামলাসহ রাজধানীতে বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষের ঘটনায় পৃথক পৃথক মামলা হয়েছে।

অবরোধের প্রথম দিন ভোর সাড়ে ৫টার দিকে রাজধানীর কদমতলী থানাধীন লাল মসজিদ এলাকায় যাত্রীবাহী লেগুনা পরিবহনে পেট্রোল বোমা মারে অবরোধকারীরা। লেগুনায় পোশাক পরিহিত থাকা মনোয়ার (৪০) নামে এক আনসার সদস্য আহত হন। তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে থানায় নেয়া হয় বলে জনকণ্ঠকে জানান কদমতলী থানার দায়িত্বরত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক এনামুল হক।

বেলা এগারোটার দিকে পুরনো ঢাকার জনসন রোডে অবরোধকারীরা ৬টি হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটায়। পুলিশ শটগান থেকে রবারবুলেট ছুড়লে বোমাবাজরা পালিয়ে যায়। এছাড়া বিএনপি-জামায়াতপন্থী আইনজীবীরা সকালে সিএমএম আদালত প্রাঙ্গণে অবরোধের সমর্থনে মিছিল করেন। দুপুর একটার দিকে পুরনো ঢাকার তাঁতীবাজারে সাভার পরিবহনের একটি যাত্রাবাহী বাসে পেট্রোল বোমা মেরে আগুন ধরিয়ে দেয় অবরোধকারীরা। তবে কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। দুপুর দুইটার দিকে মতিঝিলে রাজউক ভবনের সামনে ঢাকা মেট্রো-ব-১১-৫৩৭৩ নম্বর একটি সরকারী বিআরটিসি বাসে এবং একই সময়ে ঢাকা মেট্রো-গ-১১-১০৯০ নম্বর একটি প্রাইভেটকারে আগুন ধরিয়ে দেয় অবরোধকারীরা। তবে অগ্নিকা-ের ঘটনায় কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। এসব ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। বিকেল ৩টায় শাহবাগে একটি বাসে আগুন দেয় অবরোধকারীরা।

এদিকে আগের মতো মঙ্গলবারও বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া তাঁর গুলশান কার্যালয়ে কার্যত অবরুদ্ধ ছিলেন। তবে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, খালেদা জিয়া অবরুদ্ধ নন, পুলিশ তার নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছে। খালেদা জিয়ার কার্যালয়ের গেট তালাবদ্ধ করে বিপুলসংখ্যক পুলিশ সেখানে অবস্থান করে। কার্যালয়ের সামনে থেকে বালি ও ইটের ট্রাক আগের দিনই সরিয়ে নেয়া হলেও গতকালও সেখানে ছিল জলকামান। তবে তাঁর কার্যালয় সংলগ্ন ৮৬ নম্বর সড়কে সাধারণ মানুষের চলাচালে কঠোরতা আরোপ করে পুলিশ। পুলিশের অনুমতি ছাড়া কাউকে সেখান দিয়ে চলাচল করতে দেয়া হয়নি। বিকেল ৩টার দিকে তাবলিগ জামায়াতের একটি প্রতিনিধি দল খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাত করতে তাঁর কার্যালয়ে প্রবেশ করলেও তিনি তাঁদের সঙ্গে সাক্ষাত করতে রাজি হননি। কার্যালয়ের লোকেরা তাদের জানিয়েছেন, খালেদা জিয়া অসুস্থ থাকায় তাঁদের সঙ্গে সাক্ষাত করেননি। এ সময় তাঁরা খালেদা জিয়ার কার্যালয়ের লোকদের কাছে জানিয়েছেন, তাবলিগ জামায়াতে অংশ নেয়ার জন্য খালেদা জিয়াকে আমন্ত্রণ করতে এসেছিলেন। পরে খালেদা জিয়ার প্রেসসচিব মারুফ কামাল খান জানান, খালেদা জিয়া অসুস্থ। তাই শারীরিক ও সার্বিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করেই এজতেমায় যোগদানের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন তিনি। তবে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, অবরোধ প্রত্যাহারের দাবি জানাতে তাবলিগ জামায়াতের প্রতিনিধিরা খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাত করতে চেয়েছিলেন। সন্ধ্যায় জাতীয়তাবাদী বুদ্ধিজীবী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি এমাজউদ্দিন আহমেদ খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাত করেন। এ সময় দেশের সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে তারা আলাপ করেন বলে জানা গেছে।

খালেদা জিয়ার গুলশান কার্যালয় সংলগ্ন এলাকায় শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বিরাজ করলেও বিকেল পৌনে ৩টার দিকে ওই কার্যালয়ের পাশ থেকে ৩টি ককটেল উদ্ধার করেছে পুলিশ। এর পর ককটেল ৩টি নিষ্ক্রিয় করে ফেলে তারা। গুলশান কার্যালয়ের মতো নয়াপল্টন বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ও ছিল তালাবদ্ধ।

অবরোধের কারণে ঢাকার মহাখালী, সায়েদাবাদ ও গাবতলী বাস টার্মিনাল থেকে কোন দূরপাল্লার বাস ছেড়ে যায়নি। এমনকি দেশের কোন জেলা থেকে ঢাকায় দূরপাল্লার বাস বা ট্রাক প্রবেশ করেনি। তবে ট্রেন ও লঞ্চ চলাচল ছিল স্বাভাবিক। এদিকে বিকেল চারটার দিকে জাতীয় প্রেসক্লাব থেকে বের হওয়ার পর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে আটক করে ঢাকা মহানগর ডিবি পুলিশ। এর পর জাতীয় প্রেসক্লাব সংলগ্ন কদমফোয়ারা মোড়ে ২টি ককটেল বিস্ফোরণ করে পিকেটাররা।

বেলা আড়াইটায় আজিমপুরে ছাত্র শিবির একটি লাঠি মিছিল বের করে কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ ও সিএনজি অটোরিকশা ভাংচুর করে। এর আগে দুপুরে খিলগাঁওয়ে জামায়াত-শিবির একটি মিছিল বের করে রাস্তায় আগুন দেয়। একই সময় শাহজাদপুরে পুলিশের সঙ্গে শিবির কর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। শিবির কর্মীরা সেখানে কয়েকটি গাড়ি ভাংচুর করে। সকাল ৮টায় পল্লবীতে রাস্তায় আগুন ধরিয়ে বিক্ষোভ করে জামায়াত-শিবির।

এদিকে গত সোমবার সুপ্রীমকোর্টের বিচারপতি ফরিদ আহমেদের গাড়ি ভাংচুরের ঘটনায় বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা এ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেনসহ ৮ জনকে এজাহারনামীয় এবং অজ্ঞাত ২ থেকে আড়াইশ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। মামলায় বিএনপি-জামায়াত সমর্থক দুই শতাধিক আইনজীবীর বিরুদ্ধে বিচারপতিকে হত্যাচেষ্টার উদ্দেশে তাঁর গাড়ি ভাংচুর ও পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগ আনা হয়েছে। এজাহারনামীয় অন্যান্য আসামিদের মধ্যে রয়েছেন ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, অ্যাডভোকেট জয়নাল আবেদিন, সানাউল্লাহ মিয়া, তাজুল ইসলাম, ওসমান, ফাহিমা নাসরিন মুন্নী ও রিমা আক্তার।

গত সোমবার বিচারপতির গাড়িতে লাঠিসোঁটা নিয়ে হামলা চালায় বিএনপি-জামায়াতপন্থী আইনজীবী ও আইনজীবীর বেশে থাকা বহিরাগত সন্ত্রাসীরা। হামলাকারীরা গাড়ি ভাংচুরে বাঁধা দেয়া পুলিশ কনস্টেবল মোস্তাফিজুর রহমান ও হাই কোর্টের দ্বাররক্ষী আলমগীরকে পিটিয়ে মারাত্মক আহত করে। বাধা দিলে পুলিশের ওপর হামলা চালায়। এ ঘটনায় সোমবার রাতে বাবুপুরা পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক মাহবুবুল আলম বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে শাহবাগ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম জনকণ্ঠকে জানান।

এদিকে বেলা ২টায় সুপ্রীমকোর্ট আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে অবিলম্বে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেয়ার দাবি জানিয়েছেন তার উপদেষ্টা ও সুপ্রীমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি এ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন।

নোয়াখালীতে ১৫টি সিএনজি ভাংচুর : নিজস্ব সংবাদদাতা, নোয়াখালী ॥ নোয়াখালীর বিভিন্ন স্থানে একটি বাস ভাংচুর এবং অন্তত ১৫টি সিএনজি অটোরিকশা ভাংচুর এবং একটিতে আগুন দেয়া হয়। পুলিশ বিএনপি-জামায়াতের ১৬ জনকে আটক করেছে।

কুমিল্লায় পুলিশের সঙ্গে অবরোধকারীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া : নিজস্ব সংবাদদাতা ॥ কুমিল্লার আলেখারচর এলাকায় পুলিশের সঙ্গে বিএনপি-জামায়াত-শিবিরের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ রাবার বুলেট, টিয়ারশেল ছুড়ে। এছাড়া জেলার দাউদকান্দির ইলিয়টগঞ্জ এলাকায় অবরোধকারীরা মহাসড়কে যাতায়াতের সময় ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে বেশ কয়েকটি মালবাহী ট্রাক ও ১টি সিএনজি চালিত অটোরিকশা ভাংচুর করে। একটিতে আগুন দেয়া হয়।

কচুয়ায় পুলিশের ওপর হামলা : নিজস্ব সংবাদদাতা, কচুয়া ॥ কচুয়া উপজেলার জগতপুরে কুমিল্লা-চাঁদপুর আঞ্চলিক সড়কের উপর ব্যারিকেড দিয়ে গাড়ি ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ ও পুলিশের ওপর হামলার ঘটানায় কচুয়া থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মুন্সীগঞ্জে অবরোধ বিরোধী লাঠি মিছিল : স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপির ডাকা অবরোধের প্রতিবাদে লাঠি মিছিল ও অবস্থান কর্মসূচী পালন করছে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার আওয়ামী প্রজন্মলীগ। বিকেলে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বালুয়াকান্দি এলাকা থেকে মিছিলটি মহাসড়কের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট প্রদক্ষিণ করে। এরপর মহাসড়কের পাশে বালুয়াকান্দি, বাউশিয়া, ভবেরচর পয়েন্টে অবস্থান নেয়।

গাইবান্ধায় আজ হরতাল : নিজস্ব সংবাদদাতা ॥ মির্জা ফখরুলকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জেলা বিএনপি আজ বুধবার গাইবান্ধা জেলায় সকাল-সন্ধ্যা হরতাল আহ্বান করেছে। সংগঠনের জেলা সভাপতি আনিসুজ্জামান খান বাবু জানান, আন্দোলন চলাকালে বিএনপি নেতাকর্মীদের অন্যায়ভাবে গ্রেফতার ও নির্যাতন এবং সর্বশেষ কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবকে গ্রেফতারের মধ্য দিয়ে সরকার দেশকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা চালাচ্ছেন। তিনি এর তীব্র নিন্দা এবং অবিলম্বে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের মুক্তির দাবি জানান।

চট্টগ্রামে বিএনপির ২৯৭ জনকে জেল হাজতে প্রেরণ ॥ চট্টগ্রাম অফিস জানায়, চট্টগ্রামে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের কালো পতাকার সমাবেশ থেকে পুলিশের ওপর হামলা, যানবাহন ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় গ্রেফতার ২৯৭ জনকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

প্রকাশিত : ৭ জানুয়ারী ২০১৫

০৭/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: