রৌদ্রজ্জ্বল, তাপমাত্রা ২৩.৯ °C
 
৯ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

বৈশাখ এলেই

প্রকাশিত : ১৪ এপ্রিল ২০১৫
  • বোরহানউদ্দিন খান জাহাঙ্গীর

বৈশাখ এলেই আমার এই গানটির কথা মনে পড়ে :

আমি মানুষের ভাই স্পার্টাকাস

আমরা পুবে পশ্চিমে

আকাশে বিদ্যুতে

উত্তরে দক্ষিণে হাসিতে

নদীর কলতানে আমরা

সাগরের গর্জনে চলি অবিরাম

অগ্নি আখরে লিখি মোদেরই নাম ॥

আমরা দেশে দেশে যুগে যুগে

কালে কালে অন্যায়ের আঘাত হানি

আমরা যে জীবন মানি

আমরা যে পেয়েছি রক্তদ্বীপের নিশানা

আমরা মেনেছি সূর্যের ঠিকানা

আমরা চলি অবিরাম

অগ্নি আখরে লিখি মোদের নাম ॥

দুই

এক সময় ঢাকা গণসঙ্গীতের শহর ছিল। প্রতিবাদের গান, প্রতিরোধের গান রাস্তায় রাস্তায়, ময়দানে ময়দানে উচ্চকিত হতো। এই রাষ্ট্রটা ভাঙতে হবে, রাষ্ট্রমাত্রই খারাপ : এই গান যারা করতে পারতেন আর যারা আমার মতো গান করতে পারতেন না, সবারই কণ্ঠে পারাবতের মতো গুন গুন করে ফিরত। চোখের সামনে দেখতে পেতাম এই রাষ্ট্রটা ভেঙ্গে যাচ্ছে, আর তৈরি হচ্ছে নতুন রাষ্ট্র, আমরা পারাবতের মতো রাস্তায় রাস্তায়, মহল্লায় মহল্লায় এই গানের কথা ফেরি করে বেড়াতাম। বৈশাখ আমার হাতে একটা গিটার তুলে দিত, যে আমি গান গাইতে জানি না। বৈশাখ মানে সাহস, বৈশাখ মানে পারাবত, বৈশাখ মানে একসঙ্গে নাচনা, এই শহরে। একটা যুগের বছর সামনে, একটা যুগের গল্প সামনে, এই দুঃখী শহরে একটা যুগ দু’জনে মিলে বুনে যাই স্পার্টাকাসদের কথা ভেবে।

প্রতিরোধের গান এবং প্রতিবাদের গান আমাদের বেঁচে থাকার ইতিহাসের অংশ হয়ে উঠেছে। ইতিহাসের ভিশনে পরিণত হয়েছে। ইতিহাসের অংশ হওয়ার দরুন ও ইতিহাসের ভিশন হওয়ার দরুন, সাধারণ মানুষ, খেটে খাওয়া মানুষ, লড়াকু মানুষ। এখানেই লড়াকু মানুষ হিসেবে ইতিহাসের বিষয় হিসেবে দেখা দিয়েছে। এখানে বেঁচে থাকার মুক্তাঞ্চল। মানুষ ভিজে বারুদ না, তাকে ভিজে বারুদ করে রাখা যায় না। তার মধ্যে রয়েছে বিশ্লেষণের সম্ভাবনা। এই সম্ভাবনাই তার মধ্যে মুক্তাঞ্চলের পরিসর বাড়িয়ে তোলে। অতীতের মুক্তাঞ্চলের সঙ্গে যুক্ত হয় বর্তমানের মুক্তাঞ্চল। জীবনযাপনের অর্থ খুঁজে বের করি অন্তত থেকে, বর্তমান থেকে, ভবিষ্যত থেকে।

তিন

প্রতিবাদের গান, প্রতিরোধের গান হচ্ছে একটি এনালিটিক ক্যাটাগরি। এই ক্যাটাগরির ভিত্তি দুটি প্রস্তাবনার মধ্যে বিস্তৃত। প্রতিবাদ হচ্ছে সমাজ সম্পর্ক, যে সম্পর্কের ভিত্তি বড়লোক গরিব লোকের মধ্যেকার ভিন্নতা। প্রতিরোধ হচ্ছে ক্ষমতা সম্পর্কের গুরুত্ব স্পষ্ট করা। দ্বিতীয় প্রস্তাবনা থেকে অন্যান্য ক্ষমতা সম্পর্কের ইতিহাসগত দিক জীবনযাপনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে ছড়িয়ে যায়। আমি এসব ভাবি বৈশাখের প্রথম দিনে। মানুষ হিসেবে, আমাদের ক্ষমতা নেই বলে, বহু অপমান সহ্য করতে হয়। অপমানিতর সঙ্গে একাত্ম হওয়ার একটা ধরন হচ্ছে প্রতিরোধের গান, প্রতিবাদের গান শোনা, গান করা। প্রতিরোধের গান, প্রতিবাদের গানের মধ্যে আছে নৈতিকতার দিক। অন্যদিকে আছে বীরত্বের দিক। আমি ভাবি, জীবনের কতটুকু অংশ এসব গানে উদ্ভাসিত হয়। অনেক দূর, অনেক দূর।

চার

এসব গান স্বৈরাচারবিরোধী, একই সঙ্গে রুচির দিক থেকে আধুনিক। সমাজের বাণিজ্যিকীকরণের বিরুদ্ধে এসব গান দাঁড়িয়ে থাকে। সেজন্য কি বলা যায় না এ ধরনের গান হচ্ছে ডিসেন্ট। ডিসেন্ট হচ্ছে স্বৈরতন্ত্রের বিরুদ্ধে, কুসংস্কারের বিরুদ্ধে, ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধে। ধর্ম নিয়ে যারা মাতামাতি করছে তারা অনেক আগেই সমাজ পরিবর্তন বাদ দিয়েছে। এসব গান বাংলাদেশের রাজনৈতিক ও যুক্তিবাদী ঐতিহ্য থেকে উৎসারিত। এই ঐতিহ্য আমরা যেন কখনও ভুলে না যাই।

প্রকাশিত : ১৪ এপ্রিল ২০১৫

১৪/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: