আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

প্রযত্নে বৃষ্টি (খসড়া চিঠি)

প্রকাশিত : ৬ মার্চ ২০১৫

কবিতার একটা বিষয়বস্তু মাথার মধ্যে ঘোরাফেরা করলেও তা অন্যান্য অনুষঙ্গের ভিড়ে হারিয়ে গেছে, কবিতা হয়ে উঠেনি। আবার হাতের কাছে কাগজ-কলম ছিল না বলে তৎক্ষণাৎ লিখে না ফেলায় কবিতা লেখা হয়ে উঠেনি আর। ভাবনাগুলো হারিয়ে গেছে কালের আবর্তে। নিজের কবিতা জন্ম ও মৃত্যু সম্পর্কে এমনটাই অনুভূতি প্রকাশ করেন কবি সাইফুল ইসলাম চৌধুরী। তাঁর প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ ‘বৃষ্টিকে লেখা চিঠির খসড়া’। গ্রন্থটিতে মোট ৫৭টি নানা স্বাদের কবিতা সঙ্কলিত হয়েছে। বইটি প্রকাশের বিষয়ে কবি বলেন, ‘কবিতার বই বের হবে, কিন্তু নিজের মধ্যে দ্বিধা তৈরি হলো কী ধরনের বা কোন্ কবিতা প্রকাশিতব্য বইতে স্থান পাবে? স্রষ্টা তাঁর নিজের সৃষ্টির প্রতি ভিন্ন ভিন্ন আচরণ করতে পারে না। লেখক হিসেবে আমিও পারিনি। তাই সংগ্রহে থাকা কবিতাগুলো রচনার ক্রমানুসারে প্রকাশিত হবে এমন সিদ্ধান্তই নিয়েছি, যা ভবিষ্যতেও চলমান থাকবে। বিদগ্ধ পাঠককুলই সিদ্ধান্ত নেবেন, কোন্টা কবিতা হলো আর কোন্টা হলো না।’ স্বাধীনতার অপরার্থ, পুরনো প্রেমিকের সাক্ষাৎ, হরতাল ও আমরা, একুশের মানে, বৃষ্টিকে লেখা চিঠির খড়সা, ইচ্ছে (১), আমি কাঁদি বৃষ্টি বৃষ্টি, দেয়ালের কথা, স্বৈরশাসকের বয়ান, অনুভূতির প্রকারভেদ, ইচ্ছে (২), এপিটাফ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, ভালবাসার পরিধি, তোমার যাওয়ার অনুভূতি, জন্মদিনের ভাবনা (১), মুঠোফোনের ঘণ্টাধ্বনি, অধরা, ক্ষমতাসীনের দান, অনেক দিনে অদেখাতে, তোমার ভাবনা, মুক্তির ধারা, জিজ্ঞাসা, আমার চাওয়া, পথচলায়, মায়ের চাওয়া, তোমায় নিয়ে স্বপ্ন দেখা, তোমার রূপ, সম্পর্কের সূত্রায়ণ, তোমায় দেখা, প্রশ্ন (১), মুঠোফোনের শত্রু আমার, মুঠোফোনের বন্ধু আমার, ইচ্ছে আমার ইচ্ছে, কবির হৃদয়, প্রেরণা, প্রস্তাবনা, সত্য-মিথ্যার বয়ান, নানা রূপের তুমি, অফিস যাত্রার দৃশ্যকাব্য, ভালবাসা নিয়ে, ৭ম-এর বন্ধুরা, মা ও খোকা, তোমার বন্ধুরা, তোমার অসুস্থতা, সময়ের ফের, জন্মদিনের ভাবনা (২), জাহাজে ভ্রমণের খেরোখাতা, উপলব্ধি, প্রজাপতি ও তুমি, তোমার অবস্থান, প্রকৃতি ও তুমি, আমার অপেক্ষা, প্রশ্ন (২), ছেলেটি যেন (সমাপ্তি অন্য রকম-১), ছেলেটি যেন (সমাপ্তি অন্য রকম-২), তোমার অদেখায়, প্রশ্ন (৩) ইত্যাদি শিরোনামের কবিতাগুলোতে কবির ব্যক্তি জীবনের সুখ-দুঃখ, জীবনবাস্তবতা, সমাজবাস্তবতা, আর্থসামাজিক অবস্থা কথা ফুটে উঠেছে। কবি তাঁর এ কাব্যগ্রন্থের প্রথম কবিতাটি লেখেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নকালে। ‘স্বাধীনতার অপরার্থ’-শিরোনামের এ কবিতায় দেখা যায় তৎকালীন রাষ্ট্রব্যবস্থার খ-িত চিত্রÑ আজ মনে পড়ে/গেল হরতালে/হাঁটতে হাঁটতে দেখি/শূন্য রাজপথে, আনমনে বসে/একটি ছেলে, ইট ঘষে ঘষে/ স্বদেশ-এর পতাকা আঁকে।/ অথচ জানে না সে/রক্তে আঁকা পতাকাটি/আজ অসহায়,/ উদ্যত অস্ত্রের মুখে/মুখ থুবড়ে আছে/রাজনীতির পরাধীন হয়ে।/ভাবি, এই ছেলেটার মতো/ কেউ কেউ, বড় হয়ে/ রক্তে কেনা স্বাধীনতার অর্থ/খুঁজে নেবে, আবার রক্ত দিয়ে।

গদ্য আচার্য

প্রকাশিত : ৬ মার্চ ২০১৫

০৬/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: