মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
৯ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

নন্দিত ডিজাইনার টমি হিল ফিগার

প্রকাশিত : ৯ জানুয়ারী ২০১৫

ছোটবেলা থেকেই বেশ ডানপিটে। কোন কাজেই যেন বিরাম নেই। এই দৌড়ে গাছে উঠছে তো পরক্ষণেই খেলার মাঠে। পরিবারের নিয়ন্ত্রণের বাইরে। তাই তারা হাল ছেড়ে দিয়েছিলেন, ভেবেছিলেন একে দিয়ে কিছু হবে না। কিন্তু কে জানত ডানপিটে এই ছেলেটিই একদিন হয়ে উঠবে বিশ্বখ্যাত ডিজাইনার। বিশ্বের তাবৎ ফ্যাশন ডিজাইনার থেকে একটু আলাদা বলা যেতে পাওে জনপ্রিয় ফ্যাশন ডিজাইনার টমি হিলফিগারকে। জন্ম ১৯৫১ সালের ২৪ মার্চ নিউইয়র্কের এলমাইরা শহরে। আট ভাইবোনের মধ্যে তিনি ছিলেন দ্বিতীয়। বাবা-মা’র ইচ্ছা ছিল ছেলেকে ইঞ্জিনিয়ার বানানোর। সে কারণে ফ্রি একাডেমিক হাই স্কুলের মতো নামী-দামী স্কুলে লেখাপড়া করান। কিন্তু গঁৎবাধা পড়ালেখায় মন বসাতে পারছিলেন না টমি। এটা সেটা করার প্রতিই মন ছিল তার। যে কারণে ১৮ বছর বয়সেই নেমে পড়েন কাজের সন্ধানে। পেয়েও যান একটা চাকরি। এলমাইরা শহরের একটি শপিংমলের পারচেজার হিসেবে। নিউইয়র্ক শহরের বিভিন্ন জায়গা থেকে জিন্স এবং বেলবেটম প্যান্ট পাইকারি দরে কিনে এনে সাজাতেন সেই দোকান। এভাবে বেশ কিছুদিন চাকরি করার পর সিদ্ধান্ত নেন নিজের একটা শো-রুম দেয়ার। সে কারণে এলমাইরার ডাউন টাউনে পিপলস্ প্লেস নামে শোরুম খোলেন। তবে শো-রুমটি আশানুরূপ ব্যবসা করতে পারেনি। সাত বছর টেনেটুনে ব্যবসা করে অনেক দেনার দায়ে জড়িয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে তা দেউলিয়া ঘোষণা করা হয়। ব্যবসায়িকভাবে সফল হতে না পারলেও এই ক’বছরে তিনি কাপড় সম্বন্ধে বেশ অভিজ্ঞতা লাভ করেন। বিশেষ করে কোন কাপড়ের সঙ্গে কোন ডিজাইনটি মানানসই তা আয়ত্ত করে ফেলেন। এ কারণে ব্যবসায়িক ভরাডুবি থেকে উঠে দাঁড়ানোর অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করেন ডিজানিংকে। সুযোগও এসে যায় হাতের কাছে। বিখ্যাত ফ্যাশন হাউস কেলভিন ক্লেইন এ এ্যাসিসট্যান্স ডিজাইনার হিসেবে যোগ দেন। এরপর আর তাকে পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। সেখানে তিনি তার যোগ্যতার প্রমাণ দিতে সক্ষম হন। তবে সেখানেও তার মন সায় দিচ্ছিল না। নিজ থেকে কিছু করার তাগিদ বোধ করছিলেন। এরই মধ্যে বেশ কিছু প্রোডাক্ট তার ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করে।

ফ্যাশন ডেস্ক

প্রকাশিত : ৯ জানুয়ারী ২০১৫

০৯/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: