ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ২২ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১

মঙ্গলবার সকালে লড়াই দুদলের

এবার আফগানদের বিরুদ্ধে লড়াই টাইগারদের

মো. মামুন রশীদ

প্রকাশিত: ২৩:২৯, ২৩ জুন ২০২৪

এবার আফগানদের বিরুদ্ধে লড়াই টাইগারদের

সুপার এইটে টানা দুই ম্যাচে অসহায় হারের যন্ত্রণা সঙ্গী করে মঙ্গলবার সকালে দুর্বার আফগানিস্তানের মুখোমুখি হওয়ার অপেক্ষায় বাংলাদেশ

ওয়ানডে বিশ্বকাপে বাংলাদেশের কাছে হেরে যাত্রা শুরু করে আফগানিস্তান। তারা ইংল্যান্ড, পাকিস্তান শ্রীলঙ্কার মতো বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের নেদারল্যান্ডসকে পরের ম্যাচগুলোয় হারিয়েছে। পরে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুয়ারে গিয়েও হাত ফসকে বেরিয়ে গেছে জয় এবং সেমিফাইনালে ওঠার স্বপ্ন ম্লান হয়েছে। এবার সেই অস্ট্রেলিয়াকে টি২০ বিশ্বকাপ মঞ্চে হারিয়ে সেমির স্বপ্ন রঙিন করেছে আফগানরা। বাংলাদেশের বিপক্ষে জিতলেই পূরণ হতে পারে স্বপ্নটা। ম্যাচটি সেন্ট ভিনসেন্টের কিংসটাউনে আরনস ভেল গ্রাউন্ডে মঙ্গলবার সকাল ৬টা ৩০ মিনিটে মাঠে গড়াবে। গত বছর ওয়ানডে বিশ^কাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশের কাছে হেরে যাওয়াটা পরবর্তীতে আক্ষেপে পরিণত হয়েছে আফগানিস্তানের জন্য। এবার সুপার এইটের শেষ ম্যাচে বাংলাদেশকে হারিয়ে আক্ষেপটা ঘোচাতে চায় তারা। আর ভারত অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরে যাওয়ার পর এখন আফগানদের বিপক্ষে মান বাঁচানোর লড়াই হয়ে গেছে বাংলাদেশের জন্য।

ক্ষীণ যে আশা এখনো আছে তার জন্য এই ম্যাচটি জিততেই হবে।আজ রাতেই ভারত-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচ। এই ম্যাচটির ফল সুপার এইট গ্রুপ- এর অনেক কিছু নির্ধারণ করে দেবে। অস্ট্রেলিয়া জিতে গেলে বাংলাদেশের বিদায় নিশ্চিত হয়ে যাবে। ভারত জিতলে অস্ট্রেলিয়া, আফগানিস্তান বাংলাদেশের সুযোগ উন্মুক্ত থাকবে। তখন বাংলাদেশ-আফগানিস্তান ম্যাচের ওপর নির্ভর করবে সবকিছু। বাংলাদেশ জিতে গেলে অস্ট্রেলিয়া আফগানিস্তানের মতোই পয়েন্ট হয়ে যাবে ২। সেক্ষেত্রে নেট রানরেটের হিসেবে যারা এগিয়ে থাকবে তারাই সেমিতে উঠবে। অর্থাৎ গুরুত্বপূর্ণ একটি ম্যাচ হতে চলেছে সেটি। যদিও গুরুত্বটা টিকে থাকবে আজ রাতে ভারত-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচ পর্যন্তই। ম্যাচটি পরিত্যক্ত হলেও বাংলাদেশের বিদায় নিশ্চিত হবে। আর আফগানিস্তানের সুযোগ থাকবে ঠিকই, তখন তাদের অবশ্যই জিততে হবে। ভারতের বিপক্ষেও অস্ট্রেলিয়া জিতে গেলে আফগানিস্তানকে জিততে হবে ভালো ব্যবধানে। ইতোমধ্যে আফগানরা সেন্ট ভিনসেন্টের উইকেটে নিজেদের জন্য মানানসই পরিবেশ পেয়েছে। উইকেটটাও তাদের জন্য স্বাচ্ছন্দ্যের তা প্রমাণ হয়ে গেছে। কারণ অস্ট্রেলিয়ার মতো হট ফেভারিটরা পরাস্ত হয়েছে আফগান বোলিংয়ের সামনে ১৪৯ রান তাড়া করতে নেমে। এই মাঠেই দুর্বল নেপালের বিপক্ষে দক্ষিণ আফ্রিকা ১১৪ রান করে মাত্র রানের কষ্টার্জিত জয় পেয়েছে। এমনকি নেপালের বিপক্ষে ১০৬ রানে গুটিয়ে গিয়েও বাংলাদেশ ২১ রানে জিতেছে। এসবই প্রমাণ করছে সেন্ট ভিনসেন্টের উইকেটে অনেক রহস্য লুকিয়ে আছে। সেই রহস্যভেদ মঙ্গলবার সকালে যে দলটি করতে পারবে তারাই বিজয়ী হবে।

এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপ মঞ্চে কখনোই বাংলাদেশকে হারাতে পারেনি আফগানরা। সেটি কোনো ফরম্যাটের বিশ্ব আসরেই। কিন্তু এখন পর্যন্ত হওয়া ১১ ম্যাচের মধ্যে আফগানিস্তানই বার জিতেছে, বাংলাদেশ জিতেছে বার। সর্বশেষ গত বছর জুলাইয়ে বাংলাদেশের মাটিতে এসে দুটিতেই হেরে গেছে তারা। টি২০ বিশ্বকাপে ২০১৪ সালেই শুধু দুই দলের সাক্ষাৎ হয়েছে, সেই ম্যাচে বাংলাদেশ উইকেটের বিশাল জয় পায়। এবার সেই পরাজয়ের প্রতিশোধ নেওয়ার মতো মোক্ষম পরিবেশ, পরিস্থিতি পেয়ে গেছে আফগানরা। এখন ফর্মের তুঙ্গে আছে দলটি। পেস বোলিং, স্পিনারদের দাপটে প্রতিপক্ষ দলগুলোর জন্য ভয়ংকর হয়ে উঠেছে তারা। সে কারণেই নিজেদের জন্য সুবিধাজনক উইকেট, পরিবেশ পেয়ে জায়ান্ট কিলার হয়ে গেছে আফগানরা। গ্রুপ পর্বে নিউজিল্যান্ডকে বিধ্বস্ত করে এবং সেই হারের কারণে আর সুপার এইটেই উঠতে পারেনি কিউইরা। এখন অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে তাদের সুপার এইট থেকেই বিদায় ঘটানোর পরিস্থিতি তৈরি করেছে। সবমিলিয়ে বাংলাদেশের চেয়ে শক্তিমত্তায়, পরিসংখ্যান বর্তমান পরিস্থিতিতে অনেক এগিয়ে আছে আফগানিস্তান। টি২০ খেলার যে মনোভাব বাংলাদেশী ব্যাটারদের এবং তাদের ধারাবাহিক ব্যর্থতা রশিদ খান, মোহাম্মদ নবী, নূর আহমেদ, ফজল হক ফারুকী, গুলবাদিন নাইব নাভিন উল হকের বোলিংয়ের সামনে আরও চ্যালেঞ্জের মুখেই পড়বে। কারণ আফগানদের বোলিং আক্রমণ বেশ বৈচিত্র্যময়।

বাংলাদেশের একাদশে দুয়েকটি পরিবর্তন দেখা যেতে পারে এই ম্যাচে। জাকের আলীর জায়গায় সৌম্য সরকার এবং মুস্তাফিজুর রহমানের পরিবর্তে শরিফুল ইসলাম আসতে পারেন। তাসকিন আহমেদকে ফেরাতে হলে অবশ্য সৌম্যও জায়গা পাবেন না। তবে জাকের এই ম্যাচের একাদশ থেকে ছিটকে পড়ছেন সেটি প্রায় নিশ্চিতভাবেই বলা যায়। সুপার এইট পর্বে দুই ম্যাচেই শক্তিশালী প্রতিপক্ষের সামনে সহজ আত্মসমর্পণ করেছে বাংলাদেশ দল। অস্ট্রেলিয়ার পর ভারতের কাছে হেরেছে বড় ব্যবধানে। সেমিতে যাওয়ার যে জটিল সমীকরণ রয়েছে সেই পরিস্থিতি পর্যন্ত হিসেবে গেলেও বাংলাদেশকে নেট রানরেট বাড়াতে আফগানদের বিপক্ষে বড় ব্যবধানে জিততে হবে। সেটি করার জন্য ব্যাটিং পারফর্ম্যান্সে উন্নতির বিকল্প নেই। ছাড়া বোলিংয়ে আফগান দুই ওপেনার রহমানউল্লাহ গুরবাজ ইব্রাহিম জাদরানকে দ্রুত ফিরিয়ে দিতে পারলে অনেকটাই সুবিধাজনক পরিস্থিতি তৈরি করা সম্ভব হবে। আর বাংলাদেশের টপঅর্ডারদের ভালো কিছু করতে হবে। সেন্ট ভিনসেন্টে দুই টি২০ খেলে এখনো হারেনি বাংলাদেশ, বিদেশের মাটিতে প্রথমবার টেস্টও জিতেছে এই ভেন্যুতে। তাই নিজেদের জন্য পয়মন্ত এই মাঠে জয় দিয়েই এবারের বিশ্বকাপ শেষ করতে চায় বাংলাদেশ। নয়তো আফগানদের কাছে হারলে মান রক্ষা করাটাও কঠিন হয়ে পড়বে।

×