ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ০৪ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০

নজরদারি বাড়ানো হয়েছে

জুলাইয়ের বেতন ও ঈদ বোনাস দেয়ার প্রস্তুতি গার্মেন্টসে

প্রকাশিত: ১২:২৬, ২৩ জুলাই ২০১৯

  জুলাইয়ের বেতন ও ঈদ বোনাস দেয়ার প্রস্তুতি গার্মেন্টসে

এম শাহজাহান ॥ কোরবানির ছুটির আগে বেতন-বোনাস পরিশোধে প্রায় সাড়ে ৪শ’ পোশাক কারখানার ওপর নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। শিল্পাঞ্চলগুলোতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় সব ধরনের উদ্যোগ নিয়েছে পুলিশ প্রশাসন। এছাড়া বেতন-বোনাস ইস্যুতে নামসর্বস্ব শ্রমিক সংগঠনগুলোও যাতে উস্কানি ও বিভ্রান্তি ছড়িয়ে অস্থিরতার সুযোগ না নেয় সে বিষয়টিও মনিটরিং করছে সরকারী সংস্থাগুলো। কোরবানি সামনে রেখে চলতি জুলাই মাসের বেতন ও ঈদ বোনাস পরিশোধের প্রস্তুতি নিচ্ছে গার্মেন্টসগুলো। তবে বিভিন্ন সঙ্কটের মুখে অনেক কারখানায় আর্থিক সঙ্কট তৈরি হয়েছে। এসব কারখানার পক্ষ থেকে বিভিন্ন ব্যাংকে নগদ টাকার জন্য দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন উদ্যোক্তারা। সংশ্লিষ্টরা বলছে, বেশকিছু কারখানায় সঙ্কট রয়েছে এটা ঠিক, তবে বেতন-ভাতা পরিশোধ হবে ঈদের আগেই। জানা গেছে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় সরকারের বিভিন্ন সংস্থার পাশাপাশি পোশাক খাতের উদ্যোক্তাদের সংগঠন বিজিএমইএ থেকেও এ বিষয়ে নিয়মিত কারখানা মনিটরিং করা হচ্ছে। যেসব কারখানায় আর্থিক সমস্যা রয়েছে তাদের দ্রুত সঙ্কট কাটিয়ে ঈদের ছুটির আগে বেতন-ভাতা প্রদানের জন্য তাগিদ দিচ্ছে মনিটরিং টিম। এছাড়া নামসর্বস্ব শ্রমিক সংগঠনগুলোর দিকে নজরদারি বাড়ানো হবে। কোরবানি ঈদের ছুটির আগে বেতন-ভাতা পরিশোধে মালিকদের নির্দেশ দিয়েছে এ সংক্রান্ত ক্রাইসিস ম্যানেজমেন্ট কোর কমিটি। একই সঙ্গে ঈদের আগে শিল্প এলাকায় চলমান পরিস্থিতি নজরদারিতে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদফতর এবং শ্রম অধিদফতরের যৌথ উদ্যোগে মনিটরিং সেল গঠন করেছে মন্ত্রণালয়। এদিকে, আগামী ১২ আগসট দেশে কোরবানির সম্ভাব্য সময় নির্ধারণ করা হয়েছে (চাঁদ দেখার ওপর নির্ভর করে)। ধর্মীয় এই অনুষ্ঠান উদ্যাপনে ওই সময় দেশে তিনদিনের সরকারী ছুটি ঘোষণা করবে সরকার। গার্মেন্টস কর্মীরা ঈদের ছুটি উদ্যাপনে বাড়ি যাবেন। এ কারণে রাস্তায় যানজট ও ট্রাফিক সমস্যা নিরসনেও সচেতন থাকার জন্য মালিকদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এ লক্ষ্যে গার্মেন্টস শ্রমিকদের এলাকাভিত্তিক পর্যায়ক্রমে ছুটি দেয়ার নির্দেশ দিয়েছে ক্রাইসিস ম্যানেজমেন্ট কোর কমিটি। সম্প্রতি এই কমিটির ৪৩তম সভায় বেশকিছু নির্দেশ দেয়া হয়। শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মন্নুজান সুফিয়ানের সভাপতিত্বে ও বৈঠকে মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব কে এম আলী আজম, বিজিএমইএ ও বিটিএমইএ’র প্রতিনিধি ও শিল্প পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শক আবদুস সালাম ও শ্রমিক সংগঠনের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। এ প্রসঙ্গে শ্রম সচিব এম আলী আজম জনকণ্ঠকে বলেন, ঈদের আগে দেশের পোশাক খাতের পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকবে বলে আশা করছি। ইতোমধ্যে কোরবানির ছুটির আগে বেতনভাতা পরিশোধের জন্য মালিকদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, দেশের ৪০-৪৫ লাখ পোশাক শ্রমিক ওই সময় ঈদ করতে বাড়িতে যাবেন। তাদের যাত্রা নির্বিঘ্ন ও রাস্তার জট এড়াতে কারখানায় এলাকাভিত্তিক পর্যায়ক্রমে ছুটি দেয়ার জন্য বলা হয়েছে। শুধু তাই নয়, শিল্পাঞ্চলগুলোতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হবে। কেউ কোন ধরনের উস্কানি কিংবা অন্য কোন অপকর্ম করার চেষ্টা করলে তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে সরকার। তবে বেতনভাতা পরিশোধে মালিকদেরও আন্তরিক হওয়ার জন্য বলা হয়েছে। এদিকে, পোশাক শ্রমিকদের বেতন ও বোনাস ঈদের আগে প্রদানের জন্য শ্রমিক সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে দাবিও জানানো হয়। তারা বলছে, মানবিক দিক বিবেচনা করে হলেও ঈদের আগে পোশাক শ্রমিকদের বেতন ও বোনাস পরিশোধ করা হোক।
×