ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১

স্কুলে ঢুকে ৫ শিক্ষার্থীকে কোপালেন নারী

নিজস্ব সংবাদদাতা, গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ১৯:১০, ১১ জুন ২০২৪

স্কুলে ঢুকে ৫ শিক্ষার্থীকে কোপালেন নারী

আহত শিক্ষার্থীরা।

গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার জামালপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শ্রেণি কক্ষে ঢুকে শিক্ষার্থীদের ধারালো ছুরি দিয়ে এলোপাথারী ছুরিকাঘাত করার ঘটনা ঘটেছে। এতে ৫ জন শিক্ষার্থী আহত হয়। পরে শিক্ষক-কর্মচারীরা ওই নারীকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। এতে আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়েছে শিক্ষর্থীরা।  

মঙ্গলবার (১১ জুন) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে জান্নাতী আকতার (২১) নামে বহিরাগত এক নারী হঠাৎ করে ওই বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির কক্ষে ঢুকে এই ঘটনা ঘটায়। 

আহতরা হলো- উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের এনায়েতপুর গ্রামের রেজানুর রহমানের মেয়ে সেতু খাতুন (১৩), একই ইউনিয়নের চিকনী গ্রামের মিলন মিয়ার মেয়ে মিতু খাতুন (১৪) ও একই ইউনিয়নের আরজী জামালপুর গ্রামের গোলাম মোস্তফার মেয়ে রাবেয়া খাতুনকে (১৩) সাদুল্লাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া, আহত সুমনা ও তাপসীকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। এরা সকলেই ওই বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী। আটক জান্নাতী আকতার উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের গয়েশপুর গ্রামের আশিক মিয়ার স্ত্রী।

আহত এক শিক্ষার্থী  জানায়, ক্লাস শুরুর আগে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বোরকা পরিহিত এক মহিলা হঠাৎ তাদের শ্রেণি কক্ষে ঢুকে কিছু বুঝে উঠার আগে তার পেটে ছুরিকাঘাত করার চেষ্টা করে। এসময় সে হাত দিয়ে ছুরিটি ধরে ফেলে। এতে করে তার বাম হাত কেটে যায়। এরপর এলোপাথারীভাবে আরো চারজন শিক্ষার্থীকে ছুরিকাঘাত করে। 

আহত মিতু খাতুন বলে, ওই নারী আমার পিঠে ছুরিকাঘাত করে। আহত রাবেয়া খাতুন জানায়, তার দুই পায়ের উরু ও মাথায় ছুরিকাঘাত করে ওই মহিলা।

ওই বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক খন্দকার আব্দুলাহ আল মামুন জানায়, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে হঠাৎ করে হৈ চৈ শুনে শিক্ষক-কর্মচারীরা ষষ্ঠ শ্রেণি কক্ষের দিকে এগিয়ে দেখে শিক্ষার্থীরা হুরাহুরি করে বের হয়ে আসছে। এর মধ্যে চার পাঁচজন শিক্ষার্থীর শরীরের বিভিন্ন অংশ থেকে রক্ত ঝরে পড়ছে। পরে তারা শ্রেণি কক্ষে ঢুকে ওই নারীকে দেখতে পান। তখন তাকে আটক করে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়।

সাদুল্লাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শফিকুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে অভিযুক্ত ওই নারীকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। এসময় তার কাছে একটি দেশীয় ধারালো একটি ছুরি উদ্ধার করা হয়। এ নিয়ে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ওই নারী একেক সময় একেক কথা বলছে। তবে তার পরিবারের লোকজন ওই নারীকে মানসিক ভারসাম্যহীন বলে দাবি করছেন। 

 

এম হাসান

×