ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ৯ আশ্বিন ১৪২৯

৫-১১ বছর বয়সীদের পরীক্ষামূলক করোনার টিকাদান শুরু

প্রথম টিকা নিল তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থী নিধি নন্দিনী

স্টাফ রিপোর্টার

প্রকাশিত: ২৩:৩৪, ১১ আগস্ট ২০২২

প্রথম টিকা নিল তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থী নিধি নন্দিনী

প্রথম টিকা নিল তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থী নিধি নন্দিনী

দেশে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হলো করোনা প্রতিরোধে ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের টিকাদানপ্রথম টিকাগ্রহীতা হিসেবে এ টিকার প্রথম ডোজ নিল তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থী নিধি নন্দিনী কু-এর আগে প্রাপ্ত বয়স্কসহ প্রায় সব বয়সের মানুষকে টিকার আওতায় প্রায় দুই বছর সফলভাবে টিকাদান কর্মসূচী চালায় স্বাস্থ্য বিভাগইতোমধ্যে প্রথম ডোজের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হয়েছেআর তাই করোনা টিকাদানে বাংলাদেশ ঈর্ষণীয় স্থানে রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক

আর শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি বলেছেন, শিশুদের এই টিকাদান কর্মসূচীর মাধ্যমে অন্তত করোনার কারণে আর কখনও দেশে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হবে নাবৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের পরীক্ষামূলক টিকা কার্যক্রম উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তারা

এ সময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, টিকাদানসহ করোনা চিকিসায় বাংলাদেশ সফলদেশবাসী আমাদের প্রশংসা করেন, প্রধানমন্ত্রী প্রশংসা করেনদেশের বাইরেও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, ইউনিসেফ, ব্লুমবার্গ প্রশংসা করেছেবিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্র সরকার অনেক প্রশংসা করেছেতিনি বলেন, আমরা যেখানেই গিয়েছি সবাই জানতে চেয়েছে, শিশুদের টিকা দেয়া হবে কবে? আমরা টিকা পেয়েছি, কিন্তু আমাদের শিশুরা টিকা পায়নি

অভিভাবকরা এ নিয়ে চিন্তিত ছিলেনআজকে (বৃহস্পতিবার) আমরা শিশুদের টিকা কার্যক্রম উদ্বোধন করতে যাচ্ছিআজকে পরীক্ষামূলক শুরু করতে যাচ্ছি এবং আগামী ২৫ আগস্ট থেকে পুরোদমে টিকা কার্যক্রম দেশব্যাপী চলবেপ্রথমে আমাদের সিটি কর্পোরেশন এলাকায় শুরু হবে, তারপর পর্যায়ক্রমে সারাদেশে

জাহিদ মালেক বলেন, আমরা এখন পর্যন্ত ৩১ কোটি টিকা পেয়েছিফাইজারের টিকা যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে পেয়েছি প্রায় ৬ কোটি, মডার্না পেয়েছি সাড়ে ৫ কোটি, জনসন এ্যান্ড জনসন পেয়েছি ৬ লাখশিশুদের দিতে হলে আমাদের ৪ কোটি ৪০ লাখ ডোজ টিকা প্রয়োজন

ইতোমধ্যে ৩০ লাখ টিকা আমরা পেয়ে গেছি, বাকি টিকার প্রতিশ্রুতিও কোভ্যাক্সের মাধ্যমে চলে আসবে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের মাধ্যমেফাইজারের টিকা বিশেষ করে শিশুদের জন্য তৈরি করা হয়েছেএটি খুবই নিরাপদ ও ভাল

মন্ত্রী বলেন, আমরা একদিনে ৮৫ লাখ টিকা দিয়েছি, আমাদের সেই সক্ষমতা আছেবিশ্ব এখন জানে যে, বাংলাদেশ সুন্দরভাবে টিকা দিতে পারেআমরা প্রায় ১১ কোটি টিকা কোভ্যাক্সের মাধ্যমে বিনামূল্যে পেয়েছি

বাংলাদেশ নিজেদের অর্থায়নে টিকা দিয়েছে, আমাদের প্রায় ৩০ কোটি টিকা দেয়া হয়েছেঅনেক দেশ আছে, যারা টিকা বিনামূল্যে দিচ্ছে না, কিন্তু আমরা দিচ্ছিটিকার জন্য আমাদের কোন সময় টাকার অভাব হয়নিহাজার হাজার কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে টিকার জন্যপ্রধানমন্ত্রী বলেছেন, সবাইকে টিকার আওতায় নিয়ে আসতে

এ সময় শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি বলেন, আর কখনও যাতে পাঠদান বন্ধ রাখতে না হয়, সে জন্য ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদেরও টিকার আওতায় আনা হয়েছেতিনিও বলেন, টিকার ক্ষেত্রে আমাদের বিরাট সাফল্য রয়েছে১২-১৮ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রথম ডোজ ৯৭ শতাংশ এবং দ্বিতীয় ডোজ ৭৩ শতাংশ শিক্ষার্থীকে দেয়া হয়েছে

দীপু মনি বলেন, এই টিকা প্রদানের ক্ষেত্রে সহযোগিতা করার জন্য হু, ইউএসএইড, ইউনিসেফ, যুক্তরাষ্ট্র সরকার, কোভ্যাক্সসহ সবার প্রতি বাংলাদেশের মানুষের পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা জানাই

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, টিকা কার্যক্রমে সবার যে ভূমিকা রয়েছে, তা যেন ঠিকমতো আমরা করতে পারিআমাদের শিশুরা যেন নিশ্চিন্তে তাদের শিক্ষা কার্যক্রমে পুরোদমে অংশ নিতে পারেকোভিডের সময় প্রায় দুই বছরের কাছাকাছি শিক্ষা কার্যক্রম নানাভাবে ব্যাহত হয়েছেডিজিটাল বাংলাদেশ হওয়ার কারণে আমরা শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে নিতে পেরেছিলাম

কিন্তু তারপরও শ্রেণীকক্ষে পাঠদান রাখতে পারিনিসেই ঘাটতি এখন পুষিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছিনতুন করে আমাদের আর যেন পাঠদান কখনও বন্ধ করতে না হয়শ্রেণীকক্ষে পাঠদান যেন চালু থাকেসে লক্ষ্যেই সব শিক্ষার্থীকে টিকার আওতায় নিয়ে আসা প্রয়োজনএ জন্যই ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদেরও টিকার আওতায় নিয়ে আসা হচ্ছেএই উদ্যোগের জন্য আমি স্বাস্থ্যমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানাই

এ সময় স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডাঃ খুরশীদ আলম জানান, ৫-১১ বছরের শিশুদের এই টিকা কার্যক্রম সারাদেশের ১২ সিটি কর্পোরেশন এলাকায় শুরু হবেটিকার প্রথম ডোজ চলবে ২৫ আগস্ট থেকে ৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্তএরপর দ্বিতীয় ডোজের কার্যক্রম শুরু হবেপ্রথম ডোজ দেয়ার দুই মাস পর শিশুরা দ্বিতীয় ডোজের টিকা পাবেশিশুদের দেয়ার জন্য ফাইজারের তৈরি টিকা পর্যাপ্ত পরিমাণে আমাদের হাতে আছেটিকা কর্মীরাও সারাদেশে প্রস্তুত আছেন

এ বিষয়ে তিনি বলেন, শুরুতে শিশুদের টিকা কার্যক্রম সিটি কর্পোরেশন এলাকায় শুরু করার পরিকল্পনা করেছিএরপর পর্যায়ক্রমে সারাদেশের সব জেলা-উপজেলা পর্যায়েও এ টিকাদান কার্যক্রম শুরু হবে

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মুহাম্মদ আনওয়ার হোসেন হাওলাদার, যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার ডি হাস, ইউনিসেফ বাংলাদেশের প্রতিনিধি শেল্ডন ইয়েট, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিনিধি ড. বরদান জং রানা

কর্মসূচীর উদ্বোধনী দিন হিসেবে বৃহস্পতিবার রাজধানীর মোহাম্মদপুরের আবুল বাশার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণীর ১৬ শিক্ষার্থীকে টিকা দেয়া হয়প্রথম টিকা নেয়া তৃতীয় শ্রেণীর নিধি নন্দিনী কু- ছাড়াও একই বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণীর সৌম্য দ্বীপ দাস, চতুর্থ শ্রেণীর মোঃ আবু সায়েম ফাহিম, পঞ্চম শ্রেণীর বিকাশ কুমার সরকার, তৃতীয় শ্রেণীর সাইমুন সিদ্দিক, একই শ্রেণীর মোঃ আরাফাত শেখ, আকিব আহমেদ সায়ন, শামীমা সিদ্দিকা তাসিন, রুপা আক্তার, হুমায়রা আফরিন তামান্না, চতুর্থ শ্রেণীর শিক্ষার্থী মাহমুদ হোসেন ও আল-আমিন, তাসলিমা আক্তার, সানজিদা আক্তার, মোছাঃ নুসরাত জাহান আরিন এবং প্রথম শ্রেণীর শিক্ষার্থী হীরা আক্তার

টিকা নিতে আসা শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা ছিলেন উফুল্লচতুর্থ শ্রেণীর শিক্ষার্থী মোঃ আবু সায়েম ফাহিম বলেন, আব্বু আম্মু সবাই টিকা নিয়েছেশুধু আমি বাদ ছিলামআজকে আমিও নিচ্ছি, কোন ভয় লাগছে না