ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ২০ আগস্ট ২০২২, ৪ ভাদ্র ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

অমর্ত্য সেনের ভয়

ভারতে ঐক্যের অভাব

অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৭:১৯, ১ জুলাই ২০২২

ভারতে ঐক্যের অভাব

নোবেলজয়ী অধ্যাপক অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন

সহিষ্ণুতা নয়, ভারতে ঐক্যের অভাব আছে বলে মনে করেন দেশটির নোবেলজয়ী অধ্যাপক অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন দেশটির বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে যথেষ্ট ভয়ের কারণ আছে বলেও মনে করেন তিনি

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) কলকাতার সল্টলেকে গবেষণা প্রতিষ্ঠান প্রতীচী ট্রাস্টের অধীনে অমর্ত্য সেন রিসার্চ সেন্টারের উদ্বোধনকালে তিনি এসব কথা বলেন 

ব্যাক টু স্কুলশীর্ষক এক অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়েই সাংবাদকিদের প্রশ্নের জবাব দেন অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেনদেশের কোনো পরিস্থিতি আপনাকে ভয় পাওয়ায়?’ প্রশ্নের উত্তরে অন্নদাশঙ্করের একটি কবিতার লাইন তুলে ধরে অমর্ত্য সেন বলেন, ‘তেলের শিশি ভাঙল বলে খুকুর পরে রাগ করো, তোমরা যে সব ধেড়ে খোকা ভারত ভেঙে ভাগ করো...সেটা শুধু ভারত-পাকিস্তান বিভাজনের ক্ষেত্রে খাটে না, এই ঘটনা যদি বড় রকমের হতে থাকে এবং একটা দলের ওপর যদি আর একটা দল তাদের শক্তি ব্যবহার করতে থাকে তবে সেটাও তেলের শিশির মতো অবস্থা হবে

 সেখানে ভারত জাতিকে বিভক্ত করার যে প্রচেষ্টা- তার অনেকটা ফল আমরা দেখতে পাই সেই ফলের মধ্যে কুফল খুবই বেশি সেটা নিয়ে আমাদের চিন্তা করার সত্যিই খুব কারণ আছে 

সহিষ্ণুতার প্রশ্নে অর্থনীতিবিদ বলেন, ভারতের সহিষ্ণুতার ইতিহাস রয়েছে জিউস, খ্রিষ্টানসহ অনেকেই ভারতে এসেছেন আমরা তখন সহিষ্ণু ছিলাম, তাই আমাদের সহিষ্ণুতার ইতিহাস আছে কিন্তু এর থেকেও জরুরি মানুষের আরও ঐক্যবদ্ধ হওয়াটা এটা দেশবাসীর আরও বেশি করে বোঝা উচিত 

বিচারব্যবস্থার সঙ্গেও প্রশাসনের সামঞ্জস্য থাকা উচিত বলে মনে করেন তিনি 

ছোটবেলার একটা কথা স্মরণ করে নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ বলেন, যারা জেলে থাকতো, আমি তাদের দেখতে যেতাম স্বাধীনতা সংগ্রামী মামার কাছে আমার প্রশ্ন ছিল যে, যারা খুন করেনি তারা জেলে কেন? এর উত্তরে আমার মামা বলেছিলেন, এটা চলতেই থাকবে ভারতের স্বাধীনতা পাওয়া পর্যন্ত এটা চলতেই থাকবে, তার আগে এটা বন্ধ হবে না কিন্তু স্বাধীনতা পাওয়ার পরেও যে এটা চলতে পারে, মামা আমাকে তখন সেটা বলেননি তিনি বোধহয় আশঙ্কাও করেননি কিন্তু এই জিনিসটাই এখনো চলছে সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয়, মানুষ এখনও কিভাবে এই বিষয়গুলোকে গ্রাহ্য করছেন 

অমর্ত্য সেন ছাড়াও এদিনের অনুষ্ঠানে মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পশ্চিমবঙ্গের কৃষিমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়, অধ্যাপক অনিতা রামপাল, বেলজিয়াম বংশোদ্ভুত ভারতীয় পরিবেশ বিজ্ঞানী পরিবেশবিদ জিন ড্রিজ, অর্থনীতিবিদ .কে.শিবকুমার, রাজ্যটির সাবেক অর্থমন্ত্রী অসীম দাসগুপ্ত, অধ্যাপক সাবেক তৃণমূল কংগ্রেস সংসদ সদস্য সুগত বসুসহ বিশিষ্টজনেরা