ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯

সাপাহারে আটক চোর গনপিটুনীতে আহত

প্রকাশিত: ০৪:৫৩, ২৭ আগস্ট ২০১৯

সাপাহারে আটক চোর গনপিটুনীতে আহত

নিজস্ব সংবাদদাতা, নওগাঁ ॥ নওগাঁর সাপাহারে বিদ্যুত (৩৫) নামে এক গরু চোরকে গনপিটুনী দিয়ে রাস্তায় ফেলে রেখেছে জনতা। আজ মঙ্গলবার দিনগত রাত সাড়ে তিনটার দিকে উপজেলার গোডাউন পাড়া (ধাতাল পাড়া) গ্রামে বিকাশ এজেন্ট পলাশের বাড়িতে চুরি করতে ঢুকলে জনতার হাতে ধরা পড়ে ওই চোর। এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার রাত অনুমান ২টা ৩০মিনিটের দিকে গরু চোর বিদ্যুত ও তার সাঙ্গ-পাঙ্গরা পার্শ্ববর্তী পতœীতলা উপজেলার রুপগ্রামের জনৈক মোঃ আফাজ উদ্দীনের বাড়িতে সিঁদ কেটে প্রবেশ করে। এবং তার গোয়ালঘর থেকে দু’টি গরু ও একটি বাইসাইকেল চুরি করে নিয়ে রাতেই সাপাহার উপজেলায় আসে। এর পর চোরের দল চুরি করে নিয়ে আসা গরু দু’টি রাত অনুমান ৩টা ৩০মিনিটের দিকে গোডাউনপাড়া (ধাতাল পাড়ার) (উপজেলা সদরের বিকাশ এজেন্ট) পলাশের বাড়ির পার্শ্বে খুঁটিতে বেধে রেখে তার শয়ন ঘরের জানালা ভেঙ্গে ঘরে প্রবেশ করে এবং তার বিকাশের দোকানের ১লাখ ৯৫হাজার টাকা ঘর থেকে নিয়ে বেরিয়ে যায়। এমন সময় পলাশের মা ঘর থেকে মানুষ বেরিয়ে যেতে দেখে চিৎকার করতে থাকে। মূহুর্তে তাদের চিৎকারে গ্রামের লোকজন বাড়ি থেকে বেরিয়ে এসে চোরদের ধাওয়া করলে টাকাসহ অন্যান্য চোর পালিয়ে যেতে সক্ষম হলেও খুঁটিতে বাধা গরু দু’টি ও বাইসাইকেলসহ চোর বিদ্যুত জনতার হাতে ধরা পড়ে। এসময় উত্তেজিত জনতা রাতেই তাকে উত্তম মধ্যম দিয়ে রাস্তার পার্শ্বে ফেলে রাখে। এর পর ভোর রাতেই গরুর মালিক আফাজ উদ্দীনের লোকজন চুরি যাওয়া গরু খুঁজতে খুঁজতে সাপাহারের দিকে এগিয়ে এলে তাদের চুরি যাওয়া গরু দু’টির সন্ধান পান তারা। সংবাদ পেয়ে পুলিশ সকালে অচেতন অবস্থায় চোর বিদ্যুতকে সেখান থেকে উদ্ধার করে সাপাহার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন এবং গরু দু’টি থানা হেফাজতে আটকে রাখে। জনতার হাতে ধৃত চোর মহাদেবপুর উপজেলার মাতাজি হাট কৃষ্ণপুর গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে । সে দির্ঘ দিন ধরে সাপাহার উপজেলার তাজপুর-মানিকুড়া গ্রামের জনৈক আব্দুর রশিদের বাসায় ভাড়া থেকে চুরির পাশাপাশি কসাইয়ের ব্যবসা করত বলে এলাকাবাসী জানিয়েছেন। এবিষয়ে সাপাহার থানার ওসি তদন্ত মনিরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন এবং এবিষয়ে গরু চোর বিদ্যুত সহ আরোও অজ্ঞাত নামা ৩জনকে আসামী করে সাপাহার থানায় একটি চুরির মামলা দায়ের হয়েছে।