সোমবার ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৯ নভেম্বর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

শরীয়তপুরে পল্লীবিদ্যুত লাইন সংযোগের নামে টাকা আদায়

নিজস্ব সংবাদদাতা, শরীয়তপুর, ২৫ অক্টোবর ॥ শরীয়তপুরের পল্লীবিদ্যুত গ্রাহকরা চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। অস্বস্তিকর লোডশেডিং, অতিরিক্ত বিদ্যুত বিল ও হয়রানির কারণে পল্লীবিদ্যুত গ্রাহকরা অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। জেলার বিদ্যুত গ্রাহকরা এ বিড়ম্বনা থেকে কোনভাবেই নিস্তার পাচ্ছেন না। এছাড়াও অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের লাগামহীন দুর্নীতি ও বিভিন্ন অনিয়মের যাঁতাকলে পড়ে গ্রাহকরা অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। এদিকে জেলার বিভিন্ন গ্রামে সরকারীভাবে বিদ্যুতের লাইন সম্প্রসারণ কাজ চলছে। অনেকটা সোনার হরিণ এ বিদ্যুতের নতুন লাইন সংযোগ পাওয়ার অপেক্ষায় আছে জেলার হাজার হাজার মানুষ। আর এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে স্থানীয় কিছু দালালদের সহযোগিতায় গ্রাহকদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে অফিসের কিছু দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা-কর্মচারী। জেলার নড়িয়া উপজেলার গোলার বাজার এলাকায় শতাধিক গ্রাহকের বাড়িতে বিদ্যুতের নতুন সংযোগ দেয়ার কাজ চলছে। এসব বাড়িতে বিদ্যুতের সংযোগ দেয়ার নামে প্রত্যেকের কাছ থেকে ৬ হাজার টাকা করে হাতিয়ে নিয়েছে অফিসের কিছু দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা-কর্মচারী। স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, স্থানীয় একটি সিন্ডিকেটের মাধ্যমে বিদ্যুত সংযোগ দেয়ার কথা বলে প্রত্যেক গ্রাহকের কাছ থেকে ৬ হাজার টাকা করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে পল্লীবিদ্যুত অফিসের কিছু দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা-কর্মচারী। একই অভিযোগ পাওয়া গেছে, ভেদরগঞ্জ উপজেলার রানীসার গ্রামে এবং সদর উপজেলার গঙ্গানগর এলাকায়। পরিচিত দালালদের মাধ্যমে এ অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা গ্রাহকদের কাছ থেকে নতুন সংযোগ দেয়ার নামে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এছাড়াও জেলার ডামুড্যা উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের ভেসালিয়া ও বিন্দাইকাঠি এলাকায় বিদ্যুত লাইন না যাওয়ায় ভোগান্তিতে আছে সেখানকার প্রায় ২০ হাজার মানুষ। কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রকাশ্য মদদে মিটার টেম্পারিং করে বিদ্যুত চুরি, অবৈধ সংযোগ, সিস্টেম লসের নামে সরকারী রাজস্ব ফাঁকি, অনিয়মতান্ত্রিক পন্থায় বাঁশের মতো শীর্ণ খুঁটিতে হাজার হাজার ফুট সার্ভিস লাইন সংযোজন দেয়ায় তা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। আর এতে দুর্ঘটনায় বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে মারা যাচ্ছে সাধারণ মানুষ। গত ৫ এপ্রিল তারিখে পল্লীবিদ্যুতের ছিঁড়ে পড়া তারে জড়িয়ে ২ হাত হারাতে হয়েছে নড়িয়া উপজেলার বিঝারী গ্রামের ফারুখ খানের কলেজপড়ুয়া ছেলে সিয়ামকে। এ ঘটনায় উচ্চ আদালতে একটি রিটের প্রেক্ষিতে সিয়ামকে ৩০ দিনের মধ্যে ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ প্রদানের জন্য পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডকে নির্দেশ দেয় আদালত। কিন্তু সিয়াম এখন পর্যন্ত ক্ষতিপূরণের টাকা পায়নি। এসব অভিযোগ সম্পর্কে মুঠোফোনে জানতে চাইলে শরীয়তপুর পল্লীবিদ্যুত অফিসের জেনারেল ম্যানেজার সোহরাব আলী বিশ্বাস বলেন, আমরা কোন দালালকে সংযোগের নামে টাকা-পয়সা না দেয়ার জন্য সতর্ক করণার্থে মাইকিং করেছি। জেলার বিভিন্ন স্থানে বিদ্যুতের উন্নয়মূলক কাজ চলার কারণে কিছুটা লোডশেডিং হচ্ছে বলে তিনি দাবি করেন।

শীর্ষ সংবাদ:
দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে         ব্যাটিং ব্যর্থতায় ম্লান বোলিং সাফল্য         মিল্কি ওয়ের প্রথম ‘পালক’         সরকারী কাস্টডিতে নেই খালেদা, তিনি মুক্ত         ঢাকায় বিশ্ব শান্তি সম্মেলন ৪ ডিসেম্বর শুরু         ওমিক্রন প্রতিরোধে সতর্ক অবস্থায় সারাদেশ         সাদা পোশাকে দেশে সবার ওপরে মুশফিক         সাগরে জলদস্যুতায় যাবজ্জীবন দন্ড         গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন, ৪১ বছর পূর্তির আয়োজন         কুয়েতে পাপুলের সাত বছরের কারাদন্ড         পাকি প্রেম দূরে রাখুন         বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ তৈরিতে আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ         ‘মোকাবেলা করে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে ’         তৃতীয় ধাপের সহিংসতাহীন নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে দাবি ইসির         করোনা : গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৩         করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের সতর্কবার্তা         পরিবহন সেক্টর কার নিয়ন্ত্রণে : জি এম কাদের         সংসদে নির্বাচন কমিশন গঠনে আইন আনা হচ্ছে শিগগিরই ॥ আইনমন্ত্রী         বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহী সৌদির ৩০ কোম্পানি         আগামী ১ ডিসেম্বর থেকে নগর পরিবহন চালু সম্ভব নয় : মেয়র তাপস