পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২২.৮ °C
 
১৮ জানুয়ারী ২০১৭, ৫ মাঘ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

মৎস্য অফিসের দুই কর্মচারীর কান্ড

প্রকাশিত : ১১ জানুয়ারী ২০১৭, ০৮:০০ পি. এম.
মৎস্য অফিসের দুই কর্মচারীর কান্ড

নিজস্ব সংবাদদাতা, নওগাঁ ॥ নওগাঁর মান্দায় পুলিশ ও ভ্রাম্যমান আদালতের ভয় দেখিয়ে ১শ’ পিচ ইলিশ মাছ কেড়ে নিয়ে ভাগবাটোয়ারা করে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে উপজেলা মৎস্য অফিসের দুই কর্মচারীর বিরুদ্ধে। বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে উপজেলা পরিষদ চত্বরে এ ঘটনা ঘটে। সংবাদটি ছড়িয়ে পড়ায় স্থানীয় প্রশাসনের মাঝে তোলপাড় শুরু হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, হবিগঞ্জ জেলার আজমেরি উপজেলার কামালপুর গ্রামের দুই ক্ষুদে মাছ ব্যবসায়ী রিপন মিয়া ও আরসাদ আলী বুধবার বিকেলে উপজেলা পরিষদ চত্বরে ফেরি করে ইলিশ বিক্রি করছিলেন। তারা উপজেলা মৎস্য অফিসের সামনে দিয়ে যাবার সময় ক্ষেত্র সহকারী মাহবুবুর রহমান ও অফিস সহায়ক পলাশ কুমার তাদের গতিরোধ করে। ব্যবসায়ীদের মৎস্য অফিসের বারান্দায় নিয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে ওই দুই কর্মচারী তাদের নিকট থেকে ইলিশগুলো কেড়ে নেয়।

প্রত্যক্ষদর্শী আবুল কাসেম, মোজাম্মেল হকসহ আরো অনেকে জানান, আইনের তোয়াক্কা না করেই মৎস্য অফিসের লোকজন জোরপূর্বক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে মাছগুলো কেড়ে নিয়েছে। পরে তাদের সেখান থেকে তাড়িয়ে দেয়া হয়।

ব্যবসায়ী রিপন মিয়া জানান, রাজশাহী মোকাম থেকে ইলিশগুলো কিনে মান্দা উপজেলা পরিষদ চত্বর এলাকায় ফেরি করে বিক্রি করছিলেন। এ সময় মৎস্য অফিসের লোকজন তাদের আটকিয়ে পুলিশ ও ভ্রাম্যমান আদালতের ভয় দেখিয়ে ১শ’ পিচ ইলিশ কেড়ে নেয়। যার মুল্য ১৫ হাজার টাকা বলে দাবি করেন তিনি।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আব্দুর রশিদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, মৎস্য অফিসের কর্মচারীদের এ ধরনের হটকারী সিদ্ধান্ত নেয়া উচিত হয় নি। ইউএনও মোঃ নুরুজ্জামান জানান, এটি জুডিশিয়াল বিষয়। কোনো ম্যাজিস্ট্রেট ছাড়া ওই অফিসের কেউই এ ধরনের কাজ করতে পারেন না। বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানান তিনি। উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা আয়নাল হক জানান, ঘটনার সময় তিনি অফিসে ছিলেন।

প্রকাশিত : ১১ জানুয়ারী ২০১৭, ০৮:০০ পি. এম.

১১/০১/২০১৭ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: