পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২২.৮ °C
 
১৮ জানুয়ারী ২০১৭, ৫ মাঘ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

মেলবোর্নে বাঙ্কসির প্রদর্শনী

প্রকাশিত : ১০ জানুয়ারী ২০১৭
  • মোহাম্মদ কামরুল হাসান

বিশ্বের অন্যতম প্রথিতযশা স্ট্রিট আর্টিস্ট ‘বাঙ্কসি’র বেশকিছু শিল্পকর্মের প্রদর্শনী চলছে অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন শহরে। শহরের মেয়র এমন প্রদর্শনীকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, ‘এ ধরনের বিশাল আকারের স্ট্রিট আর্টের প্রদর্শনী অস্ট্রেলিয়ায় এবারই প্রথম। বাঙ্কসির স্ট্রিট আর্টের প্রদর্শনী যেন শহরের ইতিহাসে নতুন মাত্রা যোগ করেছে। মেলবোর্ন ফেডারেশন স্কয়ারে গত ৭ অক্টোবর এই প্রদর্শনীর উদ্বোধন করা হয়। যা আগামী ২২ জানুয়ারি শেষ হবে। তুরস্কের ইস্তানবুল কিংবা নেদারল্যান্ডসের প্রদর্শনীর চেয়ে বেশি শিল্পকর্ম এ প্রদর্শনীতে স্থান পেয়েছে। সর্বমোট ৮০টি স্ট্রিট আর্টের সংকলন হয়েছে এ প্রদর্শনীতে।

বাঙ্কসির ম্যানেজার লেজারাইড ব্রিটিশ পত্রিকা গার্ডিয়ানকে এই প্রদর্শনীতে বাঙ্কসির স্বীকৃতি নেয়া হয়নি বলে জানায়। লেজারাইড জানায়, বাঙ্কসির সঙ্গে তার বহু দিন কোন যোগাযোগ নেই। ২০১৪ সালে একটি প্রদর্শনী আয়োজনকে কেন্দ্র করে তাদের মাঝে দূরত্ব সৃষ্টি হয়েছিল। এরপর থেকে স্ট্রিট আর্টিস্ট বাঙ্কসি লেজারাইডের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করছেন না বলে সে জানায়। এবারের প্রদর্শনীতে টিকেটের মূল্য ৩০ ডলার। বাঙ্কসির স্ট্রিট আর্ট সংগ্রহে রাখা বেশ ক’জন সংরক্ষক নিজেদের সংগ্রহে রাখা শিল্পকর্মগুলো প্রদর্শনীতে সরবরাহ করেন। ২০০৩ সালে অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নের শহরতলিতে বাঙ্কসির আঁকা বেশকিছু স্ট্রিট আর্ট ভুলবশত গত মাসে নষ্ট করে নির্মাণ শ্রমিকরা। এ ছাড়া ২০১৪ সালেও বাঙ্কসির দুটো স্ট্রিট আর্ট নষ্ট করেন কর্তৃপক্ষ। অজ্ঞতাবশত এসব কাজ নষ্ট করার সমালোচনা করেছেন একজন আর্ট কালেক্টর। যদিও স্ট্রিট আর্টিস্ট বাঙ্কসির মতামত হলো গ্রোফিত্তি কিংবা স্ট্রিট আর্ট হলো অস্থায়ী শিল্পকর্ম। বাঙ্কসি একজন মানবতাবাদী শিল্পী।

বিশ্বের যেখানেই মানবতা ভূুলুণ্ঠিত হয়েছে সেখানেই নতুন স্ট্রিট আর্ট নিয়ে বাঙ্কসি হাজির হয়েছেন। এমনকি মিসর সীমান্তের পরিখা দিয়ে গাজা উপত্যকায় প্রবেশ করতেও দ্বিধা করেননি এই সাহসী শিল্পী। ইসরাইলী বিমান হামলায় নিহত ও আহত শিশুদের জন্য গাজার উপত্যাকায় এঁকেছেন অসাধারণ সব স্ট্রিট আর্ট। বাঙ্কসির পরিচয় নিয়ে রয়েছে অস্পষ্টতা। কারও মতে বাঙ্কসি একজন নারী। আবার অনেকেই মনে করেন বাঙ্কসি মোট সাতজনের একটি দল।

প্রকাশিত : ১০ জানুয়ারী ২০১৭

১০/০১/২০১৭ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: