আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

মহেশখালীর ১৭ জনের বিরুদ্ধে ফরমাল চার্জ ১৫ মার্চ

প্রকাশিত : ১৪ জানুয়ারী ২০১৬
  • যুদ্ধাপরাধী বিচার
  • খালাস চেয়ে সাঈদী রিভিউ আবেদন করবেন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে কক্সবাজারের মহেশখালীর বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুর রশিদ মিয়াসহ ১৯ জনের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ আমলে নেয়নি ট্রাইব্যুনাল। অভিযোগপত্রে মৃত জিন্নাত আলীর নাম থাকায় ট্রাইব্যুনাল তা গ্রহণ করেননি। একই সঙ্গে ১৯ জনের মধ্যে মামলায় অভিযুক্ত মৃত আরও দুই আসামির নাম বাদ দিয়ে ১৭ জনের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ (ফরমাল চার্জ) আগামী ১৫ মার্চ দাখিল করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। বুধবার চেয়ারম্যান বিচারপতি আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বে তিন সদস্য বিশিষ্ট আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ এ আদেশ প্রদান করেছেন। ট্রাইব্যুনালে প্রসিকিউশন পক্ষে ছিলেন, প্রসিকিউটর রানা দাশগুপ্ত, প্রসিকিউটর জাহিদ ইমাম। আসামিপক্ষে উপস্থিত ছিলেন, আইনজীবী আব্দুস সাত্তার পালোয়ান। এদিকে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে আমৃত্যু কারাদ-াদেশপ্রাপ্ত জামায়াতের নায়েবে আমির দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী খালাস চেয়ে রিভিউ করবেন। সাঈদীর সঙ্গে কাশিমপুর কারাগারে (হাইসিকিউরিটি ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার, পার্ট-১) সাক্ষাত করতে গেলে আইনজীবীদের এ সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন তিনি।

মহেশখালীর মামলার প্রসিকিউটর রানা দাশগুপ্ত ট্রাইব্যুনালকে বলেন, মৃত জিন্নাত আলী সব অপরাধের সঙ্গেই জড়িত। এ কারণেই তার নাম আনুষ্ঠানিক অভিযোগে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। তবে আদালত চাইলে অভিযোগ আমলে নেয়ার সময় তার নাম বাদ দিতে পারেন। তিনি জানান, তাদের এ যুক্তি আমলে না নিয়ে তার (জিন্নাত আলী) নাম বাদ দিয়ে পুনরায় আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করতে বলেন। ট্রাইব্যুনাল একই মামলায় নতুনভাবে অন্তর্ভুক্ত হওয়া আসামি রমিজ হাসানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন। আসামিদের বিরুদ্ধে হত্যা, নারী নির্যাতন, অগ্নিসংযোগ, ধর্মান্তর ও দেশান্তর করাসহ মানবতাবিরোধী ১৩টি অভিযোগ আনা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

মামলার অন্য আসামিরা হলেনÑ মৌলবী জকরিয়া শিকদার, মোঃ রশিদ মিয়া বিএ, অলি আহমদ, মোঃ জালাল উদ্দিন, মোলবী নুরুল ইসলাম, মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম সাবুল, মমতাজ আহম্মদ, হাবিবুর রহমান, মোলবী আমজাদ আলী, মৌলবী আব্দুল মজিদ, বাদশা মিয়া, ওসমান গণি, আব্দুল শুক্কুর, মোলবী সামসুদ্দোহা, মো. জাকারিয়া, মো. জিন্নাহ ওরফে জিন্নাত আলী, মৌলবী জালাল ও আব্দুল আজিজ। এদের মধ্যে সালামত উল্লাহ খানসহ ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ট্রাইব্যুনালে যত মামলা এসেছে তার মধ্যে এটাই সবচেয়ে বড় মামলা।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা (আইও) মোঃ নূরুল ইসলাম ২০১৪ সালের ১২ মে থেকে ২০১৫ সালের ৮ অক্টোবর পর্যন্ত তদন্ত শেষ করেন। জানা যায়, প্রতিবেদনে ৬০ সাক্ষীর জবানবন্দী, ঘটনাস্থলের খসড়া মানচিত্র ও সূচী এবং ঘটনাস্থলের স্থির চিত্র দাখিল করা হবে প্রসিকিউশনে। তাদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের মধ্যে মোট ঘটনা ১৩টি। এর মধ্যে হত্যার ৯৪টি, নারী নির্যাতন অসংখ্য এবং লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ।

রিভিউ করবেন সাঈদী ॥ রাষ্ট্রপক্ষের পরে আপীল মামলার রায় পুনর্বিবেচনার (রিভিউ) আবেদন জানাবেন মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে আমৃত্যু কারাদ-াদেশপ্রাপ্ত জামায়াতের নায়েবে আমির দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীও। সুপ্রীমকোর্টের আপীল বিভাগের চূড়ান্ত রায়ের বিরুদ্ধে এ রিভিউ আবেদনে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি ও খালাসের আরজি জানানো হবে। সাঈদীর সঙ্গে কাশিমপুর কারাগারে (হাইসিকিউরিটি ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার, পার্ট-১) সাক্ষাত করতে গেলে আইনজীবীদের এ সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন তিনি।

বুধবার বেলা পৌনে দুইটার দিকে তার সঙ্গে সাক্ষাত করতে কাশিমপুর কারাগারে যান সাঈদীর চার আইনজীবী এ্যাডভোকেট তাজুল ইসলাম, এ্যাডভোকেট সাইফুর রহমান, এ্যাডভোকেট ইউসুফ আলী ও এ্যাডভোকেট মতিউর রহমান আকন্দ। এক ঘণ্টা সাক্ষাত শেষে বের হয়ে সাইফুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী রিভিউ আবেদন জানাতে বলেছেন। এ বিষয়ে দিকনির্দেশনা দিয়েছেন তিনি।

প্রকাশিত : ১৪ জানুয়ারী ২০১৬

১৪/০১/২০১৬ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: