মূলত মেঘলা, তাপমাত্রা ২৭.৮ °C
 
২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬, ১১ আশ্বিন ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে ২শ’ বছরের ময়মনসিংহ কারাগার

প্রকাশিত : ৯ জানুয়ারী ২০১৬

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে ময়মনসিংহ কেন্দ্রীয় কারাগারের ২শ’ বছরের প্রাচীন স্থাপনা। পুরনো ও জরাজীর্ণ হওয়ায় এগুলো ভেঙ্গে নতুন অবকাঠামো নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ লক্ষ্যে ১২৭ কোটি ১৩ লাখ টাকা ব্যয়ে ‘ময়মনসিংহ কেন্দ্রীয় কারাগার সম্প্রসারণ ও আধুনিকায়ন’ নামে একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে সময় লাগবে প্রায় তিন বছর। ২০১৮ সালের জুনের মধ্যে এটি বাস্তবায়নের কথা রয়েছে। এটি বাস্তবায়নের মাধ্যমে কারাগারটিকে নতুনভাবে সাজিয়ে তোলার কাজ করবে গণপূর্ত অধিদফতর ও কারা অধিদফতর।

প্রকল্পটির দায়িত্বপ্রাপ্ত পরিকল্পনা বিভাগের সচিব মোহাম্মদ সফিকুল আজম জানান, ‘কারাগারটির অধিকাংশ স্থাপনা প্রায় ২০০ বছর আগের তৈরি এবং বর্তমানে ভগ্নপ্রায়। ইতোমধ্যেই এর কতিপয় স্থাপনা পরিত্যক্ত ঘোষণা করেছে গণপূর্ত অধিদফতর (পিডব্লিউডি)। বর্তমানে এ কারাগারটিতে ধারণক্ষমতার প্রায় দ্বিগুণ কয়েদী অবস্থান করছে। এমতাবস্থায় বিদ্যমান কারাগারটির সম্প্রসারণ, আধুনিকীকরণ এবং কয়েদী ধারণক্ষমতা বৃদ্ধি করা প্রয়োজন।’ ‘প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে ময়মনসিংহ কেন্দ্রীয় কারাগারের কয়েদী ধারণক্ষমতা বৃদ্ধি এবং কয়েদীদের বসবাসের জন্য উন্নত পরিবেশ ও আধুনিক স্বাস্থ্যসেবাসহ প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা প্রদান করা সম্ভব হবে’ বলে মন্তব্য করেন তিনি।

জানা যায়, ময়মনসিংহ কারাগারের বিভিন্ন স্থাপনা পরিত্যক্ত ঘোষণা করায় এসব স্থাপনা ও ভূমি স্থানীয় স্বার্থান্বেষী মহল দখলে নেয়ার চেষ্টা করছে। ফলে সম্পত্তি রক্ষায় আদালতের আশ্রয় নিতে হচ্ছে কারা কর্তৃপক্ষকে। এ প্রেক্ষিতে বিদ্যমান কারাগারটির সম্প্রসারণ এবং কয়েদী ধারণক্ষমতা ২ হাজারে উন্নীত করার লক্ষ্য নিয়ে প্রকল্পটি গ্রহণ করা হয়েছে। বর্তমানে ময়মনসিংহ কেন্দ্রীয় কারাগারের কয়েদী ধারণক্ষমতা হচ্ছে ৯৯৬ জন। কিন্তু এর বিপরীতে এখন সেখানে প্রায় ১৭০০ জন কয়েদী অবস্থান করছে, যা কারাগারটির ধারণক্ষমতার প্রায় দ্বিগুণ।

এ প্রকল্পের আওতায় গৃহীত উল্লেখযোগ্য কাজগুলো হচ্ছে, ৪ তলা ভিত্তির উপর ২তলা বিশিষ্ট ১টি প্রশাসনিক ভবন, পুরুষ কয়েদীদের জন্য ২ তলা ভিত্তির উপর ২তলা বিশিষ্ট ১টি ভিজিটর ব্লক, মহিলা কয়েদীদের জন্য ১তলা ভিত্তির উপর ১তলা বিশিষ্ট ১টি ভিজিটর ব্লক, ২তলা ভিত্তির উপর ১তলা কারা স্কুল ও লাইব্রেরি, বিচারাধীন পুরুষ কয়েদীদের জন্য প্রতিটি ৬তলা ভিত্তির ওপর ৬তলাবিশিষ্ট মোট ২টি ভবন, কিশোর কয়েদীদের জন্য ৪তলা ভিত্তির উপর ৩তলা বিশিষ্ট ১টি ভবন, মানসিক বিকারগ্রস্ত পুরুষ কয়েদীদের জন্য ৪তলা ভিত্তির উপর ২তলাবিশিষ্ট ১টি ভবন, পুরুষ ক্লাসিফায়েড কয়েদীদের জন্য ৪তলা ভিত্তির উপর ২তলা ১টি ভবন, ৪তলা ভিত্তির উপর ৪তলাবিশিষ্ট হাসপাতাল পুরুষ কয়েদীর জন্য, বিচারাধীন মহিলা কয়েদীদের জন্য ৫তলা ভিত্তির উপর ২তলা ১টি ভবন, প্রমাণিত মহিলা আসামিদের জন্য ৫তলা ভিত্তির উপর ২তলা ১টি ভবন, মহিলা ক্লাসিফায়েড কয়েদীদের জন্য ২তলা ভিত্তির উপর ২তলা ১টি ভবন এবং কারারক্ষীদের জন্য ৬তলা ভিত্তির উপর ৪তলা বিশিষ্ট ১টি ব্যারাক নির্মাণ ইত্যাদি।

প্রকাশিত : ৯ জানুয়ারী ২০১৬

০৯/০১/২০১৬ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: