মূলত মেঘলা, তাপমাত্রা ২৭.৮ °C
 
২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬, ১১ আশ্বিন ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

প্রজাপতি না মাছ?

প্রকাশিত : ৪ ডিসেম্বর ২০১৫, ১২:৩০ এ. এম.

আহা কি সুন্দর, মনকাড়া এর গায়ের রঙ! নীলাভ-শাদা, ফুটিঅলা আর পাপড়িছড়ানো। প্রথম দেখায় একে মনে হবে দুর্লভ কোন ফুল। না, ফুল নয়, এটা এক সামুদ্রিক মাছ। মূলত জেলিমাছ খেয়েই এরা বাঁচে। এটাই ওদের প্রধান খাদ্য। ঢেউয়ের ধাক্কায় অস্ট্রেলিয়া উপকূলে এসে পড়েছে মাছটি। তাতেই পড়ে গেছে হৈ-চৈ। এমন মাছ কস্মিনকালেও দেখেনি কেউ। তবে জীববিজ্ঞানীদের কাছে এটি বিরল প্রজাতির হলেও অচেনা নয় মোটে।

অদ্ভুতুড়ে আর অনিন্দ্য চেহারার এই মাছটির নাম ব্লু ড্রাগন। এর বৈজ্ঞানিক নাম গ্লাউকাস আতলান্তিকাস (মষধঁপঁং ধঃষধহঃরপঁং)। অগভীর পানিতে সচরাচর ওদের দেখা মেলে না। ওরা থাকে সমুদ্রের অনেক গভীরে মানুষের দৃষ্টিসীমার অনেক বাইরে। পত্রিকায় ছবি ও ভিডিও আপলোড করে এই মাছের তত্ত্ব-তালাশ করার পাশাপাশি ‘এটা আসলে কি?’ –এই প্রশ্নটিও রাখা হয়েছে : What is it? Weird glowing blue sea creature that eats jellyfish washes up on Australian beach

এমনিতে কিন্তু জেলিফিশের ভয়ঙ্কর বলে কুখ্যাতি আছে। এদের লেজের হুল ফোটালে এর বিষে যে কোন মানুষ বা শিকারিমাছের নিশ্চিত মৃত্যু। কিন্তু এই ব্লু ড্রাগনের কাছে জেলিমাছের হুল রীতিমতো নস্যি। জেলিফিশের হুল বিঁধলেও আশ্চর্য এক কারণে কিছুই হয় না এদের। কারণ তীব্র বিষও এদের শরীরে কোন ক্রিয়াই করে না।

এ ছাড়া ব্লু ড্রাগনের নিজেরও আছে ভয়ঙ্কর বিষাক্ত হুল। কোন কারণে এর হুল মানুষের গায়ে বিঁধলে প্রাণ নিয়েই টানাটানি। সবচেয়ে মজার ব্যাপার ওদের চলাফেরা করার অদ্ভুত ধরন। এরা পানিতে যখন ভেসে বেড়ায় তখন ওদের মাথা থাকে নিচের দিকে আর লেজটা থাকে উপরের দিকে।

প্রকৃতি ও বিজ্ঞান ডেস্ক

প্রকাশিত : ৪ ডিসেম্বর ২০১৫, ১২:৩০ এ. এম.

০৪/১২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: