কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
২৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৭, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

দুই মাইল দূরত্বে থেকেও যেন হাজার মাইল দূরে

প্রকাশিত : ২ সেপ্টেম্বর ২০১৫, ০৩:০৯ পি. এম.

অনলাইন ডেস্ক ॥ আলাস্কার কাছে বেয়ারিং প্রণালীতে মাত্র দুই মাইল দূরত্বে দুটি দ্বীপ। একটি রাশিয়ার অপরটি যুক্তরাষ্ট্রের।

লিটল ডাইমিড নামে পরিচিত যুক্তরাষ্ট্রের দ্বীপটিতে রয়েছে একটি এস্কিমো সম্প্রদায়ের অল্পকিছু মানুষজনের বসবাস। কিন্তু দুই মাইল দুরে রাশিয়ার বিগ ডাইমিড দ্বীপে থাকা আত্মীয়দের সাথে তাদের দূরত্ব যেন হাজারোর মাইলের।

ঠাণ্ডা যুদ্ধ শেষ হওয়ার পর এই এস্কিমো সম্প্রদায়ের মানুষজনের মনে আশার সঞ্চার হয়েছিল যে তারা রাশিয়ার অংশে তাদের স্বজনদের দেখা এবার হয়ত পাবেন। কিন্তু সেখানে রাশিয়ার সামরিক উপস্থিতি ক্রমশ বাড়ছে। তাই মনে হচ্ছে সেই আশা তাদের ইদানীং পূরণ হচ্ছে না।

আর্কটিক সার্কেলের কাছে দুর্গম এলাকায়, বলতে গেলে জগত থেকে বহু দুরে এই দ্বীপ দুটি। এর মাঝখানে বৈরী রাজনৈতিক সম্পর্কের বিভেদ।

লিটল ডাইমিড দ্বীপে মোটে আশিজন মানুষের বাস। কয়েক হাজার বছর ধরে এখানে এই ট্রাইবের বাস। সমুদ্র থেকে মাছ ধরা তাদের জীবন ও জীবিকা। নেই কোন কর্তৃপক্ষ, পুলিশ বা মিলিটারি।

মাত্র দুই মাইল দুরে বিগ ডাইমিড দ্বীপে তাদের আত্মীয় থাকলেও সেখানে যাওয়ার সাধ্য তাদের নেই। দ্বীপের বাসিন্দা রবার্ট শুলুক বলছেন, এই অল্পকটা মানুষের উপর সার্বক্ষণিক নজর রাখছে রাশিয়ার সামরিক নজরদারী চৌকি। ওই দ্বীপটির এক প্রান্তে একটি সামরিক ঘাটি। কোন কারণে দ্বীপটির কাছে চলে গেলে তারা ফাকা গুলি করে সতর্ক করে দেয়।

নজরদারীর ফল হলো ওপারে যে আত্মীয়রা আছেন তাদের খোজ খবর জানা নেই শুলুকের মতো লিটল ডাইমিডের বাসিন্দাদের।

দ্বিপের বাসিন্দারা ভুলে যাচ্ছেন আদি ভাষা। এখন তারা ইংরেজিতে কথা বলেন। কিন্তু ওপারে আত্মীয়রা বলেন রুশ ভাষা। তাদের সাথে দেখা হওয়ার সম্ভাবনাও ইদানীং দেখছেন না লিটল ডাইমিড দ্বিপের বাসিন্দারা কেননা ইদানীং ওপাশে রাশিয়ার সামরিক উপস্থিতি আরো শক্ত হচ্ছে।

লিটল ডাইমিড দ্বিপের সবচেয়ে কাছে মার্কিন বিমান ঘাটিতে প্লেনে করে যেতে এক ঘণ্টা সময় লাগে।

সেখানকার কমান্ডার কর্নেল প্যাট্রিক কার্পেন্টিয়ের বলছেন, এই এলাকায় নতুন করে আবার ঠাণ্ডা যুদ্ধের সময়ের মতো উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। কারণ তারা নতুন একটি আর্কটিক কমান্ড সেন্টার খুলেছে। ঠাণ্ডা যুদ্ধের সময়কার ঘাটিগুলোও আবার চালু করতে শুরু করেছে।

এসব সামরিক কর্মকাণ্ডের পেছনের কারণ আর্কটিক সার্কেলে খোজ মিলেছে অনেক প্রাকৃতিক সম্পদের। সেগুলোর দিকে নজর দিচ্ছে সবাই।

ভূতাত্ত্বিক জরীপের জন্য হাজারো মাইল দুর থেকে চলে আসছেন গবেষকরা। প্রাকৃতিক সম্পদ পাওয়ার সম্ভাবনা যত বাড়ছে তা পরিবহনে নতুন করে জাহাজের রুটও চালু হচ্ছে।

কিন্তু লিটল ডাইমিড আর বিগ ডাইমিডের মধ্যেকার মাত্র দুই মাইলের দূরত্ব ঘোচানোর উদ্যোগ দেখছেন না দ্বীপের বাসিন্দারা। সূত্র: বিবিসি বাংলা

প্রকাশিত : ২ সেপ্টেম্বর ২০১৫, ০৩:০৯ পি. এম.

০২/০৯/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ:
ছাতকে কওমি ও আলিয়া মাদ্রাসা ছাত্রদের সংঘর্ষ ॥ হত ১ আহত শতাধিক || সমতাভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠায় আসছে এবারের বাজেট || রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে প্রথম প্রবন্ধ লেখেন আবদুল হক || মিতু হত্যা-তদন্ত কোন্্দিকে মোড় নেবে- যা লিখেছে বাবুল ফেসবুকে || ২৮ কোম্পানির ওষুধ উৎপাদন বন্ধের নির্দেশ হাইকোর্টের || সামুদ্রিক মৎস্য আইনের খসড়ায় মন্ত্রিসভার নীতিগত অনুমোদন || কিলারদের সঙ্গে মোবাইলে সারাক্ষণ যোগাযোগ রাখত কাদের খান || জুলাই থেকে নতুন ভ্যাট আইন কার্যকর হবে || পিলখানা হত্যাযজ্ঞে দ-িত ২২ পলাতক বিডিআর সদস্যকে ধরার নির্দেশ || মোবাইল ব্যাংকিং ॥ লেনদেন সীমা কমিয়ে দেয়ায় বিপাকে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা ||