আংশিক রৌদ্রজ্জ্বল, তাপমাত্রা ২০ °C
 
২৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৭, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

চিক টেক্সটাইলের দুই পরিচালককে চার বছর করে কারাদণ্ড

প্রকাশিত : ১ সেপ্টেম্বর ২০১৫
  • ’৯৬ সালের শেয়ার কেলেঙ্কারি ॥ এসইসির প্রথম রায়

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ ১৯৯৬ সালের শেয়ার কেলেঙ্কারিতে কারসাজির মাধ্যমে কৃত্রিমভাবে শেয়ার দর বাড়ানোয় চিক টেক্সটাইলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও এক পরিচালককে চার বছর করে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে আসামিদের প্রত্যেককে ৩০ লাখ টাকা করে জরিমানাও করা হয়েছে। এ ছাড়া জরিমানা পরিশোধ না করলে আসামিদের আরও ছয় মাস কারাদণ্ড দিয়েছেন পুঁজিবাজার বিষয়ক বিশেষ ট্রাইব্যুনাল। দ-প্রাপ্ত আসামিরা হলেন- চিক টেক্সটাইলের পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার মোঃ মাকসুদুর রসূল ও ইফতেখার মোহাম্মদ। রায় ঘোষণার সময় আসামিরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন না। সোমবার বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশনে অবস্থিত পুঁজিবাজার বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক হুমায়ুন কবির (জেলা ও দায়রা জজ) এ রায় ঘোষণা দেন। এ সময় তিনি এ মামলার পুরো রায় পড়ে শোনান।

রায়ে বলা হয়েছে, এই মামলার ঘটনা ও পারিপার্শ্বিক অবস্থার আলোকে বাদী পক্ষের উপস্থিতিতে সাক্ষ্যসমূহ পর্যালোচনা ও মূল্যায়ন করে দেখা যায় যে, বাদী পক্ষের আনীত অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করেছে। কাজেই আসামিরা শাস্তি পাবে।

রায়ে আরও বলা হয়, চিক টেক্সটাইলের পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার মোঃ মাকসুদুর রসূল ও ইফতেখার মোহাম্মদ উভয়কে সিকিউরিটিজ এ্যান্ড এক্সচেঞ্জ অধ্যাদেশ, ১৯৬৯-এর ২৪ ধারা অনুযায়ী দোষী সাব্যস্ত করে প্রত্যেককে চার বছর করে কারাদণ্ড ও ৩০ লাখ টাকা জরিমানা করা হলো। এ ছাড়া এ জরিমানার অর্থ পরিশোধ না করলে তাদের আরও ছয় মাসের কারাদণ্ড দেয়ার নির্দেশ দেয়া হলো। সাজাপ্রাপ্তদের কাছ থেকে আদায় করা জরিমানার অর্থ সরকার ইচ্ছা করলে ঘটনার সময় ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের স্বার্থে ব্যয় করতে পারবে।

একইসঙ্গে রায়ে উল্লেখ করা হয়েছে, অভিযুক্তরা গ্রেফতার বা আত্মসমর্পণ করার দিন থেকেই তাদের শাস্তির মেয়াদ গণনা করা হবে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে রায়ের অনুলিপি চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি), পুলিশ কমিশনার, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) ও বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট বরাবর পাঠান হলো।

এ বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মাসুদ রানা খান বলেন, চিক টেক্সটাইলের মামলা সংক্রান্ত যাবতীয় নথিপত্র ও যুক্তিতর্ক আদালতের কাছে উপস্থাপন করেছি। এ মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের সবকিছু প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছি। যার পরিপ্রেক্ষিতে বিজ্ঞ আদালত সার্বিক দিক বিবেচনা করে এ রায় ঘোষণা দেন। এর আগে গত ২৭ আগস্ট এ মামলার রায় ৩১ আগস্ট ধার্যের ঘোষণা দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল।

জানা গেছে, চিক টেক্সটাইলের শেয়ার কেলেঙ্কারি মামলার আসামিরা হলেনÑ কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার মোঃ মাকসুদুর রসূল ও পরিচালক ইফতেখার মোহাম্মদ। এ ছাড়া মামলায় চিক টেক্সটাইল কোম্পানিকেও আসামি করা হয়। বিশেষ আদালতে মামলা শুরু হলেও আসামিদের কেউই আদালতে হাজির ছিলেন না, কিংবা তাদের পক্ষে কোন আইনজীবীও আদালতে ছিলেন না। ১৯৯৬ সালে চিক টেক্সটাইলের শেয়ারের দর কৃত্রিমভাবে বাড়ানোর অভিযোগে আসামি দু’জনের বিরুদ্ধে মামলা করে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি। পরবর্তী সময়ে তারা উচ্চ আদালত থেকে জামিন নেন। কিন্তু বিশেষ ট্রাইব্যুনালে বিচার কাজ শুরু হওয়ার পর আদালতে হাজিরা না দেয়ায় গত ২৮ জুন গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছিলেন আদালত।

এর আগে চিক টেক্সটাইলের মামলায় ৬ জুলাই বাদী হিসেবে প্রথম সাক্ষী দেন বিএসইসির সাবেক চেয়ারম্যান মনির উদ্দিন আহমেদ। ২৫ আগস্ট মঙ্গলবার পুঁজিবাজার বিষয়ক বিশেষ ট্রাইব্যুনালে জবানবন্দী দেন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সহকারী মহাব্যবস্থাপক মোঃ রুহুল খালেক ও সিনিয়র এক্সিকিউটিভ দেলোয়ার হোসেন।

মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, ১৯৯৬ সালের জুলাই থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে আসামিরা চিক টেক্সটাইলের শেয়ারের দর বাড়ানোর লক্ষ্যে বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে প্রতারণামূলক কর্মকাণ্ড করেছেন। ওই সময় বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে প্রতারণার মাধ্যমে ভাল মুনাফা করার জন্য ইঞ্জিনিয়ার মোঃ মাকসুদুর রসূল ৮ লাখ ২৮ হাজার ৪৬৪টি ও পরিচালক ইফতেখার মোহাম্মদ ৮ লাখ ৩৫ হাজার শেয়ার অপারেট করেন, যার পরিপ্রেক্ষিতে ১৯৯৭ সালের ২৭ মার্চ পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি সিকিউরিটিজ এ্যান্ড এক্সচেঞ্জ অধ্যাদেশ ১৯৬৯-এর ২১ ধারা অনুযায়ী একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে।

পরে ১৯৯৭ সালের ২ এপ্রিল বিএসইসির ওই সময়ের নির্বাহী পরিচালক এম এ রশীদ খান বাদী হয়ে তদন্তের সকল প্রমাণাদিসহ আসামিদের বিরুদ্ধে ঢাকা মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে মামলা করেন। পরবর্তী সময়ে ১৯৯৯ সালে মহানগর দায়রা জজ আদালতে মামলাটি স্থানান্তর করা হয়। পুঁজিবাজার বিশেষ ট্রাইব্যুনালে মামলাটির নতুন নম্বর দেয়া হয় ১/২০১৫।

উল্লেখ্য, ১৯৯৬ সালের বহুল আলোচিত শেয়ার কেলেঙ্কারি মামলার এটিও প্রথম রায়। যদিও বিশেষ ট্রাইব্যুনাল ফেসবুকের মাধ্যমে শেয়ার কারসাজির কারণে একজন এবং বিডি ওয়েল্ডিং শেয়ার কেলেঙ্কারির মামলার পৃথক দুুটি রায় ঘোষণা করেছিলেন। তবে বিনিয়োগকারীদের দীর্ঘদিনের দাবি আলোচিত ১৯৯৬ সালের মামলার এটিই প্রথম রায়। এতে বিনিয়োগকারীদের মাঝেও কিছুটা স্বস্তি ফিরে এসেছে। আলোচিত মামলারগুলোর মধ্যে চিক টেক্সটাইলের মামলাটি অন্যতম। এছাড়া চিটাগাং সিমেন্ট কেলেঙ্কারির মামলাও বিচারাধীন রয়েছে। এই মামলার অন্যতম আসামি হলেন ডিএসইর সাবেক সভাপতি মোঃ রকিবুর রহমান ও শহীদুল হক বুলবুল।

প্রকাশিত : ১ সেপ্টেম্বর ২০১৫

০১/০৯/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ:
ছাতকে কওমি ও আলিয়া মাদ্রাসা ছাত্রদের সংঘর্ষ ॥ হত ১ আহত শতাধিক || সমতাভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠায় আসছে এবারের বাজেট || রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে প্রথম প্রবন্ধ লেখেন আবদুল হক || মিতু হত্যা-তদন্ত কোন্্দিকে মোড় নেবে- যা লিখেছে বাবুল ফেসবুকে || ২৮ কোম্পানির ওষুধ উৎপাদন বন্ধের নির্দেশ হাইকোর্টের || সামুদ্রিক মৎস্য আইনের খসড়ায় মন্ত্রিসভার নীতিগত অনুমোদন || কিলারদের সঙ্গে মোবাইলে সারাক্ষণ যোগাযোগ রাখত কাদের খান || জুলাই থেকে নতুন ভ্যাট আইন কার্যকর হবে || পিলখানা হত্যাযজ্ঞে দ-িত ২২ পলাতক বিডিআর সদস্যকে ধরার নির্দেশ || মোবাইল ব্যাংকিং ॥ লেনদেন সীমা কমিয়ে দেয়ায় বিপাকে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা ||