কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

কবিতা

প্রকাশিত : ৪ জুলাই ২০১৫

বিষ্টি পড়ে

পৃথ্বীশ চক্রবর্ত্তী

বিষ্টি পড়ে

টামুর-টুমুর

টুপুর টা

বাজে মিথির

ঝামুর-ঝুমুর

নুপুরটা।

বৃষ্টি

ব্রত রায়

বৃষ্টি পড়ে ভীষণ জোরে,

বৃষ্টি পড়ে আস্তে –

মনটা আমার ময়ূর হয়ে

বৃষ্টিতে চায় নাচতে!

বিজলি যে চোখ ঝলসে দিল,

পড়ল বুঝি বাজ রে–

ক্যান্ জানি না বইয়ের পাতায়

মন বসে না আজ রে!

ইচ্ছে করে প্রাণ ভরে নেই

কদম ফুলের গন্ধ

ইচ্ছেগুলো শাসন নামের

খাঁচায় থাকে বন্ধ!

বৃষ্টিজলে নৌকা ভাসাই

ভীষণ করে ইচ্ছে –

নগরজীবন আমার সকল

ইচ্ছে কেড়ে নিচ্ছে!

নামল দেয়া

আবেদীন জনী

টাপুর টুপুর নামল দেয়া

ভিজল কদম ভিজল কেয়া

ভরল ডোবা খাল নদী বিল

পারের ঘাটে ভাসল খেয়া।

ডোবার জলে নাচল ব্যাঙ

উঠল দুলে ব্যাঙের ঠ্যাং

খুশির চোটে গা ভাসিয়ে

গাইল গানা ঘ্যাঙর ঘ্যাঙ।

ঝুম ঝুমাঝুম

আবদুল হামিদ মাহবুব

বৃষ্টি পড়ে ঘরের চালে

গাছের ডালে পাতায় পাতায়

বৃষ্টি পড়ে মাঠে খালে

পথিক জনের ছাতায় ছাতায়।

বৃষ্টি পড়ে নদীর জলে

ঘোমটা নায়ের ছইয়ের পরে

বৃষ্টি পড়ে বটের তলে

গরীবের ছনের ঘরে।

বৃষ্টি পড়ে ব্যাঙের মাথায়

ঘ্যাঙর ঘ্যাঙর ডাকের সুরে

বৃষ্টি পড়ে খোকার খাতায়

ইশকুলে যে গেছে ভোরে।

বৃষ্টি পড়ে মিষ্টি করে

ঝুম ঝুমাঝুম শব্দ তোলে

বৃষ্টি পড়ে ছাদটা ভরে

টবের ফুলে দোদুল দোলে।

বর্ষা

সনজিত দে

আকাশ যখন গোমড়া মুখো

ঋতু তখন বর্ষা

হঠাৎ যখন মেঘ সরে যায়

দেখায় তাকে ফর্সা।

কখনো বা কালো মেঘে

পড়বে আকাশ ঢাকা

অঝোর ধারায় বৃষ্টি নামে

মাঠ হয়ে যায় ফাঁকা।

জল থৈ থৈ মাঠ-ঘাট সব

তল খুঁজে আর পাই না

বানে ভাসা বর্ষা এমন

চাই না আমি চাই না।

অপূর্ব সৃষ্টি

জুলফিকার আলী

বৃষ্টি পড়ে টাপুর টুপুর,

সকাল-সন্ধ্যা,রাত-দুপুর।

বৃষ্টির ছন্দে,নাচে মন আনন্দে,

পেয়ে কাব্য-গানের সুর সানন্দে।

কাব্য-গানের মিষ্টি সুর,

আষাঢ়-শ্রাবণে বিষ্টি মধুর।

বিষ্টি মধুর, মিষ্টি মধুর,

কান্না ঝরে মেঘের টাপুর-টুপুর

ছলছলাছল বৃষ্টি পড়ে,

কাব্য-গানের সৃষ্টি করে।

বৃষ্টিরে বৃষ্টি,তুই বড় মিষ্টি,

বিধাতার অপূর্ব সৃষ্টি।

প্রকাশিত : ৪ জুলাই ২০১৫

০৪/০৭/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: