কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

সিংহমূর্তিসহ মূল্যবান প্রত্নসম্পদ ধ্বংস

প্রকাশিত : ৪ জুলাই ২০১৫
  • পালমিরায় আইএস জঙ্গীদের বর্বরতা

সিরিয়ার প্রাচীন নিদর্শনের পরিচালক বলেছেন, ইসলামিক স্টেট (আইএস) পালমিরায় বিখ্যাত সিংহমূর্তি ধ্বংস করে দিয়েছে। জাতিসংঘের সাংস্কৃতিক সংস্থা ইউনেস্কোর প্রধান বলেছেন, আইএস ইরাক ও সিরিয়ায় প্রাচীন নিদর্শনগুলো বাণিজ্যিকভাবে লুট করছে এবং নগদ অর্থের জন্য মূল্যবান সম্পদ হিসেবে দালালদের কাছে বিক্রি করে দিচ্ছে সেগুলো। খবর আল-জাজিরা অনলাইনের।

ইউনেস্কো প্রধান ইরিন বোকোভা বৃহস্পতিবার লন্ডনে বিশেষজ্ঞদের এক বৈঠকে বলেন, ইরাকে ইউনেস্কো স্বীকৃত বিশ্ববিখ্যাত প্রায় ১০ হাজার প্রাচীন নিদর্শনের মধ্যে এক-পঞ্চমাংশ এখন আইএসের নিয়ন্ত্রণে এবং এগুলোর মধ্যে অনেক নিদের্শন লুট করে নিয়ে যাচ্ছে তারা। তিনি বলেন, এটা স্পষ্ট নয় যে আরও কয়েক হাজার নিদর্শন এলাকায় কী ঘটছে। তিনি বলেন, সিরিয়ায় কোন কোন প্রাচীন নিদর্শন স্থানে এমন শোচনীয়ভাবে লুটতরাজ করা হয়েছে যে, ঐতিহাসিক ও প্রতœতত্ত্ব¡বিদদের কাছে সেগুলোর কোন মূল্য থাকছে না আর ইউনেস্কো লিবিয়ার ব্যাপারে ক্রমেই আরও উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ছে।

আইএস নিয়ন্ত্রিত এলাকায় বিশ্বের সবচেয়ে সমৃদ্ধ বেশকিছু প্রতœসম্পদ রয়েছে। এ অঞ্চলে প্রাচীন এ সিরীয়রা তাদের সাম্রাজ্যের রাজধানী প্রতিষ্ঠা করেছিল এবং গড়ে ওঠেছিল গ্র্যাকোরোমান সভ্যতা। মুসলমান ও খ্রিস্টানরা এখানে সহ-অবস্থান করছে কয়েক শতাব্দী ধরে। সিরিয়ার যাদুঘরও প্রাচীন নিদর্শন পরিচালক মামুন আবদেল করিম বলেন, পালমিরা শহরে যাদুঘরের বাইরে বিখ্যাত সিংহমূর্তি আইএস জঙ্গীরা গুঁড়িয়ে দিয়েছে। তিনি বলেন, লায়ন অব আল-লাত বলে পরিচিত ২ হাজার বছরের পুরনো এ মূর্তিটি গত বৃহস্পতিবার ধ্বংস করে দিয়েছে আইএস জঙ্গীরা। মূর্তিটি মাটি খুঁড়ে আবিষ্কার করা হয় ১৯৭৭-এ। অনন্য সাধারণ এ মূর্তিটি ছিল ৩ মিটার লম্বা এবং ওজন ১৫ টন। মরুভূমির কনে বলে পরিচিত মরুদ্যান শহর পালমিরায় রয়েছে অসংখ্য ধ্বংসস্তূপ ও প্রাচীন নিদর্শনের চমৎকার সংগ্রহ।

আইএস মে’তে সরকারী সৈন্যদের কাছ থেকে ইউনেস্কোর এ বিশ্ব পুরাকীর্তি শহর দখল করে নেয়। এখনও পর্যন্ত শহরের বেশিরভাগ নিদর্শন অক্ষত রয়েছে। কিন্তু পার্শ¦বর্তী বেশ কয়েকটি ধর্মীয় নিদর্শন উড়িয়ে দেয়া হয়েছে। আইএসের জঙ্গীরা বৃহস্পতিবার আলেপ্পোতে পালমিরার কয়েকটি মূর্তি গুঁড়িয়ে দেয়ার আলোকচিত্র প্রকাশ করেছে। মূর্তিগুলো উত্তরাঞ্চলীয় প্রদেশের মধ্যদিয়ে পাচার করা হচ্ছিল। আইএস অনলাইনে এক বিবৃতিতে বলেছে, পালমিরা থেকে মূর্তিপাচারকারী ১ জনকে আটক করেছে। মিনবেজ শহরে ইসলামী আদালতে তাকে নেয়া হয়। বোকোভা লন্ডনে রয়্যাল ইউনাইটেড সার্ভিসেস ইনস্টিটিউট বলেন, এ পুরাকীর্তি ধ্বংস বিষয়টি সমসাময়িক ইতিহাসে এক নজিরবিহীন পর্যায়ে পৌঁছেছে। তিনি বলেন, এ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ধ্বংসযজ্ঞ কেবল অব্যাহতই থাকছে না, এটা চলছে সুশৃঙ্খলভাবে। বিশেষ করে ইরাকে প্রতœতাত্ত্বিক স্থানের ও যাদুঘরে যে লুটতরাজ চলছে তা বাণিজ্যিক পর্যায়ে পৌঁছেছে। তিনি বলেন, এ সংস্কৃতির এ ধরনের উচ্ছেদের লক্ষ হচ্ছে মানবতার অভিন্ন শেকড়কে উপড়ে ফেলা। কিন্তু এটা জঙ্গীদের অর্থায়নেও উৎস হয়ে ওঠছে। তারা স্থানীয় কৃষকদের প্রাচীন নিদর্শনস্থান খনন এবং তা পাচারের দায়িত্ব অর্পণ করছে।

প্রকাশিত : ৪ জুলাই ২০১৫

০৪/০৭/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

বিদেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: