কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

পাঞ্জাবির সঙ্গে ‘মোদি কোট’ ঈদ ফ্যাশনে নতুন মাত্রা

প্রকাশিত : ৩ জুলাই ২০১৫
পাঞ্জাবির সঙ্গে ‘মোদি কোট’ ঈদ ফ্যাশনে নতুন মাত্রা
  • ঈদের কেনাকাটা

রহিম শেখ ॥ ঈদ উপলক্ষে মেয়েদের কেনাকাটা স্বাভাবিকের তুলনায় একটু বেড়ে যায়। তবে ছেলেদের ঈদের কেনাকাটা কোন অংশে কম নয়। ঈদ যতোই ঘনিয়ে আসছে ততোই যেন রাজধানীর বিভিন্ন মার্কেট ও শপিংমলগুলোতে ছেলেদের কেনাকাটা জমে উঠছে। ঈদ উৎবের সঙ্গে এবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নামটিও বিশেষভাবে যুক্ত হয়েছে। তবে তা অনেকটাই ভিন্ন মেজাজে। ঈদে মোদির স্টাইলে সাজবেন ফ্যাশন সচেতন শহুরে তরুণরা। তারা পরবেন নরেন্দ্র মোদির প্রিয় ‘মোদি কোট’। সঙ্গে হাল্কা রংয়ের পাঞ্জাবি। তাই রাজধানীর অভিজাত বিপণি-বিতানে এখন মোদি কোট বিক্রির ধুম পড়েছে। বিক্রেতারা বলছেন, পাঞ্জাবির সঙ্গে মোদির কটি বা ‘মোদি কোট’ ঈদ ফ্যাশনে ভিন্ন এক মাত্রা যোগ করেছে। ছেলে বা তরুণদের কেনাকাটা শুধু পাঞ্জাবিতেই থেমে থাকছে না। বরং সময়পোযোগী বিভিন্ন ডিজাইন ও রঙের শার্ট, টি-শার্ট ও প্যান্টে রয়েছে তাদের শপিং তালিকায়। সেজন্য বিভিন্ন নামি-দামি হাউসগুলোতে ঘোরাঘুরি করে নিজের পছন্দের সেরা জিনিসটি কিনে বাড়ি ফিরে যাচ্ছেন হাল আমলের ফ্যাশন সচেতন তরুণরা।

সম্প্রতি নরেন্দ্র মোদি বাংলাদেশে এসে তার ক্যারিশমেটিক বক্তব্য দিয়ে তরুণদের মন জয় করে নেন। তাই ফ্যাশন ডিজাইনাররাও এ সুযোগটি হাতছাড়া করতে চাননি। তড়িঘড়ি ঈদের বাজার ধরতে বাহারি পাঞ্জাবির সঙ্গে নিয়ে আসেন মোদি কোট। বিক্রিও বেশ। অনেকে মোদি কোট শুনেই বেশি দরাদরি করছেন না। আর বাড়তি চাহিদার কথা চিন্তা করে ব্যবসায়ীরাও এবার প্রচুর পরিমাণে ভারত থেকে মোদি কোট আমদানি করছেন। রাজধানীর যমুনা ফিউচার পার্কের ফ্যাশন হাউসগুলোতে শোভা পাচ্ছে মোদি কোটের ডিসপ্লে। লাল, নীল, পার্পল, বেগুনসহ বাহারি সব রংয়ের কোট ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে দোকানে। তরুণ ক্রেতারা ফ্যাশন হাউসগুলোতে পা দিয়েই এসব কোটে হাত বুলিয়ে দেখছেন। কেউ কেউ দেখছেন কোটের সুতো, কেউ রং, কেউ আবার দেখছেন কোটের গায়ে বাহারি সুতোর কাজ। তরুণদের আগ্রহের কেন্দ্রে থাকা এসব মোদি কোটের বেশিরভাগই আমদানি করা। বিক্রেতারা জানিয়েছেন, ভারতের বোম্বে, কোলকাতা ও বিহার থেকে মোদি কোট আমদানি করা হচ্ছে বেশি।

যমুনা ফিউচার পার্কে মোদি কোট কিনতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মনির হোসেন জানান বলেন, কিছুদিন আগে বাংলাদেশ সফরের সময় মোদির দেয়া বক্তব্য সরাসরি শোনার সৌভাগ্য হয়েছিল তার। তিনি মন্ত্রমুগ্ধের মতো মোদির প্রতিটি শব্দ শুনেছেন। এরপর থেকেই তিনি নরেন্দ্র মোদির ভক্ত হয়ে গেছেন। মোদির স্টাইলও ফলো করছেন তিনি। মনির বলেন, তাই এবার তিনি পাঞ্জাবির সঙ্গে মিলিয়ে মোদি কোট পরবেন। শুধু তিনি নন- বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক বন্ধু মিলে এবার তারা ঈদে মোদি কোট পরবেন বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি শপিংমল ঘুরে দেখা যায়, বিভিন্ন দোকানের সামনে মোদি কোট ও পাঞ্জাবি পরা ডামি সাজিয়ে রাখা হয়েছে। ভিন্ন কৌতূহলে এসব কোট নেড়েচেড়ে দেখছেন ক্রেতারা। বিক্রেতারা জানান, এবার মোদি কোট বিক্রি হচ্ছে ২ হাজার থেকে ১২ হাজার টাকা দামের মধ্যে। দেশীয়ভাবে তৈরি মোদি কোটের দাম তুলনামূলক একটু কম। এগুলো বিক্রি হচ্ছে ২ থেকে সাড়ে তিন হাজার টাকার মধ্যে। বুসন্ধরা সিটির ম্যানজ-এর বিক্রয়কর্মী আমানুল করীম জানান, এবারই মোদি কোটের প্রতি তরুণদের সবচেয়ে বেশি আগ্রহ দেখা যাচ্ছে। তিনি বলেন, ঢাকা সফরের সময় নরেন্দ্র মোদি বাংলাদেশের তরুণদের মধ্যে ইতিবাচক অবস্থান করে নিতে সক্ষম হন। এ কারণেই হয়তো তরুণরা এবার ঈদ ফ্যাশনে মোদি কোট যুক্ত করতে চাইছে। রাজধানীর গুলশান-২ এর মান্যবর ফ্যাশন হাউসের বিক্রয়কর্মীরা জানান, এবার তারা মোদি কোট বিক্রিতে প্রচুর সাড়া পাচ্ছেন। বিশেষ করে তরুণরা দোকানে এসেই মোদি কোট চাচ্ছেন। গুলশান-১ এ অবস্থিত ফ্যাশন হাউস ‘জারা ফ্যাশন’-এ গিয়ে দেখা যায়, মোদি কোটের প্রচুর কালেকশন। এসব কোটের বেশিরভাগই আমদানি করা। লিলেন, কটন, সিফন ও চাইনিজ রেশমের কাপড়ে তৈরি মোদি কোট পাওয়া যাচ্ছে এ ফ্যাশন হাউসে। এবারের ঈদে ছেলেদের আকর্ষণ কারচুপি কাজ করা পাঞ্জাবির ওপর। বেশির ভাগ তরুণই এ পোশাক কিনতে আগ্রহ দেখাচ্ছেন। তরুণদের আগ্রহের এ পাঞ্জাবির দাম পড়ছে ১১৯০ থেকে ২০০০ টাকার মধ্যেই। পাঞ্জাবিগুলো মূলত তৈরি হচ্ছে কটন ও সিল্কের ওপর।

ঈদ উৎসবে ছেলেদের পোশাকে পাঞ্জাবির পাশাপাশি রয়েছে বাহারি শার্ট। ফরমাল, সিøম ফিট, হাফ শার্ট, পোলো ও টি-শার্ট নিজ নিজ পছন্দ অনুযায়ী বেছে নিচ্ছেন তরুণ থেকে শুরু করে বয়সীরা। এছাড়া জিন্স আর ফরম্যাল প্যান্টের সঙ্গে রয়েছে গ্যাবাডিন ও স্টিচ প্যান্ট। রাজধানীর শপিং মল ও ফ্যাশন হাউসগুলো সাজেছে পাঞ্জাবির পসরা নিয়ে। সময়টা বর্ষাকাল, তাই এ ঋতুকে মাথায় রেখে এবার ঈদে উজ্জ্বল রঙের প্রাধান্য রয়েছে পাঞ্জাবিতে। পাওয়া যাচ্ছে লাল, খয়েরি, কমলা, নীল, সবুজ, হলুদ ও বেগুনীসহ নানা রঙের পাঞ্জাবি। ছেলেদের ফ্যাশনের অন্যতম অনুসঙ্গ শার্ট। ঈদ উপলক্ষে তাই বিভিন্ন ফ্যাশন হাউস ও বিপণী-বিতানগুলো এনেছে শার্ট ও টি-শার্টের নতুন সম্ভার। শার্টের ডিজাইনেও এবার নতুনত্ব এসেছে। শার্টের মধ্য সিøম ফিট ক্যাজুয়াল শার্টই তরুণদের বেশি পছন্দ। ফরমাল শার্টও কিনছেন কেউ কেউ। এছাড়া পোলো, ভি-গলার টি-শার্টও এবার বেশ চলছে। চেক, স্টাইপ ও এক রঙের শার্টে নানারকম বোতাম ব্যবহার করে আনা হয়েছে বৈচিত্র। ঘণ্টার পর ঘণ্টা বিভিন্ন দোকান ঘুরে পছন্দের পোশাক কিনছেন ক্রেতারা। আজিজ মার্কেটে কথা হয় ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী আরেফিনের সঙ্গে। তিনি বলেন, রোজা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভিড় আরও বাড়বে। তাই আগেভাগেই কিনতে আসলাম। যেহেতু এবারের ঈদ গরম আর বৃষ্টিতে তাই টি-শার্ট কিনলাম। আজিজে ৩৫০ থেকে ৫০০ টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে বাহারি ডিজাইনের সব টি-শার্ট। পাওয়া যাচ্ছে পলো টি-শার্টও। তবে পলো টি-শার্টের ক্রেতাদের বাজেট একটু বাড়াতে হবে। ৪০০ থেকে ৭০০ টাকা গুণতে হবে তাদের।

প্রকাশিত : ৩ জুলাই ২০১৫

০৩/০৭/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: