আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

অষ্টম শ্রেণির পড়াশোনা

প্রকাশিত : ১ জুলাই ২০১৫
  • সাধারণ বিজ্ঞান

শিক্ষার্থী বন্ধুরা, আজ ৫ম অধ্যায় থেকে একটি সৃজনশীলমূলক প্রশ্নোত্তর নিয়ে পড়াশোনা করব।

অধ্যায়-৫

সমন্বয় ও নিঃসরণ

অনুচ্ছেদ: নাফিম গাড়ি নিয়ে খেলার সময় হঠাৎ গাড়ির একটি পিনে ওর হাতে খোঁচা লাগল। সাথে সাথে ও চিৎকার করে উঠলো এবং কাঁদতে লাগল। শিখা ওর কান্না থামানোর জন্য ওকে কিছু চকলেট দিল। এখন ওকে খুব আনন্দিত লাগচ্ছে।

নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর লিখ:

১.স্নায়ু তাড়না কী?

২.স্নায়ুতন্ত্র কাকে বলে?

৩.স্নায়ুতন্ত্রের প্রবাহ চিত্রটি এঁকে বুঝাও কিভাবে এবং কী কী উদ্দীপনা নিউরণের মাধ্যমে দেহের বিভিন্ন স্থানে একত্রিত হয়?

৪.হাতে পিন ফোট কী কারণে দ্রুতিবর্ত ক্রিয়ার উদাহরণ ব্যাখ্যা করে বুঝাও।

উত্তর:১. স্নায়ুর ভিতর দিয়ে যে সংবাদ বা অনুভ’তি প্রবাহিত হয় তাকে স্নায়ু তাড়না বলে।

২. প্রাণীদেহের যে তন্ত্র দেহের বিভিন্ন অঙ্গের সংযোগ রক্ষা করে, বিভিন্ন জৈবিক কার্যাবলীর সমন্বয় সাধন করে এবং উদ্দীপনায় সারা দিয়ে উপযুক্ত প্রতিবেদন সৃষ্টি করার মাধ্যমে পরিবেশের সাথে সম্পর্ক রক্ষা করে তাকে স্বায়ুতন্ত্র বলে।

৩.স্নায়ুতন্ত্রের প্রবাহ

একটি নিউরনের প্রলম্বিত অংশে অ্যাপ্রন এবং ডেনড্রেন থাকে। ডেনড্রন থেকে সৃষ্ট শাখাগুলো ডেনড্রাইট বলে। এদের দ্বারা স্নায়ুতাড়না নিউরনের দেহের দিকে পরিবাহিত হয়।

একটি স্নায়ুকোষের অ্যাপ্রন অন্য একটি স্নায়ুকোষের ডেনড্রনের সাথে মিলিত হওয়ার স্থানকে সিন্যাপস বলে। অর্থাৎ সিন্যাপস দুই স্নায়ুকোষের মিলনস্থল। সিন্যাপসের মাধ্যমেই স্নায়ুতাড়না এক কোষ থেকে অন্য কোষে পরিবাহিত হয়।

উদ্দীপনা বাহন করা, প্রাণীদেহের ভিতরের ও বাইরের পরিবেশের সাথে সংযোগ রক্ষা করা, প্রাণীদেহের বিভিন্ন অঙ্গের মধ্যে কাজের সমন্বয় সাধন করা, মস্তিষ্কে স্মৃতিধারণ করা, চিন্তা করা ও বিভিন্ন কাজের নির্দেশ দেয়া ও পরিচালনা করা ইত্যাদি কাজ নিউরনের মাধ্যমে দেহের বিভিন্ন অঙ্গে প্রবাহিত হয়।

৪.যে ক্রিয়া অনুভূতির উত্তেজনা দ্বারা উৎপন্ন হয়, মস্তিষ্ক দ্বারা চালিত হয় ন্ াতাকে প্রতিবর্ত ক্রিয়া বলে। প্রতিবর্ত ক্রিয়া ঘটে স্নায়ুর তাড়নার তাৎক্ষণিক কার্যকারিতা ফলে এই ক্রিয়ার মাধ্যমে তাৎক্ষণিকভাবে ঘটে যাওয়া যে দুর্ঘটনার কোন আত্মরক্ষা করা হয়। হাতে পিন ফোটা প্রতিবর্ত ক্রিয়ার উদাহরণ। কারণ হাতের চামড়ায় পিন ফোটামাত্র অনুভূতিবাহী স্নায়ুতন্ত্র পিন ফোটার যন্ত্রণা গ্রহণ করে। তাই যন্ত্রণাদায়ক তাড়না অনুভূতিবাহী স্নায়ুতন্তুর মাধ্যমে মেরুরজ্জুতে পৌঁছায়। ঐ একই তাড়না অনুভূতিবাহী স্নায়ুকোষ থেকে আজ্ঞাবাহী স্নায়ুতে প্রবাহিত হয়। স্নায়ুতাড়না আজ্ঞাবাহী কোষে পৌঁছামাত্র পেশিতে প্রেরণ করে। ফলে পেশি সংকুচিত হয় এবং যন্ত্রণার উৎস থেকে হাত সরিয়ে দেয়।

এখানে জটিল একটি প্রক্রিয়া সহজ করে বুঝানো হয়েছে। আসলে পিন ফুটানোর সঙ্গে সঙ্গে বেশকিছু অনুভূতিবাহী স্নায়ু উদ্দীপনা গ্রহণ করে। এ উদ্দীপনা অনেকগুলো পরস্পর সংযুক্ত স্নায়ুকোষের মাধ্যমে অনেকগুলো আজ্ঞাবাহী কোষে প্রবাহিত হয়। এসব আজ্ঞাবাহী স্নায়ু পেশিতে উদ্দীপনা বহন করে হাত সরিয়ে আনে। অনুভূতি মস্তিষ্কেও পৌঁছায় ফলে কী ঘটছে শরীর তা জানতে পারে। তাই বলা যায়, হাতে পিন ফোটা প্রতিবর্ত ক্রিয়ার উদাহরণ।

প্রকাশিত : ১ জুলাই ২০১৫

০১/০৭/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: