রৌদ্রজ্জ্বল, তাপমাত্রা ২৩.৯ °C
 
৮ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

যেকোন সময় ধসে যেতে পারে ॥ ঝুঁকিপূর্ণ ২৬ ভবন

প্রকাশিত : ২৭ জুন ২০১৫
  • স্থাপনাগুলো ভেঙ্গে ফেলার উদ্যোগ বাস্তবায়িত হচ্ছে না

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট অফিস ॥ সিলেট শহরের ঝুঁকিপূর্ণ ভবনগুলো যেকোন সময় ধসে যেতে পারে। নেপালে ঘটে যাওয়া ভূমিম্পের প্রভাব বিস্তারের পর এ অঞ্চলে এই আশঙ্কা প্রকট হয়ে উঠেছে। নগরীর বিভিন্ন স্থানে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত ভবনগুলো ভেঙ্গে ফেলার উদ্যোগ গ্রহণ করা হলেও তা বাস্তবায়িত হচ্ছে না। সিলেট সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে প্রায় ২৬ টি ভবন চিহ্নিত করা হয়। এর মধ্যে তিন -চারটি ভবন অত্যন্ত আশঙ্কাজনক অবস্থায় রয়েছে। শতাধিক বছরের পুরনো জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয়, জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তার কার্যালয়ের ভবনের ইট -প্লাস্টার আপনা থেকেই খসে পড়ছে।

নির্মাণ কাজে অনিয়মের কারণে জেলা প্রশাসনের একটি ভবন ১৫/২০ বছরের মাথায় পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। তা সত্ত্বেও ভবনটি নানা কাজে ব্যবহৃত হচ্ছ্।ে সিলেট সিটি কর্পোরেশন কর্র্র্তৃক চিহ্নিত প্রতিটি ঝুঁকিপূর্ণ স্থাপনা ব্যবহার হচ্ছে নিয়মিত।

সিলেট সিটি কর্পোরেশন পক্ষ থেকে তালিকা অনুযায়ী দফায় দফায় সংশ্লিষ্ট ঝুঁকিপূর্ণ ভবন ব্যবহারকারীদের নোটিস দেয়া হয়েছে বলে দাবি করা হচ্ছে। কিন্তু সেই নোটিস কেউ আমলে নিচ্ছে না বলে হতাশা প্রকাশ করেছে সিটি কর্পোরেশন। এই তালিকার কয়েকটি ভবন ভেঙ্গে ফেলতে ইতো মধ্যে বেশ তোরজোর করে প্রস্তুতি নেয়া হয়েছিল। কিন্তু সেই উদ্যোগ আবার ঝিমিয়ে যায়। সিটি কর্পোরেশন থেকে পাওয়া নগরীর ঝুঁকিপূর্ণ ২৬ স্থাপনার তালিকায় রয়েছে, সরকারী অফিস, ব্যাংক ভবন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মার্কেট, হোটেল ও ব্যক্তিগত ভবন। এর মধ্যে মধ্যে সরকারী স্থাপনা চারটি, ব্যাংক ভবন একটি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পাঁচটি, মার্কেট সাতটি, হোটেল একটি ও ব্যক্তিগত ভবন রয়েছে আটটি।

ঝুঁকিপূর্ণ স্থাপনাগুলো হলো কালেক্টরেট ভবন-৩, সমবায় ব্যাংক ভবন, মাহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয়, কাস্টমস ও ভ্যাট অফিস ভবন, জেলা এসএ রেকর্ড অফিস, সুরমা মার্কেট, বন্দরবাজার সিটি সুপার মার্কেট, জিন্দাবাজার রহমান প্লাজা, মিতালী ম্যানসন, সিলেট মডেল স্কুল এ্যান্ড কলেজ, সিলেট ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, কারিগরি ইনস্টিটিউট, সিলেট সরকারী অগ্রগামী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, মদিনা মার্কেটের পেছনের কিছু বাসা (তালিকা বাসার নম্বর বা সংখ্যা উল্লেখ করা হয়নি), আজমীর হোটেল, মাহমুদ কমপ্লেক্সের পেছনের বাসা, শেখঘাট পুরাতন পাসপোর্ট অফিসের সাথের বাসা, সিলেট মদনমোহন কলেজের নবনির্মিত ভবন, মধুবন মার্কেট, পূর্ব শাহী ঈদগাহ অনামিকা এ/৭০ (খান কুঞ্জ), সিটির ২১ নং ওয়ার্ডে কালাশীল এলাকার মান্নান ভিউ, বন্দরবাজারের সিটি সুপার মার্কেট, শেখঘাটের শুভেচ্ছা-২২৬ নং বাসা, চৌকিদেখির ৫১/৩ সরকার ভবন, যতরপুরের নবপুষ্প ২৬/এ, জিন্দাবাজারের রাজা ম্যানসন।

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রকৌশলী জানান, স্থাপনাগুলো খালি ও ভেঙ্গে ফেলতে আমরা সকলকে নোটিস পাঠিয়েছি। কেউ কেউ সময় চেয়েছে। অনেকে সময় পার হওয়ার পরও ভবন খালি করেননি। এমন অবস্থায় চরম ঝুঁকিপূর্ণ কয়েকটি ভবন ভাঙ্গতে কিছু দিনের মধ্যে তারা অভিযানে নামবেন। ২৬ ঝুঁকিপূর্ণ স্থাপনার মধ্যে চরম ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে রয়েছে সুরমা মার্কেট, মিতালী ম্যানসন, সিলেট মডেল স্কুল এ্যান্ড কলেজ, সিলেট ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, সিলেট সরকারী অগ্রগামী বালিকা উচ্চবিদ্যালয়, সিলেট মদন মোহন কলেজের নবনির্মিত ভবন ও রাজা ম্যানসন।

প্রকাশিত : ২৭ জুন ২০১৫

২৭/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: