কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

সড়ক দুর্ঘটনায় ১৫ বছরে ৪৫ হাজার মানুষের মৃত্যু

প্রকাশিত : ২৩ জুন ২০১৫

সংসদ রিপোর্টার ॥ ২০১৩ ও ২০১৫ এই দুই বছরে বিএনপি-জামায়াত জোটের সহিংস রাজনৈতিক আন্দোলনে বিআরটিসি’র ২০৫টি গাড়ি পোড়ানো ও ভাংচুর করা হয়েছে। এই ২০৫টিসহ বর্তমানে বিআরটিসিতে মোট ২৯৫টি বাস মেরামতাধীন রয়েছে। এসব বাস মেরামত করে সচল করা হলে বিআরটিসি আরও লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হবে।

সোমবার জাতীয় সংসদে টেবিলে উত্থাপিত প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকারী দলের সংসদ সদস্য এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি জানান, বর্তমানে বিআরটিসি’র ১৫৮টি গাড়ি অকেজো আছে। এসব গাড়ি আর্থিকভাবে মেরামত লাভজনক না হওয়ায় বিইআর ঘোষণার অপেক্ষায় রয়েছে।

সরকারী দলের সংসদ সদস্য ইস্রাফিল আলমের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জানান, গত ১৫ বছরে সারাদেশে বিভিন্ন সড়ক দুর্ঘটনায় ৪৫ হাজার ৪৯৫ জন নিহত হয়েছেন। বাংলাদেশ পুলিশ বিভাগের তথ্যানুসারে, ২০০০ সাল থেকে ২০১৫ সালের এপ্রিল পর্যন্ত মোট ৫৫ হাজার ৩১৬টি সড়ক দুর্ঘটনা হয়েছে। এতে ৪৫ হাজার মানুষ মৃত্যুবরণ ছাড়াও ৩৮ হাজার ৭৭০ জন আহত হয়েছেন।

ট্রেনে ১৫টি অত্যাধুনিক সেলুন ॥ জাতীয় পার্টির সিনিয়র সংসদ সদস্য এ কে এম মাঈদুল ইসলামের প্রশ্নের জবাবে রেলপথ মন্ত্রী মুজিবুল হক জানান, বর্তমানে বাংলাদেশ রেলওয়েতে মোট ১৩টি মিটারগেজ এবং ২টি ব্রডগেজ সেলুন আছে। মিটারগেজ ১৩টির মধ্যে পূর্বাঞ্চলে ১১টি এবং পশ্চিমাঞ্চলে ২টি বরাদ্দ দেয়া আছে।

মন্ত্রী জানান, পূর্বাঞ্চলের ১১টির মধ্যে একটি রাষ্ট্রপতির সেলুন যা মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও সরকার প্রধানের ভ্রমণের জন্য ব্যবহৃত হয়। আর চারটি পরিদর্শন কার (নতুন) ও ৩টি ট্যুরিস্ট কার (পুরাতন) মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ও অন্যান্য ভিআইপিগণের ভ্রমণের জন্য ব্যবহৃত হয়। এগুলোর মধ্যে ট্যুরিস্ট কার (পুরাতন) ৩টি দীর্ঘদিন যাবত অচল আছে।

নুুুরুন্নবী চৌধুরী শাওনের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, বর্তমান সরকার সমগ্র দেশে রেলপথের নেটওয়ার্ক বিস্তৃত করা এবং বাংলাদেশ রেলওয়েকে একটি আধুনিক গণপরিবহন মাধ্যমে রূপান্তরের জন্য রেলওয়ে মহাপরিকল্পনা প্রণয়ন করেছে। রেলওয়ের এই মহাপরিকল্পনা ২০১০ সালের জুন থেকে ২০৩০ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত ৩০ বছর মেয়াদে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। রেলওয়ে মহাপরিকল্পনা পরিপূর্ণ বাস্তবায়িত হলে রেলওয়ে নেটওয়ার্ক প্রায় সকল জেলায় বিস্তৃত হবে।

দেশে ২০৯টি পাটকল চালু ॥ এ কে এম মাঈদুল ইসলামের অপর প্রশ্নের জবাবে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী মুহাম্মদ ইমাজউদ্দিন প্রামাণিক জানান, গত অর্থবছরে অর্থাৎ ২০১৩-১৪ অর্থবছরে ৭৫ লাখ বেল পাট উৎপন্ন হয়েছে। বর্তমানে ২০৯টি পাটকল চালু রয়েছে। চালু মিলগুলোতে মোট শ্রমিকের সংখ্যা ১ লাখ ৯৩ হাজার ৭০১ জন। তিনি জানান, বিজেএমএ’র আওতাধীন ৩৫টি, বিজিএসএ’র ২৬টি সর্বমোট ৬১টি মিল বন্ধ আছে। এসব মিল বন্ধ হওয়ায় বেকার শ্রমিকের সংখ্যা ৫৬ হাজার ১৫৭ জন।

প্রকাশিত : ২৩ জুন ২০১৫

২৩/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: