আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

তারুণ্যের ড্রিম ওয়েভার

প্রকাশিত : ২২ জুন ২০১৫

যে কোন কাজই যদি মন দিয়ে, নিষ্ঠা ও সততার সঙ্গে করা যায় সেখানে সাফল্য অবশ্যই আসবেই, কথাগুলো বলছিলেন, ড্রিম ওয়েভারের স্বপ্নদ্রষ্টা শুভ। আর ফটোগ্রাফিকে পেশা হিসেবে নিতে চাইলে আমি মনে করি এখন সে সময় এসেছে। কিন্তু সেক্ষেত্রে অবশ্যই একটি পেশাদারী মনোভাব নিয়ে কাজ করতে হবে। প্রচুর পরিশ্রমের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। অন্য যে কোন পেশার মতো এখানেও এগিয়ে যাওয়ার জন্য পড়াশোনা করতে হবে, স্বকীয়তা বজায় রাখতে হবে।

বিয়ের ফটোগ্রাফির পাশাপাশি সিনেগ্রাফি নিয়ে কাজ করা বাংলাদেশের একমাত্র প্রতিষ্ঠান এবার ঢাকার পরে তাদের ২য় আউটলেটের যাত্রা শুরু করল চট্টগ্রামে। গত ১৫ জুন ২০১৫ তে এক উৎসব মুখর পরিবেশে বিকেল পাঁচটায় ফিতা ও কেক কেটে এর যাত্রা শুরু করে। এ সময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রামের জনপ্রিয় পত্রিকার ম্যানেজেরিয়াল এডিটর ওয়াহিদ মালেক, ইস্ট্রান গ্রুপের ম্যনেজিং ডিরেক্টর নাসির উদ্দিন চৌধুরী, র‌্যাডিসন ব্লু চট্টগ্রামের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ব্রিগেডিয়ার হুমায়ুন, সিক্স ইভেন্টসের স্বত্বাধিকারী মানজুরুল হকসহ আরও অনেকে। ওয়াহিদ মালেক বলেন, ‘ড্রিম ওয়েভারের সব সদস্য তরুণ, তবে তাদের মধ্যে রয়েছে ভাল কাজ করার মতো আত্মবিশ্বাস। আমি বিশ্বাস করি তারা এই ভিন্নধর্মী ফটোগ্রাফির মাধ্যমে চট্টগ্রামের মানুষের টেস্টকেই পাল্টে দেবে। একই সঙ্গে ওয়েডিং ফটোগ্রাফিকে নিয়ে যাবে অন্য মাত্রায়।’

ড্রিম ওয়েভার মূলত বিয়ের ফটোগ্রাফি এবং সিনেগ্রাফি নিয়ে যাত্রা শুরু করে ১৪ এপ্রিল, ২০১২ তে। ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলোজির [আইইউটি] লাল বিল্ডিংগুলো যেন ইঞ্জিনিয়ার তৈরির কারখানা। বাংলাদেশে একই শিক্ষাবর্ষের সব প্রকৌশল বিদ্যালয়ের মধ্যে নাকি এখানের ছেলেরাই সবচেয়ে আগে ইঞ্জিনিয়ার হয়ে বের হয়। এখানে সবাই যখন ডিগ্রী নিয়ে ব্যস্ত, যোবায়ের হোসেন শুভ তখন ব্যস্ত এক নতুন স্বপ্ন দেখায়। স্বপ্নমাখা চোখে ক্যামেরাবন্দী করতেন তিনি দারুণ সব দৃশ্য। একসময় জমানো টাকায় ক্যামেরা কিনে শুরু করলেন পুরোদস্তুর ছবি তোলার কাজ। সেই দলে যোগ দিলেন ইমরান শাহেদ, নাফিস ফুয়াদ শুভ আর রাফি। নিজের আলোকচিত্র দলটার নাম হয়ে গেল ড্রিম ওয়েভার। এই প্রতিষ্ঠানটির যাত্রা ছিল এমনই স্বপ্নের মাধ্যমে।

ড্রিম উইভারের সিইও এবং চিফ ফটোগ্রাফার যোবায়ের হোসেন শুভ বলেন, ‘বিয়ের মতো পবিত্র এবং পারিবারিক একটি আয়োজনে বিশ^াস ও আস্থা নিয়ে একদম অচেনা একটি পরিবার যখন ড্রিম উইভারকে তাদের পরিবারের অংশ করে নেন, তাদের জীবনের সবচেয়ে সুন্দর আয়োজনটি ফ্রেমবন্দী করার সুযোগ দেন, সে অনুভূতি সত্যি অসাধারণ। এই পেশায় না এলে কখনোই এত মানুষের ভালবাসা পেতাম না।’

৩২০০ ইভেন্ট কাভারের পাশাপাশি বাংলাদেশের প্রথম স্টোরি বেজড ওয়েডিং ভিডিওগ্রাফি তাদেরই তৈরি। এবার চট্টগ্রামে আর একটি আউটলেটের যাত্রার মাধ্যমে আর একটি নতুন দিগন্তের যাত্রা শুরু হলো তাদের।

ঠিকানা : মদিনা টাওয়ার [লেভেল-৭], ৮০৫/এ, সিডিএ এভিনিউ, চট্টগ্রাম। ফোন : ০১৬৭০০৭৮৯৫৩। ফেজবুক পেইজ: িি.িভধপবনড়ড়শ.পড়স/উৎবধসডবধাবৎ.পড়স.নফ; ওয়েব সাইড:িি.িফৎবধসবিধাবৎনফ.পড়স

যাপিত ডেস্ক

প্রকাশিত : ২২ জুন ২০১৫

২২/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: