আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

হকির সমস্যা- দেখার কেউ নেই!

প্রকাশিত : ২২ জুন ২০১৫

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ না, কিছুতেই কিছু হচ্ছে না। সমস্যা যে তিমিরে ছিল, রয়ে গেছে সেই তিমিরেই। তথাকথিত বিদ্রোহী ক্লাবগুলো আগের অবস্থানেই অনড়। হকি ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক খাজা রহমতউল্লাহ যতদিন দায়িত্বে থাকবেন, ততদিন তারা কোন আসরে অংশ নেবে না। তবে হাল ছাড়তে রাজি নন ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়। এদিকে হকি ফেডারেশনও উপমন্ত্রীর উছিলায় হাত পা গুটিয়ে বসে আছে। তাছাড়া তারা কোন কার্যক্রমও হাতে নিচ্ছে না। গত ১৪ জুন টুর্নামেন্ট কমিটির সভায় চতুর্থবারের মতো দলবদলের তারিখ দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু সে সভাতেও তারিখ ঘোষণা করা সম্ভব হয়নি। দলবদল বিষয়টিই ছিল উপেক্ষিত! কারণ ফেডারেশন আরিফ খান জয়ের সিদ্ধান্তের প্রতীক্ষায় তৃষ্ণার্ত চাতক পাখির মতো। উপমন্ত্রী কোন আশার বাণী দিলেই দলবদলের নতুন তারিখ দেবে ফেডারেশন। পাশাপাশি খাজা রহমতউল্লাকে নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। দুই বছর হলো নির্বাচিত কমিটিতে থেকে এতদিনেও কেন পারলেন না বিদ্রোহী ক্লাবগুলোর মান ভাঙ্গাতে? ফেডারেশনের নির্বাচিত কমিটি বরাবরের মতোই সেদিনও নিজেদের ‘আইনত বৈধ’ বলে দাবি করে এবং বিদ্রোহী ক্লাবগুলোকে দলবদল ও লীগে অংশগ্রহণের জন্য আবারও আহ্বান করে। বিদ্রোহী ক্লাবগুলো আলোচনা সভায় দাবি জানায়Ñ হকির বর্তমান কমিটি বাতিল করে একটি এ্যাডহক কমিটি গঠন করলেই (সবার মতামত নিয়ে) তারা দলবদল (২৪-২৬ মে) এবং লীগে অংশ নেবে। বিদ্রোহী ক্লাবগুলোর ভাষ্যমতে, নিয়ম হচ্ছে আম্পায়ার এ্যাসোসিয়েশনের একজন প্রতিনিধি অন্তর্ভুক্ত না করে নির্বাচন করা এবং এক ক্লাব থেকেই পাচ কাউন্সিলর নেয়াটা ছিল সম্পূর্ণ অবৈধ প্রক্রিয়া। এ নিয়ে কমিটির বিরুদ্ধে একটি মামলা এখনও নিষ্পত্তি হয়নি। আগের কমিটির বেলাতেও এমন অনিয়ম ছিল। সেই সময় ওই কমিটির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার জামিল উদ্দিন হকির বৃহত্তর স্বার্থে পদত্যাগ করতে পারলে এই কমিটির সাধারণ সম্পাদক খাজা রহমতউল্লাহ কেন পদত্যাগ করছেন না? খাজা রহমতউল্লাহ্ বলেন, ‘নির্বাচনে কোন অনিয়ম হয়ে থাকলে তার জবাব দেবে নির্বাচন কমিশন। আমার কমিটির সদস্যরা আমাকে চাপ দিয়েছেন কমিটি না ভাঙ্গার জন্য। তবে যদি ভাঙ্গতেই হয়, তাহলে আমাকে যারা এ পদে আনতে সহায়তা করেছে, সেই কাউন্সিলরদের সঙ্গে আমাকে আলোচনা করে একটা সিদ্ধান্ত আসতে হবে।’ এখন উভয় পক্ষের কথা শুনে একটা কথাই মনে হতে পারে হকিপ্রেমীদের, ‘বিচার মানি, কিন্তু তালগাছটা একান্তই আমার!’ গত দুই মৌসুম ধরে প্রিমিয়ার হকি লীগে অংশ নেয়নি মোহামেডানসহ চার ক্লাব। বাকি দলগুলোর মধ্যে আবাহনী ও ঊষা এবার বলেছে ওই চার দল না খেললে তারাও এবারের লীগে অংশ নেবে না! ফলে জটিলতা আরও বেড়েছে।

প্রকাশিত : ২২ জুন ২০১৫

২২/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: