আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৮ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

কোপায় কোয়ার্টার ফাইনালে আর্জেন্টিনা

প্রকাশিত : ২২ জুন ২০১৫
  • কোপা আমেরিকা ফুটবল
  • শেষ আটে প্যারাগুয়ে
  • ড্র করেও নকআউট পর্বে চ্যাম্পিয়ন উরুগুয়ে
  • শেষ আটে হতে পারে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা দ্বৈরথ
  • আর্জেন্টিনা ১- জ্যামাইকা
  • উরুগুয়ে ১-১ প্যারাগুয়ে

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বাইশ বছরের শিরোপা খরা কাটানোর মিশনে আরেকধাপ পেরিয়েছে আর্জেন্টিনা। চলমান কোপা আমেরিকা ফুটবলের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে চৌদ্দবারের চ্যাম্পিয়নরা। বাংলাদেশ সময় রবিবার ভোরে অনুষ্ঠিত ম্যাচে জ্যামাইকাকে ১-০ গোলে হারিয়ে ‘বি’ গ্রুপের সেরা হয়ে (৭ পয়েন্ট) শেষ আট নিশ্চিত করেছে জেরার্ডো মার্টিনোর দল।

একতরফা প্রাধান্য বিস্তার করে খেলা ম্যাচে একগাদা সুযোগ নষ্ট করা আর্জেন্টিনার হয়ে একমাত্র গোল করেন নেপোলি স্ট্রাইকার গঞ্জালো হিগুয়াইন। এই ম্যাচের মধ্য দিয়ে পঞ্চম আর্জেন্টাইন ফুটবলার হিসেবে ১০০ ম্যাচ খেলার মাইলফলক স্পর্শ করেছেন সুপারস্টার লিওনেল মেসি। কিন্তু গৌরবময় ম্যাচে গোল করে গৌরবান্বিত করতে ব্যর্থ হয়েছেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক। পুরো ম্যাচে ভাল খেললেও প্রতিপক্ষোর জাল খুঁজে পাননি সাবেক টানা চারবারের ফিফা সেরা ফুটবলার।

গ্রুপ ‘বি’ থেকে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে বর্তমান রানার্সআপ প্যারাগুয়ে ও চ্যাম্পিয়ন উরুগুয়েও। দল দুটি একে অপরের মুখোমুখি হয়েছিল। ম্যাচটি ড্র হয় ১-১ গোলে। ফলে ৫ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপের দ্বিতীয় হয়ে নকআউটে পৌঁছেছে প্যারাগুয়ে। আর ৪ পয়েন্ট নিয়ে সেরা তৃতীয় দলের একটি হয়ে পরের পর্বে এসেছে উরুগুয়ে। ম্যাচের ২৯ মিনিটে জোশে গিমিনিজের গোলে এগিয়ে যায় উরুগুয়ে। সানাচেজের কর্নার থেকে দর্শনীয় হেডে প্যারাগুয়ের জাল কাঁপিয়ে দেন এই ফুটবলার (১-০)। তবে সমতায় ফিরতে বেশি সময় নেয়নি প্যারাগুয়ে। ৪৪ মিনিটে বেনিতেজের কর্নার থেকে থেকে হেডে গোল করেন প্যারাগুয়ের লুকাস ব্যারিওস (১-১)।

এই ম্যাচেও ডাগআউটে কোচ জেরার্ডো মার্টিনোকে ছাড়াই খেলতে হয়েছে আর্জেন্টিনাকে। টুর্নামেন্টে তাদের প্রতিপক্ষ দলগুলো সম্ভবত অভিন্ন কৌশল নিয়ে নেমেছে। যে করেও হয় ঠেকাও আর্জেন্টিনার কৌশল। যে কারণে গ্রুপের তিন ম্যাচেই দেখা গেছে প্রায় সবাই মিলে রক্ষণভাগে ব্যস্ত। জ্যামাইকাকে এই কাজ সবচেয়ে বেশি করতে দেখা গেছে। যে কারণে পুরো ম্যাচে একচেটিয়া খেলেও গোল সংখ্যা বাড়াতে পারেননি মেসি, হিগুয়াইন, ডি মারিয়ারা। ম্যাচের শুরু থেকেই জ্যামাইকাকে চেপে ধরে আর্জেন্টিনা। শুরুর দিকেই কয়েকটি সহজ সুযোগ সৃষ্টি করে তারা। কিন্তু হিগুয়াইন সেই সুযোগগুলো কাজে লাগাতে পারেননি। অবশ্য গোলের জন্য বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি দুইবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের। ১০ মিনিটে কাক্সিক্ষত গোল পায় আর্জেন্টিনা। গোলটিতে দারুণ অবদান ম্যাচসেরা ডি মারিয়ার। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে তারকা বাঁপ্রান্ত থেকে বল দেন হিগুয়াইনকে। নেপোলি তারকার গোল করতে কোন সমস্যাই হয়নি।

ম্যাচের ২৩ মিনিটে অল্পের জন্য দ্বিতীয় গোল পাননি হিগুয়াইন। ডি মারিয়া বিপজ্জনক জায়গায় খুঁজে পেয়েছিলেন সার্জিও এ্যাগুয়েরোর বদলে এই ম্যাচে শুরুর একাদশে খেলা হিগুয়াইনকে। গোলরক্ষক ডোয়াইন মিলারের মাথার ওপর দিয়ে চিপ করেছিলেন তিনি। কিন্তু তার দুর্দান্ত প্রচেষ্টাটি বারপোস্টে লেগে প্রতিহত হয়। ৩৪ মিনিটে ভাল সুযোগ সৃষ্টি করেছিলেন মেসি। কিন্তু তার বাঁ পায়ের শট নিশানা খুঁজে পায়নি। ৩৯ মিনিটে আবারও হতাশ হতে হয় কোপা আমেরিকার ১৪ বারের চ্যাম্পিয়নদের। প্রায় ৫০ গজ দৌড়ে মিলারের মাথার ওপর দিয়ে বল পাঠান ডি মারিয়া। গোল লাইনের ঠিক সামনে থেকে বল বিপদ মুক্ত করেন মাইকেল হেক্টর। তিন মিনিট পর আবার সুযোগ আসে ডি মারিয়ার সামনে। মার্কোস রোজোর ক্রস ঠিকভাবে সামলাতে পারেননি হেক্টর। বল পেয়ে যান সাবেক রিয়াল মাদ্রিদ তারকা। কিন্তু তার দারুণ শট ঝাঁপিয়ে বিপদমুক্ত করেন মিলার।

বিরতির পর আক্রমণাত্মক ধারা বজায় রাখে আর্জেন্টিনা। ৫২ মিনিটে তার ফলও পেতে পারত মেসিবাহিনী। আরেকবার তাদের হতাশ করে ক্রসবার। ডি মারিয়ার শট গোলরক্ষককে পরাস্ত করে ক্রসবারে লেগে ফিরে আসে। আর্জেন্টিনার হয়ে শততম ম্যাচে গোল পেয়েই যাচ্ছিলেন অধিনায়ক মেসি। ৫৬ মিনিটে তার বুদ্ধিদীপ্ত প্রচেষ্টাটি ব্যর্থ করে দেন জ্যামাইকার গোলরক্ষক। তার মাথার ওপর দিয়ে জালে বল পাঠাতে চেয়েছিলেন বার্সিলোনা ফরোয়ার্ড। কিন্তু দ্বিতীয় প্রচেষ্টায় বল নিয়ন্ত্রণে নেন গোলরক্ষক মিলার। বাকি সময় আরও কয়েকটি সুযোগ পেলেও ব্যবধান বাড়াতে পারেনি আর্জেন্টিনা।

কোয়ার্টার ফাইনালেই দেখা হয়ে যেতে পারে বিশ্ব ফুটবলের দুই জনপ্রিয় দল ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার। ‘বি’ গ্রুপের সেরা হয়েছে আর্জেন্টিনা। শেষ আটে তাদের প্রতিপক্ষ হবে গ্রুপ ‘এ’ অথবা ‘সি’র তৃতীয় সেরা দল। এ কারণেই ব্রাজিলের সঙ্গে দেখা হওয়ার সম্ভাবনা আছে। কেননা নেইমারবিহীন সেলোসাওদের ‘সি’ গ্রুপে তিন নম্বর হওয়ার সম্ভাবনাও আছে। তবে কি হয়েছে তা ইতোমধ্যে নিশ্চিত হয়ে গেছে। অবশ্য আর্জেন্টিনার সম্ভাব্য প্রতিপক্ষ হতে পারে ইকুয়েডরও। ২৬ জুন কোয়ার্টার ফাইনাল খেলবে আর্জেন্টিনা।

প্রকাশিত : ২২ জুন ২০১৫

২২/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: