আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

গ্রীক ঋণ সঙ্কট নিয়ে হুঁশিয়ারি মেরকেলের

প্রকাশিত : ২১ জুন ২০১৫
  • শীর্ষ বৈঠকের আগেই চুক্তি চান জার্মান চ্যান্সেলর

জার্মান চ্যান্সেলর এ্যাঞ্জেলা মেরকেল সতর্ক করে দিয়েছেন যে, সোমবার অনুষ্ঠেয় ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) শীর্ষ বৈঠকের আগে গ্রীস ও এর ঋণদাতাদের মধ্যে অবশ্যই কোন চুক্তি হতে হবে। অন্যথায় শীর্ষ বৈঠক কোন সিদ্ধান্ত নিতে পারবে না বলে তিনি মন্তব্য করেন। গ্রীসকে দু’সপ্তাহেরও কম সময়ের মধ্যে কোন চুক্তিতে পৌঁছতে হবে নয়তো দেশটি আন্তর্জাতিক অর্থ তহবিলের (আইএমএস) ঋণ বাবদ পাওনা ১৬০ কোটি ইউরো (১১০ কোটি পাউন্ড) পরিশোধে খেলাপী হতে পারে। গ্রীক ব্যাংকগুলোর আর্থিক অবস্থা নিয়ে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে, কারণ চলতি সপ্তাহে ব্যাংকগুলো থেকে ৪০০ কোটি ইউরো গ্রাহকরা তুলে নিয়েছেন বলে খবর বেরিয়েছে। শুক্রবার ইউরোপীয় সেন্ট্রাল ব্যাংক (ইসিবি) ওই ব্যাংকগুলোর জন্য জরুরী ভিত্তিতে আরও সহায়তা অনুমোদন করেছে। তবে অতিরিক্ত তহবিলের পরিমাণ আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয়নি। খবর বিবিসি ও ইয়াহু নিউজের।

গ্রীসের খেলাপী হওয়া ঠেকানোর চেষ্টায় ইউরোজোনের নেতারা সোমবার ব্রাসেলসে এক জরুরী শীর্ষ বৈঠকে মিলিত হবেন। এর আগে বৃহস্পতিবার গ্রীস ও এর ঋণদাতাদের মধ্যকার অচলাবস্থা দূর করতে ইউরোজোন অর্থমন্ত্রীদের এক বৈঠক ব্যর্থ হয়। মেরকেল শুক্রবার বলেন, আমাদের প্রত্যাশা সম্পর্কে আমি খুবই স্পষ্ট কথা বলতে চাই। এরূপ কোন বৈঠকে যদি কোন সিদ্ধান্ত নেয়ার মত কোন ভিত্তি থাকে, তা হলেই কেবল সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা সম্ভব হতে পারে। তিনি বলেন, এর মূল্যায়ন করা তিনটি প্রতিষ্ঠান ইসিবি, আইএমএফ ও ইউরোপীয় কমিশনের দায়িত্ব এবং এখনও পর্যন্ত আমরা সেই মূল্যায়ন জানতে পারিনি। এদিকে মেরকেলের এক সিনিয়র মিত্র পিটার আল্টমাইয়ের বলেছেন, বার্লিন শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত এথেন্সের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাবে। তবে তিনি একথাও বলেন যে, গ্রীসকে অবশ্যই সংস্কার আনয়নের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। মেরকেলের চীফ অব স্টাফ আল্টমেইয়ার ইনফোরেডিওকে বলেন, গ্রীসের ঋণ সঙ্কটের এক সমাধানে পৌঁছানো এথেন্স ও এর আন্তর্জাতিক ঋণ দাতাদের পক্ষে সম্ভব বলে তিনি এখনও বিশ্বাস করেন। এদিকে, রাশিয়া বলেছে, তার কাছে চাওয়া হলে সে গ্রীসকে ঋণ দেয়ার কথা বিবেচনা করবে। যদি গ্রীস আইএমএফের পাওনা পরিশোধে ব্যর্থ হয়, তা হলে দেশটি ইউরোজোন এবং সম্ভবত ইইউও ত্যাগ করতে বাধ্য হতে পারে।

গ্রীস সংস্কার সাধনে সম্মত না হওয়া পর্যন্ত ইউরোপীয় কমিশন আইএমএফ ও ইসিবি বেইলআউট তহবিল (দেউলিয়াত্ব ঠেকাতে অর্থ সহায়তা) ছাড় করতে অনিচ্ছুক রয়েছে। তারা চায়, ৭২০ কোটি ইউরোর তহবিল ছাড় করার আগে গ্রীস পেনশন ভ্যাটের মতো ক্ষেত্রগুলোতে এবং বাজেট উদ্ধৃত্তের বিষয়ে কতকগুলো অর্থনৈতিক পরিবর্তন বাস্তবায়ন করুক। ঐ তহবিল ছাড় ফেব্রুয়ারি থেকে বিলম্ব করা হচ্ছে। গ্রীস প্রধানমন্ত্রী আলোক্সিস সিপরাস শুক্রবার বলেন যে, গ্রীসের ঋণ সঙ্কটের একটা সমাধান পাওয়া যাবে। তিনি এক বিবৃতিতে বলেন, ইউরোজোন নেতাদের সোমবারের শীর্ষ বৈঠক এক চুক্তি করার পক্ষে এক ইতিবাচক পদক্ষেপ। তিনি বলেন, ইইউর নিয়মকানুন ও গণতন্ত্রের প্রতি শ্রদ্ধাবোধের ভিত্তিতে একটা সমাধান খুঁজে পাওয়া যাবে। এটি গ্রীসকে ইউরোর ভেতরই প্রবৃদ্ধির পথে ফিরে যাওয়ার সুযোগ দেবে। তিনি রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গে এক অর্থনৈতিক ফোরামে ভাষণ দিচ্ছিলেন।

প্রকাশিত : ২১ জুন ২০১৫

২১/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: