আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

স্টুডেন্ট ভিসায় গিয়ে চাকরি, মালয়েশিয়ায় দেড় শ’ বাংলাদেশী আটক

প্রকাশিত : ২০ জুন ২০১৫
  • ৩৭ জনকে মিয়ানমার থেকে আনা হলো

এইচএম এরশাদ, কক্সবাজার ॥ মালয়েশিয়ায় স্টুডেন্ট ভিসায় গিয়ে চাকরি করায় দেড় শতাধিক বাংলাদেশী শিক্ষার্থীকে আটক করা হয়েছে। এদিকে মিয়ানমার থেকে দ্বিতীয় দফায় আরও ৩৭ বাংলাদেশীকে ফেরত আনা হয়েছে। নাফনদীতে বিজিবি সদস্যদের লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ ও বিজিবি নায়েক রাজ্জাককে ফেরত দেয়ার বিষয়ে তিন দিনের মধ্যেও পতাকা বৈঠকের গ্রীন সিগন্যাল দেয়নি মিয়ানমার সীমান্ত রক্ষীদল (বিজিপি)। বুধবার থেকে নায়েক রাজ্জাককে ফিরিয়ে আনতে প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে বিজিবি কর্মকর্তাগণ। ৪২ বজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল আবু জার আল জাহিদ যে কোন সময় পতাকা বৈঠক হতে পারে বলে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দাবি করে আসলেও শুক্রবারও দু’দেশের সীমান্তরক্ষীদের মধ্যে হয়নি ফ্ল্যাগ মিটিং। বৃহ¯পতিবার সকাল ১০টায় টেকনাফ স্থলবন্দর রেস্ট হাউসে পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। ওই বৈঠকে মিয়ানমার হেফাজতে থাকা নায়েক রাজ্জাককে ফেরত দিতে বিজিপির সঙ্গে করে নিয়ে আসার কথাও ছিল। কিন্তু এখনও মিয়ানমার পক্ষ হতে কোন গ্রীন সিগনাল মেলেনি। মিয়ানমার পুলিশ তাদের উধর্তন কর্তৃপক্ষের অনুমতি না পাওয়ায় তারা বৈঠকে আসতে পারছে না বলে ওপারের একটি সূত্র দাবি করেছে। বলা বাহুল্য, বুধবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে বিজিবির ছয় সদস্যের একটি দল নায়েক আব্দুর রাজ্জাকের নেতৃত্বে নাফনদীতে টহল দেয়ার সময় দুটি নৌকায় মাদক চোরাচালান রয়েছে সন্দেহে তল্লাশি করছিল বিজিবির সদস্যরা। ওসময় পূর্বদিক থেকে আরেকটি ট্রলারে করে মিয়ানমারের বিজিপির সদস্যরা এসে বিজিবির নৌকায় গুলি ছুঁড়ে। এতে সিপাহী বিপ্লব কুমার গুলিবিদ্ধ হন। বিজিবি সদস্যরাও পাল্টা গুলি ছুড়ে জবাব দেয়। এতে দুপক্ষের মধ্যে অন্তত ১২ রাউন্ড গুলিবিনিময় চলে। এ ঘটনায় বিজিবির নায়েক রাজ্জাককে বিজিপির সদস্যরা তুলে নিয়ে যায় মিয়ানমারে।

এদিকে মিয়ানমার উপকূল থেকে উদ্ধার ২০৮ জন অভিবাসীর মধ্য থেকে দ্বিতীয় দফায় আরও ৩৭ জন বাংলাদেশীকে ফেরত আনা হয়েছে। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ বিজিবির কাছে শুক্রবার দুপুরে মিয়ানমারের ইমিগ্রেশন এ্যান্ড ন্যাশনাল রেজিস্ট্রেশন ডিপার্টমেন্ট থেকে ওইসব বাংলাদেশী নাগরিকদের হস্তান্তর করা হয়। এর আগে সকাল সাড়ে ১০টায় বাংলাদেশের সীমান্ত পয়েন্ট ঘুনধুম বরাবর মিয়ানমারের অভ্যন্তরে এক পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। পতাকা বৈঠকে যোগ দিতে ১০ সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল (বিজিবি) মিয়ানমার অভ্যন্তরে প্রবেশ করলে দেশটির সীমান্তরক্ষী বাহিনীর কর্মকর্তাগণ তাঁদের অভ্যর্থণা জানান। দেড় ঘণ্টাব্যাপী বৈঠক শেষে কক্সবাজার বিজিবির সেক্টর কমান্ডার এমএম আনিসুর রহমান জানান, এর আগেও (৮ জুন) প্রথম দফায় ১৫০ জন শনাক্তকৃত বাংলাদেশী অভিবাসন প্রত্যাশীকে বিজিবির মাধ্যমে মিয়ানমার থেকে ফেরত আনা হয়েছিল। যাচাই-বাছাই করে ১৫০ জনের মধ্যে দালাল হামিদ হোসেনসহ দুই রোহিঙ্গাকে শনাক্ত করে পুলিশ প্রশাসন। দ্বিতীয় দফায় শুক্রবার ৩৭ জন বাংলাদেশীকে ফেরত আনা হলো।

বিজিবি সেক্টর কমান্ডার আরও বলেন, বুধবার নাফনদীর জাদিমুরা পয়েন্ট সীমান্তে বিজিবি-বিজিপির মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির কারণে গোলাগুলির ঘটনায় মিয়ানমারে ধরে নিয়ে যাওয়া বিজিবি সদস্য নায়েক রাজ্জাকের বিষয়টি নিয়েও শুক্রবার অনুষ্ঠিত পতাকা বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। পরবর্তীতে আরও একটি পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে দ্রুত সময়ের মধ্যে রাজ্জাককে ফেরত আনা হবে। তবে কাক্সিক্ষত পতাকা বৈঠক কবে নাগাদ অনুষ্ঠিত হচ্ছে-তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না বলে সূত্র জানিয়েছে।

কক্সবাজার ১৭ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল খন্দকার সাইফুল আলম জনকণ্ঠকে জানান, ফেরত আনা ৩৭ জন বাংলাদেশীর মধ্যে সিরাজগঞ্জের ৫, মাদারীপুর ১, সুনামগঞ্জ ৪, কিশোরগঞ্জ ৮, হবিগঞ্জ ১১, জামালপুর ১ ও বগুড়ার ৭ জন রয়েছে। গত ২১ মে মিয়ানমার উপকূল থেকে ২০৮ জন অভিবাসীকে উদ্ধার করেছিল। মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ এসব মালয়েশিয়াগামী অভিবাসীদের বাংলাদেশী নাগরিক বলে দাবি করে আসছে। যাচাই-বাছাই শেষে প্রথম দফায় ১৫০ ও দ্বিতীয় দফায় ৩৭ জনতে ফেরত আনা হয়েছে। শুক্রবার সকালে বাংলাদেশ-মিয়ানমার উভয় দেশের সীমান্তরক্ষী বিজিবি-বিজিপি মিয়ানমার অভ্যন্তরে ৩১/১ সীমান্ত পিলার স্থানে অনুষ্ঠিত পতাকা বৈঠক শেষে ৩৭ জন বাংলাদেশীকে বিজিবির কাছে হস্তান্তর করে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ।

দুই দালাল গ্রেফতার ॥ কক্সবাজারের চকরিয়ায় মানবপাচারে জড়িত থাকার অভিযোগে কীটনাশক বিক্রেতা দুই সহোদরকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। বৃহস্পতিবার বিকেলে র‌্যাব-৭ কক্সবাজার ক্যাম্পের একটি চকরিয়া পৌরশহরের সোসাইটি মসজিদ এলাকার একটি মার্কেটে এ অভিযান চালায়। গ্রেফতারকৃত দালাল জুলফিকার আলী ভুট্টো ও তার ভাই মোক্তার আহমদ চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার বাসিন্দা। অভিযোগ উঠেছে, ভুট্টো কীটনাশক ব্যবসার আড়ালে দীর্ঘদিন ধরে ভেজাল বীজের ব্যবসা ছাড়াও মালয়েশিয়ায় সাগরপথে মানবপাচার করে আসছে। এ অভিযানের নেতৃত্বে ছিলেন মেজর আহমদ হোসেন মহিউদ্দিন।

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশী শিক্ষার্থী আটক ॥ মালয়েশিয়ায় স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে পড়ালেখার পাশাপাশি অবসর সময়ে চাকরি করছেন, এমন প্রায় দেড় শতাধিক বাংলাদেশী শিক্ষার্থীকে আটক করা হয়েছে বলে জানা গেছে। সূত্র জানিয়েছে, মালয়েশিয়ায় শিক্ষার্থীদের কোন ধরনের পার্টটাইম কাজের স্বীকৃতি নেই। তারা পরিচয় গোপন রেখে রেস্টুরেন্ট ও নির্মাণ প্রকল্পে কাজ করে থাকে। দেশটির রাজধানী কুয়ালালামপুরের সানওয়ে পিরামিড ও এর আশপাশের এলাকা থেকে বৃহস্পতিবার অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে দেশটির পুলিশ ও ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিভিন্ন ভিডিও গেমস স্টোর থেকে ২৫ জন ও ক্লাং এলাকা থেকে প্রায় ৫০ জন এবং সানওয়ে কমপ্লেক্সের ভেতরে বিভিন্ন রেস্টুরেন্ট ও পাশের নির্মাণ প্রকল্প থেকে প্রায় ৮০ জন শিক্ষার্থীকে আটক করা হয়। আটক সকলে বাংলাদেশের নাগরিক এবং এসব শিক্ষার্থীর বেশিরভাগই লিংকন ইউনিভার্সিটি, এডাম কলেজ ও ভিক্টোরিয়া কলেজের ছাত্র। তারা স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে মালয়েশিয়া গিয়ে পড়ারেখার পাশাপাশি চাকরি করছেন। এ কলেজগুলোর বিরুদ্ধে মালয়েশিয়ায় স্টুডেন্ট ভিসায় মানবপাচারের অভিযোগ থাকায় দেশটির প্রশাসন অভিযানে নামে।

প্রকাশিত : ২০ জুন ২০১৫

২০/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: