মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

৩২ নম্বরে গিয়ে আবেগপ্রবণ রবি শাস্ত্রী!

প্রকাশিত : ১৭ জুন ২০১৫

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ সোমবার জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ধানম-ির ৩২ নম্বর বাড়িতে গিয়েছিলেন ভারত ক্রিকেট দলের কোচ রবি শাস্ত্রী। সেখানে গিয়ে ইতিহাস জেনে স্তব্ধ হয়ে গেছেন তিনি। কলকাতার আনন্দবাজার এ নিয়ে একটি রিপোর্টও করেছে। বঙ্গবন্ধুর বাড়িতে গিয়ে শ্রদ্ধা বার্তাও লিখেছেন শাস্ত্রী।

ছিমছাম, অনিন্দ্যসুন্দর পবিত্র বাড়িটার সিঁড়িতে পড়ে থাকা গোলাপ পাপড়িগুলোর বয়স বোধ হয় একই থেকে গিয়েছে। আজও এত জীবন্ত লাগে! ধাপে-ধাপে সিঁড়ি নেমে গিয়েছে একের পর এক। মাঝামাঝি জায়গায় একটা ছবি ঝুলছে। গুলিবিদ্ধ হয়ে তিনি পড়ে আছেন, তারই প্রতিমূর্তি। দেয়ালের এক দিক থেকে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা নামতে নামতে প্রায় সিঁড়ি ছুঁয়েছে। শ্রদ্ধার আলত হাত রাখছে পড়ে থাকা গোলাপ পাপড়িতে। শেখ মুজিবুর রহমানকে এখানেই গুলি করা হয়েছিল না? এই সিঁড়িতে? বন্দুকবাজদের হাত দু’বার কাঁপেনি সে দিন। মন বিচলিত হয়নি এতটুকু। সেই সিঁড়ির একপ্রান্তে দাঁড়িয়ে যে দীর্ঘদেহী, গমগমে গলা আর স্পষ্টবক্তা হিসেবে ভারত বিখ্যাত। কিন্তু আজ কিছু একটা যেন ভারতীয় ক্রিকেটের এই প্রখর ব্যক্তিত্বকেও নিশ্চুপ করিয়ে দিয়েছে। নিশ্চল দাঁড়িয়ে সিঁড়ির মুখটায়। চোখ নড়ছে না। মাথা উঠছে না। কানে যেন ঢুকছে না জাদুঘর কর্তৃপক্ষের কথা। রবি শাস্ত্রী স্তব্ধ। রবি শাস্ত্রী নির্বাক। মাঝে মধ্যে শিউরে উঠছেন বঙ্গবন্ধুর অন্তিম পরিণতির মর্মস্পর্শী কাহিনী শুনে। অস্ফুটে বলে ফেলছেন, ‘এটা কিভাবে কারও সঙ্গে ঘটতে পারে ...!’ জানতে চাইছিলেন, ঘটনাটা ঠিক কী ঘটেছিল? কখন ঘটেছিল? এক বার অস্থির হয়ে পাশে দাঁড়ানো ভরত অরুণকে ডেকে নিলেন দ্রুত। দেখালেন দেয়ালের গায়ে বুলেটের দাগ। সেই অভিশপ্ত ঘরের দেয়াল, যেখানে একই দিনে আক্রান্ত হতে হয়েছিল বঙ্গবন্ধুর পরিবারের অধিকাংশকে। চলে গিয়েছিল কিছু প্রাণ। ঘুরতে ঘুরতে আরও একটা ঘর। মুজিবুরের পুত্রবধূর শাড়ি রাখা ওখানে। রক্তের দাগ চল্লিশ বছর পরেও লেগে আছে। শাস্ত্রী এ বার আর কাউকে ডাকতেও পারলেন না। বাংলার বিখ্যাত জন নায়কের ছবিতে ফুল দেয়ার সময় এলো, প্রণামের হাত চলে গেল আপনা আপনি। ম্যাসেজ বুকে বার্তা রেখে যাওয়ার অনুরোধে কলম চলতে লাগল নিঃশব্দে। ‘আমি প্রথম বার এখানে এলাম। ফিরে যাচ্ছি অসাধারণ অভিজ্ঞতা নিয়ে। বুঝতে পারলাম কেন ওঁকে সব সময় এক মহৎ মানুষ বলা হয়। এখানকার সব কিছু আমার হৃদয় ছুঁয়ে গিয়েছে। বাংলাদেশে যারা আসবেন, তারা অবশ্যই একবার আসবেন এখানে।’ মন ছুঁয়ে যাওয়ার মতো লাইন। আবেগের বৃষ্টিতে ভিজতে ভিজতে লিখে ফেলা কিছু কথা। সবই হৃদয়-নিঃসৃত। যে আবেগ বাইশ গজের দুনিয়া থেকে তার এক অন্যতম সেরা চরিত্রকে টেনে বার করে দাঁড় করিয়ে দেয় এক অচেনা বৃত্তে। এক অচেনা জীবনের উঠানে। যে উঠানে পুরনো সে দিনের পায়রা ঘর আছে। ইংলিশ উইল নেই। যে উঠানে সাবেক বাংলার গোয়াল ঘর আছে। চকচকে টিম ইন্ডিয়া ড্রেসিংরুম নেই। প্রথমে ঠিক ছিল, ভারতীয় টিমের ম্যানেজার বিশ্বরূপ দের সঙ্গে কোচ শাস্ত্রী শুধু আসবেন। সকাল সোয়া এগারোটা নাগাদ দেখা গেল, গাড়ি থেকে আরও তিন জন নামছেন। ভরত অরুণ, সঞ্জয় বাঙ্গার এবং শ্রীধর। ভারতের পুরো সাপোর্ট স্টাফ টিম। আশপাশে তখন একটাও ক্যামেরা নেই মুহূর্তকে আজীবনের জন্য বন্দী করে ফেলার।

কেউ একজন শাস্ত্রীকে জিজ্ঞেস করেছিলেন যে, আপনি কি পুরোটাই ঘুরে দেখবেন? নাকি কয়েকটা নির্বাচিত অংশ? ঝটিতি উত্তর দিলেন, ‘পুরোটা।’ ছ’ফুটের টি-শার্ট পরিহিত তিপান্নর টিম ডিরেক্টর ততক্ষণে তেইশের যুবক। বাংলার চলমান ইতিহাসের বাসস্থানে পৌঁছে নিজেকে বদলে ফেলতে চাইছেন ইতিহাসের মনোযোগী ছাত্রে। টিভিতে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বক্তৃতা একমনে শুনছেন। চলে যাচ্ছেন বিখ্যাত বারান্দায়, যেখানে দাঁড়িয়ে নাকি একটা সময় বক্তৃতা থেকে দেশবাসীর সঙ্গে সংযোগস্থাপন, সবই করতেন শেখ মুজিব। কলকাতার ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে মুজিবুরের বক্তৃতার ছবি দেখতে দেখতে ঘনিষ্ঠকে বলে ফেললেন, কলকাতার সঙ্গে ওঁর বরাবরই সম্পর্ক ভাল ছিল, না? মহাত্মা গান্ধীর সঙ্গে এক ফ্রেমে বঙ্গবন্ধুকে দেখে আবার মনে পড়ে গেল, কলকাতার এলগিন রোডে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু মিউজিয়ামেও একই ছবি তিনি দেখেছেন। পরিবেশ মৃদু হাল্কা করা মন্তব্যও একটা পাওয়া গেল। ফিদেল কাস্ত্রোর সঙ্গে মুজিবুরের ছবিটা যখন দেখলেন। শাস্ত্রী এ বার বলে ফেললেন, ‘একজন সিগার। এক জন পাইপ। দু’জনে ভাল জমত নিশ্চয়ই!’ মন খারাপের মেঘলা আকাশ তাতে কিছুটা কাটে, কিন্তু রোদের তেজ পুরো বেরোয় না। বরং ওখান থেকে বেরিয়ে গুলশানে কেনাকাটা করতে যাওয়ার সময় শাস্ত্রী খুঁজে পেয়েছেন ভারত-বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের মিল। বলে ফেলেছেন, এত অবিশ্বাস্য অভিজ্ঞতা নাকি তার আর কখনও হয়নি। সম্ভবও নয়। পরিচয়ে আপনি বাঙালী হোন বা অবাঙালী, ওই বাড়ি, সামনের সবুজ, ভেতরের বঙ্গবন্ধুর জীবনের নানা ঘাত-প্রতিঘাত দেখলে মোহাচ্ছন্ন হয়ে পড়াই স্বাভাবিক। স্বাভাবিক না থাকাই স্বাভাবিক। বাংলাদেশ বলে, বত্রিশ নম্বর ধানম-ি তার আত্মার ঠিকানা। বাংলাদেশ শুধু বলে না, বত্রিশ নম্বর ধানমণ্ডি তার চিরকালীন দুঃখেরও ঠিকানা।

প্রকাশিত : ১৭ জুন ২০১৫

১৭/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

খেলার খবর



ব্রেকিং নিউজ: