কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

আমায়ন

প্রকাশিত : ১৭ জুন ২০১৫

মুখে মুখে আম। মানুষের মুখে আম নিয়ে উচ্ছ্বাস। শিশু থেকে বুড়ো, গরিব থেকে ধনী- প্রত্যেকের রসনা তৃপ্ত করছে এই সুস্বাদু রসালো ফলটি। কারণ প্রচুর ফলন হয়েছে এবার আমের। ফলে সুলভ হয়েছে তা বাজারে। সস্তায় পাচ্ছেন ক্রেতারা। শহরের পথঘাট বিশেষ করে রাজপথের বহু স্থানে আমের ঝুড়ি নিয়ে বসতে দেখা যাচ্ছে খুচরা বিক্রেতাদের। আর ফলের দোকানগুলোতে উপচে পড়ছে আম। দুটো বড় সুখবর পেয়েছি আমরা আমকে ঘিরে। প্রথমবারের মতো ইউরোপে রফতানি হচ্ছে আম। আর দেশের একটি বড় কোম্পানি ১০০ কোটি টাকার আমের অর্ডার দিয়েছে। সব মিলিয়ে এবার গ্রীষ্মে ফলসম্পদের সমাহারে সত্যিই রাজার আসন পেতে বসেছে এই উপকারী ফল। অথচ সুস্বাদু আম একদল অসাধু লোকের কারণে রীতিমতো বিষে পরিণত হয়। ‘কেমিক্যালমুক্ত আম’- এমন ব্যানার ঝুলিয়ে ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে সচেষ্ট হয়েছে ব্যবসায়ীরা। তবু ক্রেতাদের সন্দেহ ঘুচে না- প্রিয়জনদের জন্য মরণব্যাধির বীজ কিনছি না তো!

রসালো ফল আম সবারই প্রিয়। এটি ভারত উপমহাদেশ ও এশিয়ার একটি বিশেষ ফল। আম শরীরের জন্যও খুব কার্যকরী। আমে রয়েছে ক্যালোরি, কার্বোহাইড্রেট, সুগার, প্রোটিন, ক্যারোটিন, পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, থায়ামিন, রিবোফ্লোবিন, ফলিক এসিড, জিংক, ভিটামিন বি ও ভিটামিন সি। একসঙ্গে এত ভিটামিন, মিনারেল ও শরীরের প্রয়োজনীয় অন্যান্য উপাদানের যোগান খুব কম ফলেই আছে। মোট কথা, আমে শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় সব পুষ্টি একত্রে পাওয়া যায়। তাই আমকে বলা যায় সব রোগের জন্য শক্তিশালী প্রতিরোধক। আমের ভিটামিন ‘এ’ গর্ভস্থ শিশুর জন্যও উপকারী। তারুণ্য বজায় রাখতে এর ভূমিকা অপরিসীম। এতে খনিজ লবণের উপস্থিতিও রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণে। দাঁত, নখ, চুল মজবুত করার জন্য আমের খনিজ লবণ উপকারী ভূমিকা পালন করে।

আমের এবার বাম্পার ফলন হয়েছে। অনুকূল আবহাওয়া ও কৃষি বিভাগের পরামর্শ অনুযায়ী সাতক্ষীরা জেলার চাষীরা ক্ষতিকারক কীটনাশক পরিহার করে এ বছর ফলিয়েছেন বিষ ও কীটনাশকমুক্ত আম। দেশের বাইরে আম রফতানি করার জন্য আমচাষীরা চলতি মৌসুমে গাছের মুকুল বের হওয়া থেকে শুরু করে পুষ্ট হওয়া পর্যন্ত নিবিড় পরিচর্যা করেছেন। তারা সফল। সাতক্ষীরার আম বিদেশে যাচ্ছে বলে এ জেলার আমচাষীদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনা বিরাজ করছে। কৃষিপণ্য প্রক্রিয়াজাতকারী একটি প্রতিষ্ঠান নাটোরে ১০০ কোটি টাকায় ৬০ হাজার মেট্রিক টন আম কেনার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে চলতি মৌসুমে আম সংগ্রহ ও পাল্পিং কার্যক্রম শুরু করেছে। নাটোরে প্রতিষ্ঠানটির কৃষিভিত্তিক শিল্পকারখানা গড়ে ওঠার ফলে প্রায় ৫ হাজার লোকের স্থায়ী কর্মসংস্থান হয়েছে। আমের মৌসুমে বাড়তি আরও ২-৩ হাজার মৌসুমি শ্রমিকের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা নিঃসন্দেহে ভাল খবর। যাই হোক, এবার মোটামুটি সস্তা দরে বস্তাভর্তি আম খেয়ে দেশের আমজনতা পরিতৃপ্ত হবে- এমন প্রত্যাশাটা বাস্তব।

প্রকাশিত : ১৭ জুন ২০১৫

১৭/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: