আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৮ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

প্রাথমিক স্তরে শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা হবে ডিজিটাল পদ্ধতিতে

প্রকাশিত : ১৬ জুন ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ডিজিটালাইজ হচ্ছে প্রাথমিক স্তরের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা গ্রহণ পদ্ধতি। এর অংশ হিসেবে আগামী ২৭ জুন প্রাক-প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য প্রথম ধাপে পাঁচ জেলায় সহকারী শিক্ষক নিয়োগের লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। জেলাগুলো হলো- মেহেরপুর, মুন্সীগঞ্জ, নড়াইল, শরীয়তপুর ও ফেনী। বাংলাদেশ কৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের সহায়তায় প্রযুক্তির ব্যবহারের মাধ্যমে নেয়া হচ্ছে এ পরীক্ষা। এত দিন বিজি প্রেসে প্রশ্ন ছাপিয়ে পরীক্ষার কয়েক দিন আগেই তা বিতরণ করা হতো। এবার পরীক্ষার কয়েক ঘণ্টা আগে প্রশ্ন ছাপিয়ে পরীক্ষার ঠিক আগ মুহূর্তে তা কেন্দ্রে পাঠানো হবে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, আগামী ২৭ জুন প্রাথমিকভাবে দেশের পাঁচটি জেলা ডিজিটাল প্রদ্ধতিতে পরীক্ষা নেয়া হবে। পর্যায়ক্রমে অন্যান্য জেলার পরীক্ষা একই পদ্ধতিতে নেয়া হবে। প্রশ্নপত্র ফাঁস এড়িয়ে নির্বিঘেœ এই পরীক্ষা সম্পন্ন করা গেলে অন্যান্য নিয়োগ পরীক্ষা ও পাবলিক পরীক্ষায় এই পদ্ধতি অনুসরণ করা হবে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সন্তোষ কুমার অধিকারী জানান, ডিজিটাল পদ্ধতিতে প্রশ্ন প্রণয়ন করে প্রথমবারের মতো ৫ জেলায় পরীক্ষা নেয়া হবে। পাইলট প্রযুক্তির আওতায় এ পদ্ধতিতে পর্যায়ক্রমে বাকি জেলাগুলোতেও পরীক্ষা নেয়া হবে। জানা গেছে, যেসব জেলার পরীক্ষার্থীর সংখ্যা সাত হাজারের নিচে প্রথম পর্বে সেই ৭ জেলার পরীক্ষা নেয়া হচ্ছে। ৫ জেলায় মোট ৩৩ হাজার পরীক্ষার্থী এবার লিখিত পরীক্ষায় অংশ নেবেন।

সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণীর শিক্ষক নিয়োগের জন্য গত ডিসেম্বর মাসে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় বিজ্ঞপ্তি দেয়। এর আগের সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় ব্যাপক প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ার কারণে এবার পরীক্ষায় সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। আগের নিয়োগ পরীক্ষাগুলোর প্রশ্ন মডারেশনের দায়িত্ব ছিল ময়মনসিংহে অবস্থিত জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা একাডেমির (নেপ) ওপর। আর ছাপানোর দায়িত্বে ছিল বিজি প্রেস। এবারের ডিজিটালাইজ পরীক্ষা পদ্ধতিতে উল্লিখিত দুই প্রতিষ্ঠানের কোনই সম্পৃক্ততা থাকছে না। এবার প্রশ্ন প্রণয়নের জন্য মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে আলাদা দল গঠন করা হয়েছে। এই দল পরীক্ষার দিন (২৭ জুন) সকাল ৬টা থেকে ৮টার মধ্যে মন্ত্রণালয়ে বসে প্রশ্ন তৈরি করে দেবে। সেই প্রশ্ন অনলাইনের মাধ্যমে পাঠিয়ে দেয়া হবে জেলা প্রশাসকদের কাছে। জেলা প্রশাসক ও জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা নিজ নিজ পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে একসঙ্গে প্রশ্ন ডাউনলোড করবেন। দ্রুতগতির একাধিক ফটোকপি মেশিনে প্রশ্নপত্র কপি করে প্যাকেটে পুরে নিয়ে যায়া হবে পরীক্ষাকেন্দ্রে। দুপুর ১২টার মধ্যে এই প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে। জেলা পর্যায়ে প্রশ্ন ছাপানোর চার ঘণ্টার পুরো প্রক্রিয়া সিসি টিভিতে ধারণ করা হবে। এই প্রক্রিয়া তদারকির জন্য প্রতিটি জেলায় পাঠানো হবে মন্ত্রণালয় ও প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের একাধিক কর্মকর্তাকে। কর্মকর্তারা বলেছেন, যেহেতু একটি নতুন পদ্ধতিতে পরীক্ষা গ্রহণের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে তাই প্রাথমিকভাবে যেসব জেলায় প্রার্থী সংখ্যা কম সেই জেলাগুলোকে বেছে নেয়া হয়েছে। ডিজিটালি প্রশ্ন ছাপিয়ে সফলভাবে শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা নেয়া গেলে একই পদ্ধতিতে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা গ্রহণের বিষয়টিও ভাবা হবে।

প্রকাশিত : ১৬ জুন ২০১৫

১৬/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: