কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

জামায়াত ছাড়তে বহির্বিশ্বের চাপ নেই ॥ রিপন

প্রকাশিত : ১৪ জুন ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ২০ দলীয় জোট থেকে জামায়াত ছাড়ার বিষয়ে বহির্বিশ্বের কোন চাপ নেই বলে জানিয়েছেন বিএনপির মুখপাত্র ও আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন। শনিবার বিকেলে নয়াপল্টন বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির জোট গণতান্ত্রিক আন্দোলন ও ভোটের। এ জোট সম্পূর্ণ কৌশলগত।

আসাদুজ্জামান রিপন অভিযোগ করেন সরকার দেশের প্রতিটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংককে তাদের লুটপাট তন্ত্রে পরিণত করেছে। আর্থিক খাতের এই অব্যবস্থাপনা ও লুটপাটের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে সরকার কোন কার্যকর ব্যবস্থা নিচ্ছে না। বরং তাদের অন্যান্য ব্যাংকে নতুন করে পরিচালনা বোর্ডে নিয়োগ দিচ্ছে, যা কোন গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থায় কাম্য হতে পারে না। তিনি বলেন, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ব্যাংক ব্যবস্থাপনাকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করতে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন। অথচ বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালীন দেশের প্রতিটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক ঝুঁকিমুক্ত ছিল। আর এখন প্রতিটি ব্যাংকে ডাকাত পড়েছে। চলছে সরকারের মদদে হরি লুট।

বিএনপির প্রতিষ্ঠাকালীন মহাসচিব ও বর্তমানে বিকল্পধারার সভাপতি অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরীর বক্তব্য ‘খালেদা জিয়ার বিএনপি এখন জামায়াত নির্ভর’ প্রসঙ্গে প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে রিপন বলেন, বি চৌধুরী এখন আরেকটি দল করলেও তার দর্শনও জিয়াউর রহমানের আদর্শ। আর তার ওই মন্তব্য একান্তই ব্যক্তিগত। তবে বিএনপি জামায়াত নির্ভর দল নয়। বিএনপি জিয়াউর রহমানের দর্শন ও মূলনীতি দিয়ে পরিচালিত হয়। আর ২০ দলীয় জোটে শুধু জামায়াত নয়, আন্দালিব রহমান পার্থের বিজেপিও আছে, সাম্যবাদী দলও আছে। তারা তাদের রাজনীতি করে। আর বিএনপি জিয়াউর রহমানের দর্শনের রাজনীতি করে।

রিপন বলেন, বেসিক ব্যাংকের লুটপাট নিয়ে গণমাধ্যমে অভিযোগ উঠলে অর্থমন্ত্রী বলেছিলেন, ব্যাংকের এমডি আঃ হাই বাচ্চুর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। অথচ ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। তিনি বলেন, বিএনপির শাসনামলে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলো ঝুঁকিমুক্ত ছিল। অথচ এ সরকারের সাত বছরে এসব ব্যাংকগুলো লুটপাটের মাধ্যমে দূরবস্থায় ফেলা হয়েছে। লুণ্ঠনের মাধ্যমে প্রতিটি ব্যাংককে ঝাঝরা ও ফোকলা করা হয়েছে। অনির্বাচিত সংসদে আমরা এর জবাবদিহিতা চাই না। তবে জনগণ তাদের ছাড়বে না। জনগণের কাছে অবশ্যই জবাবদিহি করতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ, সহ-তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব, সহ-দফতর সম্পাদক আবদুল লতিফ জনি, আসাদুল করিম শাহিন প্রমুখ।

আমরা দেশের স্বার্থে কথা বললে আওয়ামী লীগ বলে ভারতবিরোধীÑ নোমান ॥ ভারত তিস্তার পানি বণ্টন না করে নিজেদের স্বার্থে ফেনী নদীর পানি বণ্টনের কথা বলছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান। তিনি বলেন, আগে তিস্তা নদীর পানি বণ্টন চুক্তি সম্পন্ন করতে হবে। তারপর অন্য নদীর পানি নিয়ে চুক্তি হতে পারে। আর আমরা দেশের স্বার্থে এ ধরনের কথা বললে আওয়ামী লীগ বলে ভারতবিরোধী। শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘জাতীয়তাবাদী বন্ধু দল’ নামক একটি সংগঠন আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

নোমান বলেন, নরেন্দ্র মোদির সফরের আগে কুমিল্লায় পেট্রোল বোমা মেরে তাকে সরকার বোঝাতে চেয়েছেন বিএনপি-জামায়াত সহিংসতা করছে। কিন্তু বিএনপি এখন আন্দোলনে নেই। তারপরও সরকার বিএনপি- জামায়াতের ওপর দোষ চাপিয়ে দিচ্ছে। আর বিএনপি নেতাদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে কারাগারে পাঠানোর ষড়যন্ত্র করছে। গত ১০ দিনে দশটি শিশুকে হত্যা করা হয়েছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগই আওয়ামী লীগকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না। ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ যে যার মতো সন্ত্রাসী কর্মকা- চালিয়ে দখল বাণিজ্য করছে। প্রশাসনে দলীয়করণ বন্ধ করতে ব্যর্থ হয়েছে সরকার।

সরকারের ফ্যাসিবাদী কায়দায় নির্যাতনের শিকার হয়ে বিএনপির হাজার হাজার নেতাকর্মী ঘর ছাড়া হয়ে পড়েছেন অভিযোগ করে নোমান বলেন, গণতান্ত্রিক দেশে এভাবে অত্যাচার চলতে পারে না।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি শরীফ মোস্তফা জামান লিটুর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা এ্যাডভোকেট আহমেদ আজম খান, বিএনপির সহ-তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব, সহ-স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক এবিএম মোশাররফ হোসেন, সহ-দফতর সম্পাদক আসাদুল করিম শাহীন প্রমুখ।

প্রকাশিত : ১৪ জুন ২০১৫

১৪/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: