মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

নৌ-নিরাপত্তা সপ্তাহ শুরু আজ

প্রকাশিত : ১৪ জুন ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আজ থেকে সারাদেশে শুরু হচ্ছে জাতীয় নৌ-নিরাপত্তা সপ্তাহ। ‘সচেতন হই এবং নৌ-দুর্ঘটনা পরিহার করি’ এমন প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে নৌ-নিরাপত্তা সপ্তাহের। সারাদেশের মানুষকে সচেতন করে তোলার লক্ষ্যে প্রতি বছরের ন্যায় এবারও সারাদেশে ১৪ জুন থেকে সপ্তাহব্যাপী’ নৌ-নিরাপত্তা সপ্তাহ পালন করা হচ্ছে। সপ্তাহব্যাপী সমুদ্রপরিবহন অধিদফতর বিশেষ বিশেষ কর্মসূচী পালন করবে। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

নৌ নিরাপত্তা সপ্তাহ উপলক্ষে বাণীতে বলেন, নদীমাতৃক বাংলাদেশে আর্থ সামাজিক উন্নয়নে নৌ পরিবহনের গুরুত্ব অপরিসীম। বর্তমান এবং আগামী প্রজন্মের জন্য নৌ পরিবহনকে অধিকতর আকর্ষণীয় করার জন্য সুস্থ পরিবেশ, নৌ এবং যাত্রী নিরাপত্তা নিশ্চিত করা একান্ত আবশ্যক। ভৌগোলিক অবস্থানগত কারণে বাংলাদেশ একটি দুর্যোগপ্রবণ অঞ্চল হওয়ায় মার্চ থেকে অক্টোবর পর্যন্ত কালবৈশাখী ঝড়ের তা-ব বেশি থাকে। ফলে এই সময়ে নৌ-দুর্ঘটনার আশঙ্কাও বেশি দেখা যায়। এ রকম একটি সময়ে নৌ নিরাপত্তা সপ্তাহ উদযাপনের মাধ্যমে জনসচেতনতা বৃদ্ধির উদ্যোগ একটি সময়োপযোগী পদক্ষেপ। এবারের নৌ-নিরাপত্তা সপ্তাহের প্রতিপাদ্য ‘সচেতন হই এবং নৌ-দুর্ঘটনা পরিহার করি’ যথার্থ হয়েছে বলে আমি মনে করি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নৌ-নিরাপত্তা সপ্তাহ উপলক্ষে দেয়া বাণীতে বলেন, দিবসের এবারের প্রতিপাদ্য ‘সচেতন হই এবং নৌ দুর্ঘটনা পরিহার করি’ যা অত্যন্ত সময়োপযোগী হয়েছে বলে আমি মনে করি।

নদীমাতৃক বাংলাদেশে অভ্যন্তরীণ যোগাযোগ ব্যবস্থার প্রাচীনতম ও ঐতিহ্যবাহী মাধ্যম নৌপথ। এদেশের আর্থ সামাজিক উন্নয়নে নৌ-পরিবহনের গুরুত্ব অপরিসীম।

আমাদের সরকার গত সাড়ে ছয় বছরে নৌপথের নাব্য পুনরুদ্ধার, নদী দখল ও দূষণমুক্ত রাখা এবং গুরুত্বপূর্ণ নদ-নদীর পানি প্রবাহ ও পানি ধারণক্ষমতা বৃদ্ধি করাসহ এ খাতের উন্নয়নে ব্যাপক কর্মসূচী বাস্তবায়ন করেছে। নৌ-দুর্ঘটনা হ্রাসে নদীবন্দরসমূহে নিরাপত্তা জোরদার, অনুমোদিত ড্রইং ও ডিজাইন অনুযায়ী অভ্যন্তরীণ নৌযান নির্মাণ, ত্রুটিপূর্ণ নৌযান শনাক্তকরণ, নৌযান রেজিস্ট্রেশন, সার্ভে, মেরিন অফিসার ও নাবিকদের প্রশিক্ষণ ও পরীক্ষা পদ্ধতি আধুনিকীকরণ, আন্তর্জাতিক কনভেনশন বাস্তবায়ন, নৌ-নিরাপত্তা বিষয়ে জনসচেতনতা বৃদ্ধি কার্যক্রম ও আইন ভঙ্গকারীদের বিরুদ্ধে শাস্তির ব্যবস্থা প্রহণসহ নানাবিধ কর্মসূচী বাস্তবায়ন করা হয়েছে। মংলা-ঘষিয়াখালী চ্যানেল পুনরায় চালু করা হয়েছে। আমরা নদীরক্ষা কমিশন প্রতিষ্ঠা করেছি। আমাদের এসব কার্যক্রমের ফলে নৌপরিবহন খাত আধুনিক, গতিশীল ও সেবামুখী হয়েছে। জনগণ কাক্সিক্ষত নৌসেবা পাচ্ছেন।

নৌ-নিরাপত্তা সপ্তাহ উপলক্ষে আজ সদরঘাটে র‌্যালির আয়োজন করা হয়েছে। এতে নৌমন্ত্রী শাজাহান খান উপস্থিত থাকবেন। এ উপলক্ষে সারাদেশেই সমুদ্র পরিবহন অধিদফতর বিশেষ আয়োজন করছে।

প্রকাশিত : ১৪ জুন ২০১৫

১৪/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: