মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

মাদারীপুরে ধর্ষকের বিয়ে ॥ অনাগত সন্তান পেল বাবার স্বীকৃতি

প্রকাশিত : ১৩ জুন ২০১৫

নিজস্ব সংবাদদাতা, মাদারীপুর, ১২ জুন ॥ অবশেষে ধর্ষিতা ছাত্রীকে স্ত্রীর মর্যাদা দিল ধর্ষক এবং একই সঙ্গে অনাগত সন্তান পেল বাবার স্বীকৃতি। মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার ইশিবপুর ইউনিয়নের সাতবাড়িয়া গ্রামের ৫ম শ্রেণীর এক ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনার পর ৬ মাসের অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। ফলে ঐ পরিবার ছাত্রীর ভবিষ্যৎ ও অনাগত সন্তানের বাবার স্বীকৃতি নিয়ে শঙ্কায় পড়ে যায়। ঘটনার ৬ মাস পর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ইশিবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এইচএম সিরাজুল ইসলামের নেতৃত্বে সালিশের মাধ্যমে ধর্ষিতা ছাত্রীর সঙ্গে ধর্ষক শহিদুল ইসলাম সজিবের বিয়ে দেয়া হয়। এতে ওই অসহায় পরিবারটির মধ্যে মেয়ের ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কা দূর হয়। স্থানীয়, পারিবারিক ও জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, প্রায় ৬ মাস আগে বাবার মোবাইল ফোন চার্জ দিতে একই বাড়ির মরহুম কাওছার মিয়ার কাচারী ঘরে এলে তার ছোট ছেলে শহিদুল ইসলাম সজিব (২৪) ৫ম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণ করে। ছাত্রীটি লজ্জায় ঐ সময় ঘটনাটি কাউকে জানায়নি। এক পর্যায়ে সে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। ঘটনাটি এলাকায় জানাজানি হলে পরিবারটি মেয়ের ভবিষ্যৎ ও অনাগত সন্তানের বাবার স্বীকৃতি নিয়ে শঙ্কায় পড়ে যায়। মাদারীপুরের মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মাহমুদা আক্তার কণা এ খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজৈরে গিয়ে ওই পরিবারকে আইনের সাহায্যের কথা জানান। কিন্তু পরিবারটি সামাজিকভাবে স্বীকৃতির দাবি জানালে সন্ধ্যায় সালিশের মাধ্যমে ধর্ষিতা ছাত্রীর সঙ্গে ধর্ষক শহিদুল ইসলাম সজিবের বিয়ে দেয়া হয়।

প্রকাশিত : ১৩ জুন ২০১৫

১৩/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: