মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
৯ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

কসাই সিরাজসহ তিন রাজাকারের যুক্তিতর্ক ১৫ জুন থেকে

প্রকাশিত : ৮ জুন ২০১৫
  • যুদ্ধাপরাধী বিচার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় গ্রেফতারকৃত বাগেরহাটের তিন রাজাকার কসাই সিরাজ মাস্টার, খান আকরাম হোসেন ও লতিফ তালুকদারের মামলায় ১৫ জুন থেকে যুক্তিতর্কের জন্য তারিখ পুনর্নির্ধারণ করেছেন ট্রাইব্যুনাল। অন্যদিকে, একাত্তরে যুদ্ধাপরাধের দায়ে দ-িত বিএনপি নেতা সালাউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরীর আইনজীবী ব্যারিস্টার ফখরুল ইসলামের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগের বিষয়ে আদেশ আগামী ৩০ জুলাই পুনর্নির্ধারণ করা হয়েছে। চেয়ারম্যান বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ রবিবার এ আদেশ প্রদান করেছেন। ট্রাইব্যুনালে অন্য দুই সদস্য ছিলেন বিচারপতি জাহাঙ্গীর হেসেন সেলিম ও বিচারপতি আনোয়রুল হক।

ট্রাইব্যুনাল গরম আবহাওয়া এবং সুপ্রীমকোর্টের অবকাশকালীন ছুটি বিষয়টি বিবেচনা করে বাগেরহাটের তিন রাজাকারের মামলার কার্যক্রম আগামী ১৫ জুন পর্যন্ত মুলতবি করেন। তারও আগে প্রসিকিউশন ১৫ দিনের সময় আবেদন করলেও আদালত আরও ১৫ দিন বাড়িয়ে এক মাসের সময় দেন। এ মামলায় উভয় পক্ষের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়েছে। গত ৫ মে থেকে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুরু হওয়ার কথা ছিল। ট্রাইব্যুনালে আসামি খান আকরাম ও লতিফ তালুকদারের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার মীর সরোয়ার হোসেন এবং সিরাজ মাস্টারের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন আবুল হাসান। অপরদিকে, রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন প্রসিকিউটর হƒষিকেশ সাহা, প্রসিকিউটর তুরিন আফরোজ, প্রসিকিউটর হায়দার আলী, প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সাইয়েদুল হক সুমন। ২০১৪ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর তিন আসামির বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ আমলে নেয় ট্রাইব্যুনাল। তার আগের দিন ১৪ সেপ্টেম্বর সায়েদুল হক সুমন ও শেখ মুশফিক কবির তাদের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করেন। প্রসিকিউশন তাদের বিরুদ্ধে যৌথভাবে ৪টি অভিযোগ আনা হয়। ২০১৪ সালের ২৫ আগস্ট এই তিনজনের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন চূড়ান্ত করেন তদন্ত সংস্থা। এ মামলায় আসামিদের পক্ষে ৪ জন সাফাই সাক্ষী উপস্থাপন করেন আসামিপক্ষের আইনজীবীরা।

আদালত অবমাননা ॥ একাত্তরে যুদ্ধাপরাধের দায়ে দ-িত বিএনপি নেতা সালাউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরীর আইনজীবী ব্যারিস্টার ফখরুল ইসলামের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগের বিষয়ে আদেশ আগামী ৩০ জুলাই পুনর্নির্ধারণ করেছেন ট্রাইব্যুনাল। রবিবার আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ এর চেয়ারম্যান বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বে তিন সদস্যের বেঞ্চ এ দিন ধার্য করেন। ফলে এ নিয়ে সাত বারের মতো তার আদেশের দিন পেছানো হলো। ব্যারিস্টার ফখরুলের পক্ষে ট্রাইব্যুনালে সময় আবেদন করেন আইনজীবী হুজ্জাতুল ইসলাম আল ফেসানী। আবেদনে ব্যারিস্টার ফখরুল কারাগারে থাকা অবস্থায় অন্তর্বর্তীকালীন জামিন পেতে পারেন এবং নিজে ট্রাইব্যুনালে উপস্থিত হয়ে যাবতীয় ব্যাখ্যা উপস্থাপন করতে পারেন বলে দুই মাসের সময় চাওয়া হয়। পরে ট্রাইব্যুনাল আবেদনটি বিবেচনা করে মামলাটির আদেশের জন্য আগামী ৩০ জুলাই দিন নির্ধারণ করেন।

সাকা চৌধুরীর মামলার রায়ের খসড়া ফাঁস করার অভিযোগে দায়েরকৃত মামলায় বর্তমানে কারাগারে আটক আছেন ব্যারিস্টার ফখরুল। অন্যদিকে ট্রাইব্যুনাল চেয়ারম্যান এটিএম ফজলে কবিরের অবসর গ্রহণের কারণে চেয়ারম্যানের পদ শূন্য ছিল। গত ১২ জানুয়ারি আদেশ দেয়ার দিন ধার্য থাকলেও খাস-কামরায় বসে তা পিছিয়ে ২৬ ফেব্রুয়ারি পুনর্নির্ধারণ করেছিলেন ট্রাইব্যুনালের অন্য দুই সদস্য বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন ও বিচারপতি আনোয়ারুল হকের বেঞ্চ। পরে গত ২৩ ফেব্রুুয়ারি নিয়োগ পাওয়া চেয়ারম্যান বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম গতকাল প্রথম বিচারিক কার্যক্রম শুরু করেন। ব্যারিস্টার ফখরুলের পক্ষে কোন আইনজীবী না থাকায় ট্রাইব্যুনাল চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেট তাজুল ইসলামকে এ দায়িত্ব পালনের অনুরোধ জানান। পরে এ্যাডভোকেট তাজুল ৩ মাস সময়ের আবেদন করলে আদালত এ সময় দেন।

প্রকাশিত : ৮ জুন ২০১৫

০৮/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: