মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
৯ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

মোদির সঙ্গে আজ রওশন ও খালেদার সাক্ষাত

প্রকাশিত : ৭ জুন ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সাক্ষাত করবেন জাতীয় সংসদে বিরোধী দলের নেতা বেগম রওশন এরশাদ। আজ রবিবার বিকেল ৩টা ১০ মিনিটে সোনারগাঁও হোটেলের সুরমা হলে এ সাক্ষাত অনুষ্ঠিত হবে। রওশন এরশাদের পর সোনারগাঁও হোটেলেই নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সাক্ষাত করবেন বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া।

এদিকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে খালেদা জিয়া সাক্ষাতের সুযোগ পাওয়ায় বিএনপিতে স্বস্তি ফিরে এসেছে। সাক্ষাতকালে খালেদা জিয়া বিএনপির পক্ষ থেকে একটি লিখিত বক্তব্য মোদির কাছে হস্তান্তর করবেন। এছাড়া দুই দেশের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলবেন। দেশে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের ব্যাপারে ভারতের সহযোগিতা চাবেন বলে জানা গেছে।

দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় মোদির হস্তক্ষেপ চাই- আহমেদ আজম ॥ দেশে গণতন্ত্রের সঙ্কট অভিযোগ করে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা এ্যাডভোকেট আহমেদ আজম খান বলেছেন, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির হস্তক্ষেপ চাই। শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘সাউথ এশিয়া ইয়ুথ ফর পিস এ্যান্ড প্রোসপারেটি সোসাইটি’ আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

আহমেদ আজম বলেন, ভারত আমাদের প্রতিবেশী, বন্ধুপ্রতিম ও বড় দেশ। সে দেশের নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আমাদের দেশে এসেছেন। তাই আমাদের দেশে ভোটের অধিকার ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় মোদির হস্তক্ষেপ কামনা করছি। তিনি বলেন, দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা না হওয়ায় যদি জঙ্গীবাদের উত্থান হয় তার প্রভাব প্রতিবেশী দেশ ভারতেও পড়বে।

আশা করি দেশের গণতন্ত্রের স্বার্থে পদক্ষেপ নেবেন মোদি- হান্নান শাহ ॥ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে গণতন্ত্রের প্রবর্তক আখ্যা দিয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব) আ স ম হান্নান শাহ বলেছেন, আশা করি, বাংলাদেশের গণতন্ত্রের স্বার্থে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবেন তিনি। শনিবার দুপুরে জিয়াউর রহমানের ৩৪তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে যুবদল আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

হান্নান শাহ? বলেন, ভারত একটি গণতান্ত্রিক দেশ। তারা নিজেদের স্বার্থে গণতন্ত্র নিয়ে কাজ করে। কিন্তু ভারতের কংগ্রেস সরকার বাংলাদেশে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে একটি দলকে সমর্থন দিয়ে বিনা ভোটের সরকার প্রতিষ্ঠিত করেছে। যে সরকার তাতে লজ্জাবোধ করে না। তাই মোদি সরকার কোন দলের না হয়ে গণতন্ত্রের স্বার্থে কাজ করবে বলে আমরা আশা করি। তিনি বলেন, ভারত ট্রানজিট সুবিধা নিয়েছে। তাতে দেশের এক পয়সাও লাভ হয়নি। অথচ ভারত আগে বলেছিল, ট্রানজিট দিলে বাংলাদেশ ট্যাক্স পাবে।

যুবদল সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলালের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জআমান রিপন, সহসাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, যুবদল নেতা গিয়াস উদ্দিন আল মামুন প্রমুখ।

প্রকাশিত : ৭ জুন ২০১৫

০৭/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: