মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

সামনে রোজা ॥ চাঁপাইয়ে এখনই বেপরোয়া চোরাচালান চক্র

প্রকাশিত : ৭ জুন ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার, চাঁপাইনবাবগঞ্জ ॥ দুই সপ্তাহ পরই রোজা, পরবর্তীতে ঈদ। এ দুটি বড় ধরনের ধর্মীয় বিধিবিধান ও উৎসবকে সামনে রেখে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে চোরাচালান সিন্ডিকেট। চাঁপাইনবাবগঞ্জসহ বৃহত্তর রাজশাহী সীমান্তপথে ভারতীয় পণ্য আনার ব্যাপারে আগাম চুক্তি করেছিল সিন্ডিকেট সদস্যরা। তাই এখন প্রতিদিন সীমান্তপথে বিপুল পরিমাণ ভারতীয় পণ্য আসা শুরু হয়েছে। শাড়ি, থ্রিপিসসহ অবৈধভাবে আসা এসব ভারতীয় পণ্যে রোজার আগেই বাজার সয়লাব হয়ে পড়বে। শাড়ি, থ্রিপিসের পাশাপাশি হেরোইন, ফেনসিডিলও আসছে। বিশেষ করে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সংলগ্ন গোদাগাড়ী এলাকায় ইয়াবার বড় বড় চালান এসে ভর্তি হয়ে গেছে। এখানে হাত বাড়ালেই পাওয়া যায় ইয়াবা। আসল ইয়াবার সঙ্গে প্রচুর পরিমাণে ভেজাল ইয়াবাও এসে জুটেছে এই সীমান্তে। গত তিন মাসে চাঁপাইনবাবগঞ্জ, গোদাগাড়ী ও আংশিক নওগাঁর সীমান্তপথে আসা ফেনসিডিল, হেরোইন, গাঁজা ও ইয়াবা আটক হয়েছে কয়েক কোটি টাকার। র‌্যাব, বিজিবি ও পুলিশ পৃথক পৃথক অভিযানে প্রায় প্রতিদিন আটক করছে হেরোইন, ফেনসিডিল ও ইয়াবা। গোদাগাড়ী সীমান্তে মাদকের এজেন্ট হিসেবে কাজ করে ২১টি সিন্ডিকেট। তাদের সদস্য সংখ্যা প্রায় সহস্রাধিক।

এদিকে, চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরের কয়েকটি মার্কেটের কাপড় ও রেডিমেড ব্যবসায়ীরা তাদের গুদাম ভর্তি করা শুরু করেছে ভারতীয় থ্রিপিসে। কী ধরনের থ্রিপিস প্রয়োজন তার চাহিদার অর্ডার দিতে এসব ব্যবসায়ী ইতোমধ্যেই ভারত সফর করে এসেছে। সে অনুসারে মাল আসাও শুরু হয়েছে। অতীতে চাঁপাইনবাবগঞ্জ অঞ্চলের প্রায় চিহ্নিত শতাধিক কাপড় ও থ্রিপিস পাচারকারী জেলা শহরের বিভিন্ন মার্কেটে দোকান কিনে ব্যবসায়ী সেজে চোরাচালান শুরু করেছে। এরা ঢাকা ও চট্টগ্রামসহ দেশের একাধিক বড় বাজারেও ভারতীয় থ্রিপিসের যোগান দেবে বলে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে। একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে, চাঁপাইনবাবগঞ্জ সীমান্তপথে এবার ঈদের চাহিদার প্রেক্ষিতে ২৫০ কোটি টাকার মালামাল আনা হচ্ছে। এর পাশাপাশি মাদকদ্রব্য চোরাচালান সিন্ডিকেট সক্রিয়। প্রতিদিন ভারত থেকে আনছে কোটি কোটি টাকার মাদকদ্রব্য। এবার মাদকের নতুন রুট ভোলাহাট সীমান্ত। কাজী জালালের বাগান এখন চোরাকারবারি সিন্ডিকেটের বড় মার্কেট।

গলাচিপায় পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ

স্টাফ রিপোর্টার, গলাচিপা ॥ পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলার কলাগাছিয়া পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের ইনচার্জ মোঃ লুৎফর রহমানের বিরুদ্ধে শনিবার বেলা ১১টার দিকে এলাকাবাসী বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধন করেছে। কলাগাছিয়া বাজারে প্রায় ঘণ্টাব্যাপী অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশে এলাকার সর্বস্তরের মানুষ অংশগ্রহণ করে। স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরাও এতে যোগ দেয়। তারা ইনচার্জের অবিলম্বে বদলির দাবি করেছে। এলাকাবাসীর অভিযোগ, ওই ইনচার্জ তদন্তকেন্দ্রে যোগ দেয়ার পর থেকে একজন চিহ্নিত অপরাধীকে সঙ্গে নিয়ে সার্বক্ষণ ঘুরে বেড়ান এবং নিরীহ লোকজনদের ভয়ভীতি দেখিয়ে অর্থ আদায় করেন। তার দাপটে এলাকার মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। যখন তখন যাকে তাকে গ্রেফতারের ভয় দেখান। এ বিষয়ে কলাগাছিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ দুলাল চৌধুরী জানান, এলাকাবাসীর অভিযোগের ভিত্তিতে তিনি তদন্তকেন্দ্রের ইনচার্জকে অবিলম্বে বদলির জন্য পুলিশ সুপারের কাছে আবেদন করেছেন। বিক্ষোভ মিছিল, সমাবেশ ও মানববন্ধনের সত্যতা স্বীকার করে তদন্তকেন্দ্রের ইনচার্জ মোঃ লুৎফর রহমান জানান, তার বিরুদ্ধে ওই কর্মসূচী হয়নি। অপর এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে এ কর্মসূচী হয়েছে। তার বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর কোন অভিযোগ নেই বলেও তিনি দাবি করেন।

প্রকাশিত : ৭ জুন ২০১৫

০৭/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: