রৌদ্রজ্জ্বল, তাপমাত্রা ২৩.৯ °C
 
৯ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

ভবিষ্যত জীবন

প্রকাশিত : ৬ জুন ২০১৫

একটি ছোট ক্যাপসুলে করা যাবে বসবাস, ক্যাপসুলটি আবার যে কোন জায়গায় সঙ্গে করে নেয়াও যাবে। ক্যাপসুলের ভেতরেই থাকবে বাসিন্দার আলাদা বাস্তুতন্ত্র। এখানেই করা যাবে ঘুম, খাওয়া-দাওয়াসহ দৈনন্দিন সব কাজ। না, এখানে কোন বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীর কথা বলা হচ্ছে না। বলা হচ্ছে বিজ্ঞানের নতুন এক উদ্ভাবনের বিবরণ। প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট ম্যাশএবল জানিয়েছে, ‘ইকোক্যাপসুল’ নামের একটি বায়ু ও সৌরচালিত পাত্র বানিয়েছে সেøাভাকিয়াভিত্তিক প্রতিষ্ঠান নাইস আর্কিটেক্টস। ‘অফ-গ্রিড’ অবস্থায় বসবাসের সুবিধা দিতেই ইকোক্যাপসুল ডিজাইন করা হয়েছে বলে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। পুরো স্বয়ংসম্পূর্ণ প্রতিটি ইকোক্যাপসুলেই রয়েছে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন বায়ু ও সৌরচালিত ব্যাটারি আর পানি বিশুদ্ধকরণ ব্যবস্থা। প্রতিষ্ঠানটির মতে, আকারে একদম ছোট হওয়ায় এটি সহজেই এক জায়গা থেকে অন্যত্র সরিয়ে নেয়া যাবে। বাতাসের মাধ্যমে চলা একটি টারবাইন আর সৌরশক্তি ব্যবহার করে চলবে ক্যাপসুলটির ৯৭৪৪ ওয়াটের ব্যাটারিটি। বৃষ্টি আর কুয়াশা থেকে পানি সংগ্রহ করে তা পুনরায় ব্যবহার উপযোগী করার ব্যবস্থাও রয়েছে এতে। প্রতিটি ইকোক্যাপসুলের আকার হবে ১শ’ বর্গফুট আর এতে অনায়াসে দুইজন প্রাপ্তবয়স্ক লোক থাকতে পারবে। প্রতিটিতেই থাকছে বিছানা, রান্নাঘর, গোসলখানা, টেবিল-চেয়ারসহ ছোট কাজের জায়গা। শুধু তাই না- এর সঙ্গে রয়েছে গরম পানির ব্যবস্থা আর ‘ফ্ল্যাশ’ করার সুবিধাসহ টয়লেট। ২০১৬ সালের প্রথমার্ধেই ইকোক্যাপসুলের জন্য প্রি-অর্ডার নেয়া শুরু করবে নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি। তবে, বিক্রির সময় এর দাম কত হবে তা নিয়ে এখনও কিছু জানানো হয়নি। মে মাসের শেষে বা জুনের প্রথমদিকে অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় আর এ বছরের শেষে সেøাভাকিয়ার ন্যাশনাল প্যাভিলিয়নে ইকোক্যাপসুল সবার কাছে প্রদর্শন করার পরিকল্পনা করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

প্রকাশিত : ৬ জুন ২০১৫

০৬/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: