রৌদ্রজ্জ্বল, তাপমাত্রা ২৩.৯ °C
 
৮ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ফোরকান মল্লিকের বিরুদ্ধে প্রসিকিউশনের যুক্তিতর্ক শেষ

প্রকাশিত : ২ জুন ২০১৫
  • যুদ্ধাপরাধী বিচার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত পটুয়াখালীর রাজাকার কমান্ডার ফোরকান মল্লিকের বিরুদ্ধে প্রসিকিউশন পক্ষ যুক্তিতর্ক শেষ করেছেন। আজ মঙ্গলবার থেকে আসামি পক্ষের আইনজীবী যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করবেন। আসামি পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষ হলে পুনরায় প্রসিকিউশন পাল্টা আইনী যুক্তি উপস্থাপন শেষে মামলার বিচারিক কার্যক্রম শেষ হবে। অন্যদিকে নেত্রকোনার মোঃ ওবায়দুল হক তাহের ও আতাউর রহমান ননীর বিরুদ্ধে প্রসিকিউশনের সপ্তম সাক্ষী নবী নেওয়াজ তালুকদারকে আসামিপক্ষের জেরা শেষ হয়েছে। আসামি ১০ জুন পরবর্তী সাক্ষীর জবানবন্দীর জন্য দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। কিশোরগঞ্জের পাঁচ আসামির মধ্যে পলাতক চারজনকে আত্মসমর্পণের জন্য ১ জুলাইয়ের মধ্যে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের নির্দেশ দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। জামালপুরের ৮ রাজাকারের মধ্যে গ্রেফতারকৃত ২ রাজাকার এ্যাডভোকেট শামছুল হক ও এসএম ইউসুফ আলীর জামিন আদেশের জন্য আসামি ২২ জুলাই দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। সোমবার আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ ও ২ এ আদেশ গুলো প্রদান করেছেন।

রাজাকার ফোরকান মল্লিকের মামলাটি প্রায় শেষের দিকে। প্রসিকিউশনপক্ষ তার বিরুদ্ধে যুক্তিতর্ক শেষ করেছে। আজ থেকে আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক শুরু হবে। চেয়ারম্যান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান শাহীনের নেতৃত্বে তিন সদস্যবিশিষ্ট আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ সোমবার এ আদেশ প্রদান করেছেন। ট্রাইব্যুনালে অন্য দুই সদস্য ছিলেন বিচারপতি মোঃ মুজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মোঃ শাহিনুর ইসলাম।

সোমবার তৃতীয় কার্যদিবসে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ করেন প্রসিকিউটর মোখলেসুর রহমান বাদল। গত ২৮ মে শুরু করে ফোরকানের বিরুদ্ধে আনা পাঁচটি অভিযোগের সবগুলোর বিষয়ে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ করলেন তিনি। ১৯ জানুয়ারি থেকে ১৯ এপ্রিল পর্যন্ত ফোরকান মল্লিকের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিয়েছেন তদন্ত কর্মকর্তা সত্য রঞ্জন রায়সহ প্রসিকিউশন পক্ষের ১৪ জন সাক্ষী। অন্যরা হলেন মোঃ হাবিবুর রহমান বাদশা, মোঃ চাঁন মিয়া, কবিরাজ শান্তি রঞ্জন দে, নির্যাতনের শিকার একজন নারী সাক্ষী (ক্যামেরা ট্রায়াল), সেলিম হাওলাদার, মোঃ হাবিবুর রহমান মৃধা, মতিলাল রায়, মোঃ সুন্দর গাজী, রাখাল চন্দ্র ভক্ত, পুষ্প রানী কর্মকার, রাজিয়া বেগম, সালেহা বেগম ও আব্দুল হামিদ মল্লিক। অন্যদিকে, গত ২৬ এপ্রিল থেকে ১৭ মে পর্যন্ত ফোরকান মল্লিকের পক্ষে সাক্ষ্য দিয়েছেন চারজন সাফাই সাক্ষী। তারা হলেনÑ ইসহাক আলী খান, মৃদুল চন্দ্র সেন মধু, গোবিন্দ কু-ু।

গত ১৯ জানুয়ারি ফোরকান মল্লিকের বিরুদ্ধে সূচনা বক্তব্য (ওপেনিং স্টেটমেন্ট) উপস্থাপন করেন প্রসিকিউটর মোখলেছুর রহমান বাদল। গত বছরের ১৮ ডিসেম্বর ফোরকান মল্লিকের বিরুদ্ধে হত্যা-গণহত্যা, ধর্ষণ, লুণ্ঠন, অগ্নিসংযোগ, ধর্মান্তকরণ ও দেশান্তরকরণের ৫টি মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযোগ (চার্জ) গঠন করা হয়। এর মধ্যে রয়েছে ৮ জনকে হত্যা ও গণহত্যা, ৪ জনকে ধর্ষণ, ৩ জনকে ধর্মান্তকরণ, ১৩টি পরিবারকে দেশান্তরকরণ, ৬৪টি বসতঘর ও দোকানপাটে লুণ্ঠন ও অগ্নিসংযোগের অভিযোগ।

বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের নির্দেশ ॥ একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় কিশোরগঞ্জের পাঁচ আসামির মধ্যে পলাতক চারজনকে আত্মসমর্পণের জন্য পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের নির্দেশ দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। চেয়ারম্যান বিচারপতি এম এনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বে তিন সদস্যবিশিষ্ট আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ সোমবার এ আদেশ প্রদান করেছেন। ট্রাইবুনালে অন্য দুই সদস্য ছিলেন বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম ও বিচারপতি আনোয়ারুল হক।

পাঁচ আসামি হচ্ছেনÑ করিমগঞ্জের দুই সহোদর সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত ক্যাপ্টেন মোঃ নাসিরউদ্দিন আহমেদ ও কিশোরগঞ্জ জেলা বারের আইনজীবী মোঃ শামসুদ্দিন আহমেদ এবং কিশোরগঞ্জের রাজাকার কমান্ডার গাজী আব্দুল মান্নান, হাফিজ উদ্দিন ও আজহারুল ইসলাম। পাঁচজনের বিরুদ্ধেই ট্রাইব্যুনাল গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করলেও এ পর্যন্ত কেবলমাত্র গ্রেফতার হয়েছেন এ্যাডভোকেট শামসুদ্দিন।

সোমবার পলাতক চারজনকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দিয়ে আসামি ১ জুলাইয়ের মধ্যে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের জন্য ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রারকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। গত ১৩ মে পাঁচজনের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ আমলে নেন ট্রাইব্যুনাল। ১০ মে আনুষ্ঠানিক অভিযোগটি দাখিল করে শুনানি করেন প্রসিকিউটর সুলতান মাহমুদ সীমন, তাপস কান্তি বল ও রেজিয়া সুলতানা চমন। আসামিপক্ষের আইনজীবী ব্যারিস্টার আতিকুর রহমান ট্রাইব্যুনালে উপস্থিত ছিলেন।

ননী-তাহের ॥ একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত নেত্রকোনার মোঃ ওবায়দুল হক তাহের ও আতাউর রহমান ননীর বিরুদ্ধে প্রসিকিউশনের সপ্তম সাক্ষী নবী নেওয়াজ তালুকদারকে আসামিপক্ষের জেরা শেষ হয়েছে। আসামি ১০ জুন পরবর্তী সাক্ষীর জন্য দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। চেয়ারম্যান বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বে তিন সদস্যবিশিষ্ট আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ এ আদেশ প্রদান করেছেন। গত ৫ এপ্রিল ননী-তাহেরের বিরুদ্ধে সূচনা বক্তব্য (ওপেনিং স্টেটমেন্ট) উপস্থাপন করেন প্রসিকিউটর মোখলেসুর রহমান বাদল। গত ২ মার্চ ওবায়দুল হক তাহের ও আতাউর রহমান ননীর বিরুদ্ধে হত্যা, গণহত্যা, অপহরণ, দেশান্তরিতকরণ, বাড়িঘরে আগুন ও লুটপাটের ছয়টি মানবতাবিরোধী অভিযোগে অভিযোগ (চার্জ) গঠন করেন ট্রাইব্যুনাল। এর মধ্যে রয়েছে ৪২ জনকে অপহরণের পর নির্যাতন করে হত্যা-গণহত্যা, দুই পরিবারকে বাড়ি দখল ও মানসিক নির্যাতন চালিয়ে দেশান্তরিতকরণ এবং প্রায় সাড়ে ৪শ’ বাড়ি ঘরে লুটপাট করে আগুন ধরিয়ে দেয়ার অভিযোগ।

জামালপুরের আট রাজাকার ॥ একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় জামালপুরের ৮ রাজাকারের মধ্যে গ্রেফতারকৃত ২ রাজাকার এ্যাডভোকেট শামছুল হক (৭৫) ও এসএম ইউসুফ আলীর (৮২) জামিন আদেশের জন্য আসামি ২২ জুলাই দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। চেয়ারম্যান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান শাহীনের নেতৃত্বে তিন সদস্যবিশিষ্ট আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ সোমবার এ আদেশ প্রদান করেছেন।

প্রকাশিত : ২ জুন ২০১৫

০২/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: