রৌদ্রজ্জ্বল, তাপমাত্রা ২৩.৯ °C
 
৯ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

মেঘনায় ঝড়ের কবলে নৌকাডুবি, ৭ লাশ উদ্ধার

প্রকাশিত : ৩০ মে ২০১৫

নিজস্ব সংবাদদাতা, নরসিংদী, ২৯ মে ॥ নরসিংদীর মেঘনায় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঝড়ের কবলে পড়ে নৌকাডুবিতে একই পরিবারের ৪ জনসহ ৭ জন নিখোঁজ যাত্রীর লাশ উদ্ধার করেছে নরসিংদী ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল। নিহতের মধ্যে ৫ শিশু ও ২জন মহিলা রয়েছে।

এলাকাবাসী জানায়, নরসিংদী সদর উপজেলার পাইকারচর ইউনিয়নের পুরাণচর থেকে

৬০/৭০ জন যাত্রী বোঝাই করে আমির হোসেন মাঝির যাত্রীবাহী ইঞ্জিনচালিত নৌকা একই উপজেলার করিমপুর ইউনিয়নের মেঘনা তীরবর্তী বগারগোত গ্রামের উদ্দেশে রওনা দেয়। নৌকাটি দীর্ঘপথ পাড়ি দিয়ে বগারগোত এলাকার কাছাকাছি মেঘনা তীরবর্তী স্থানে পৌঁছার পর প্রচ- ঝড়ের কবলে পড়ে। এতে নৌকাটি বাতাসের তোড়ে উল্টে মেঘনা নদীতে ডুবে যায়। এ সময় নৌকার যাত্রীরা পানিতে পড়ে চিৎকার করতে থাকে। অনেক যাত্রী সাঁতরিয়ে নদীর পাড়ে উঠতে সক্ষম হলেও অনেকে নিখোঁজ থেকে যায়। ঝড় থামার পর বৃষ্টির মধ্যে আশপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে গিয়ে রাতেই বায়েজিদ ও অজ্ঞাত ২ শিশুর লাশ উদ্ধার করে। রাতে থেকেই উত্তাল মেঘনায় প্রচ- বৃষ্টির মধ্যে নরসিংদী ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি ও ঢাকা থেকে ডুবুরী দল একসঙ্গে উদ্ধার কাজ চালিয়ে বারি ৪ জনের লাশ আজ বেলা ১১টায় উদ্ধার করে। নিহতের মধ্যে একই পরিবারের ৪ জন সদস্য রয়েছে। নিহতদের বাড়ি নরসিংদী বগারগোত ও পাইকারচর এলাকায় বলে জানা গেছে। এরা হচ্ছে কাঁঠালিয়া গ্রামের ফারুক মিয়ার পুত্র বায়েজিত (২) অপর পুত্র ফয়সাল (৭) কন্যা সুমাইয়া (৯) অপর কন্যা ওমাইনি (৪) এবং বগারগোত গ্রামের স্বপন মিয়ার শিশুকন্যা ফারজানা আক্তার (৮) একই গ্রামের রুদ্রমিয়ার স্ত্রী ফালানী বেগম (৬০) ও সাহাজউদ্দীনের স্ত্রী নুরু বেগম। নিহত পরিবারদের প্রত্যেককে দাফন কাফনের জন্য নরসিংদী জেলা প্রশাসন ও স্থানীয় চেয়্যারম্যান মোঃ হারিছ মিয়া থেকে প্রাথমিক ভাবে নগদ ৫ হাজার টাকা আর্থিক সহযোগিতা করা হয়েছে।

প্রকাশিত : ৩০ মে ২০১৫

৩০/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: