কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

সবচেয়ে প্রাণঘাতী বিমান হামলায় ইয়েমেনে নিহত ৮০

প্রকাশিত : ২৯ মে ২০১৫

ইয়েমেনের সৌদি আরব সংলগ্ন সীমান্ত এলাকায় ও রাজধানী সানায় সৌদি নেতৃত্বাধীন বিমান হামলায় অন্ততপক্ষে ৮০ জন নিহত হয়েছেন। খবর ওয়েবসাইটের।

দুই মাস ধরে চলা যুদ্ধে বুধবারের এই বোমা হামলায়ই একদিনে সবচেয়ে বেশি মানুষ নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে ইরান সমর্থিত শিয়া হুতি বিদ্রোহীরা সানা দখলের পর ইয়েমেনের কেন্দ্রীয় ও দক্ষিণাঞ্চল দখলের লক্ষ্যে অভিযান শুরু করে। হুতিদের অগ্রগতিকে মধ্যপ্রাচ্যে শিয়া ইরানের প্রভাব বৃদ্ধির চেষ্টার অংশ হিসেবে বিবেচনা করে সুন্নি সৌদি আরব ও তার মিত্র আরব দেশগুলো। ‘ইরানী প্রচেষ্টাকে’ বাধা দিতে সানার ক্ষমতাচ্যুত সুন্নি প্রেসিডেন্ট আব্দ-রাব্বু মনসুর হাদির পক্ষ নেয় সৌদি জোট। ২৬ মার্চ ভোর থেকে ইয়েমেনে বিমান হামলা শুরু করে সৌদি নেতৃত্বধীন জোট বাহিনী। হাদিকে ক্ষমতা ফিরিয়ে দিতে হুতি ও তাদের মিত্র সেনাবাহিনীর অংশটির অবস্থান লক্ষ করে হামলা চালানো হচ্ছে বলে দাবি করে সৌদি জোট। বুধবার সৌদি সীমান্তের অপর পাশে ইয়েমেনের হাজ্জাহ প্রদেশের বাকিল আল-মিরে চালানো বিমান হামলায় অন্ততপক্ষে ৪০ জন নিহত হন। নিহতদের বেশিরভাগ বেসামরিক লোক বলে জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

এই এলাকাটিতে স্থানীয় ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীগুলোর যোদ্ধারাও হুতিদের পক্ষ হয়ে সীমান্তে সৌদি স্থল বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে জড়িয়ে পড়েছে। সীমান্ত অঞ্চলের এ লড়াই যুদ্ধটিকে ক্রমেই বিদ্রোহী শিয়া মুসলিমদের সঙ্গে উপসাগরীয় সুন্নি আরব দেশগুলোর যুদ্ধে পরিণত করে তুলছে। স্থানীয় এক বাসিন্দা টেলিফোনে বলেছেন, “হুতি বিদ্রোহীরা এই এলাকা থেকে সৌদি সীমান্ত অবস্থানগুলো লক্ষ্য করে হামলা চালাচ্ছে, আর জোট বাহিনীর বিমানগুলো হুতিদের আঘাত করতে ব্যর্থ হয়ে বেসামরিকদের ওপর বোমা ফেলছে।” এর কয়েক ঘণ্টা পর সানায় হুতিদের মিত্র সেনাবাহিনীর বিশেষ বাহিনীর ঘাঁটি লক্ষ করে বোমা হামলা চালানো হয় বলে হুতি নিয়ন্ত্রিত বার্তা সংস্থা সাবা জানিয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দারাও একই কথা জানিয়েছেন।

প্রকাশিত : ২৯ মে ২০১৫

২৯/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: