কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

মালয়েশিয়ায় যাওয়া হবিগঞ্জের ১৩ যুবকের খোঁজ মিলছে না

প্রকাশিত : ২৮ মে ২০১৫
  • থাই আশ্রয় শিবিরে ৪ জন

নিজস্ব সংবাদদাতা, হবিগঞ্জ, ২৭ মে ॥ হবিগঞ্জের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে মালয়েশিয়ার উদ্দেশে পাড়ি জমানো ১৩ যুবকের হদিস পাওয়া যাচ্ছে না। আদৌ তারা বেঁচে আছে নাকি পাচারকারী দালাল চক্রের খপ্পরে পড়ে তাদের মৃত্যু হয়েছে এমন ভাবনাই এখন পরিবারগুলোর। যারা নিখোঁজ রয়েছে তারা হলো জেলার সীমান্তবর্তী উপজেলা চুনারুঘাটের গাজীপুর ইউনিয়নের বাল্লা গ্রামের বাসিন্দা মারফত উল্লাহর ছেলে মতলব মিয়া (৩৫), আরফত উল্লাহর ছেলে সেলু মিয়া (২৫), জমির আলীর ছেলে লাভলু মিয়া (২৫), আলী নগর গ্রামের ময়না মিয়া (৩০), টেকেরঘাট গ্রামের সোলেমান মিয়ার ছেলে আব্দুল বাসির (২১), সুন্দর আলীর ছেলে জামাল মিয়া (২৫), বড়জুর গ্রামের সাইফুল ইসলাম (২১), আফিয়া খাতুনের ছেলে জসিম মিয়া-১ (২৬)। জেলার বানিয়াচঙ উপজেলাধীন প্রথম রেখ গ্রামের সাইফুল ইসলাম জুসেদ (২৭), বলাকিপুর গ্রামের আব্দুল কাদিরের ছেলে জমির আলী (২১), শের আলীর ছেলে সমুজ আলী (২১), জেলার আজমিরীগঞ্জ উপজেলাধীন পশ্চিমবাগ গ্রামের নোমান চৌধুরী (২১) ও গোপী চন্দ্র চন্দ (২৫)। সংশ্লিষ্ট পরিবারগুলো প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছে, একই ভাবে মালয়েশিয়ায় পাড়ি জমানো জসিম, রাসেল, মুক্তাজিল ও মোজাম্মেল এখন থাইল্যান্ডের আশ্রয় শিবিরে রয়েছে। দালালচক্রের হাত থেকে প্রাণে বাঁচতে ওরা জাহাজ থেকে লাফিয়ে পড়লে থাইল্যান্ডের জেলেরা তাদের উদ্ধার করে। একই সময় লাফ দিয়ে পড়া মতলব নামে এক যুবকের সন্ধান তখন মেলেনি। জসিমের পিতা আব্দুল হাই বলেছেন, প্রায় ৫ মাস আগে তার ছেলেকে মালয়েশিয়ায় পাঠানোর নামে ফুসলিয়ে পাচার করে দেয় দালাল হিরা।

হিরা মালয়েশিয়ায় থাকলেও তার পক্ষে কাজ করে তারই ছোট ভাই বাচ্চু।

দু’মাস আগেও জসিমকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে ওরা ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে বিকাশে ও নগদে প্রায় ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ হাতিয়ে নেয়। একইভাবে নিখোঁজ মতলবের বড় ভাইয়ের স্ত্রী মহালিমা খাতুনও জানিয়েছেন, জমি-জমা বিক্রি করে তার দেবরকে স্থানীয় কয়েক চিহ্নিত দালালের মাধ্যমে মালয়েশিয়া পাঠানো হয়েছিল। তিনি জানান, এই মতলেবের সঙ্গে যাওয়া জসিম, রাসেল, মুক্তাজিল ও মোজাম্মেলের থাইল্যান্ড শিবিরে থাকার খবর পাওয়া গেলেও মতলবের সন্ধান এখনও পাওয়া যায়নি। এদিকে জেলার চুনারুঘাট ও বানিয়াচঙ থানার কর্মকর্তারা ওইসব ব্যক্তি মালয়েশিয়ায় পাড়ি দিয়ে নিখোঁজ সংক্রান্ত কোন বিষয় অবহিত না থাকার কথা বললেও আজমিরীগঞ্জ থানার ওসি জানিয়েছেন, দালালদের মাধ্যমে মালয়েশিয়ায় গিয়ে নিখোঁজের ঘটনায় তাদের থানায় একটি মামলা হবার খবর স্বীকার করেছেন। তবে এসব ঘটনায় ইতোমধ্যে এক দালালকে আটক করেছে পুলিশ।

প্রকাশিত : ২৮ মে ২০১৫

২৮/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: